বুধবার,২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং


দুনিয়া বদলে দেয়া নারীদের তালিকায় মালালা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৬.১১.২০১৪

 

237A5FB600000578-0-image-19_1416874275134

ডেইলি মেইল

বিশ্ব পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী সেরা ৪০ জন নারীর তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন ১৭ বছরের তরুণী পাকিস্তানের নাগরিক মালালা ইউসুফজাই। তালিকায় প্রথম স্থান অধিকার করেছেন দুই বারের নোবেল জয়ী বিখ্যাত রাশায়ন বিদ মেরি কোরি। তালিকায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে বৃটিশ সেবিকা ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল এবং তৃতীয় হয়েছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থেচার। এই তালিকায় অন্যান্যের মধ্যে আরো রয়েছেন মাদার তেরেসা, বৃটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের মা ও প্রথম এলিজাবেথ এবং শিশু ও তরুণদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে নোবেল জয়ী মালালা ইউসুফজাই। তার অবস্থান ৩০ তম।

পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার মেয়ে মালালা ইউসুফজাইয়ের জন্ম ১৯৯৭ সালের ১২ জুলাই। নারী শিক্ষার বিরোধী তালেবান জঙ্গিদের এলাকায় বসে মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার পক্ষে বিবিসি ব্লগে লেখালেখি করে তিনি যখন পশ্চিমা বিশ্বের নজর কাড়েন, তখন তার বয়স মাত্র ১১। কিন্তু নারী শিক্ষার পক্ষে কথা বলায় তাকে পড়তে হয় প্রাণনাশের হুমকির মুখে। ২০১২ সালের ৯ অক্টোবর সোয়াত উপত্যকার মিনগোরাত এলাকায় ১৪ বছর বয়সী মালালা ও তার দুই বান্ধবীকে স্কুলের সামনেই গুলি করে তালেবান জঙ্গিরা। পাকিস্তানে তার মাথায় অস্ত্রোপচার করে বুলেট সরিয়ে নেওয়া সম্ভব হলেও পরে যুক্তরাজ্যের কুইন এলিজাবেথ হাসপাতালে তাকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হয়।

ওই ঘটনা বিশ্বেজুড়ে আলোড়ন তোলে, মালালর স্বপ্ন সফল করতে ২০১২ সালের ১০ নভেম্বরকে ‘মালালা দিবস’ ঘোষণা করে জাতিসংঘ।
তাৎক্ষণিকভাবে পাকিস্তানে ফিরতে না পারলেও মালালা যুক্তরাজ্যে থেকে তার লড়াই চালিয়ে যেতে থাকেন। পাকিস্তান, নাইজেরিয়া, জর্ডান, সিরিয়া ও কেনিয়ার মেয়েদের শিক্ষার সহায়তায় গঠন করেন মালালা ফান্ড।

গত বছর জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে অংশ নিয়ে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে এক বক্তৃতায় মালালা বলেন, “চরমপন্থিরা বই আর কলমকে ভয় পায়। তারা নারীদেরকে ভয় পায়। তালেবানরা ভেবেছিল বুলেট দিয়ে আমাদের স্তব্ধ করে দেবে। কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছে।”
প্রতিটি শিশুর স্কুলে যাওয়া নিশ্চিত করতে বিশ্ব নেতাদের জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

মালালা বলেন, “আসুন আমরা খাতা কলম হাতে তুলে নেই। এগুলোই আমাদের সবচেয়ে বড় অস্ত্র। সবার আগে শিক্ষা, শিক্ষাই সমস্যার একমাত্র সমাধান। একজন শিশু, একজন শিক্ষক, একটি কলম ও বই গোটা বিশ্বকে পরিবর্তন করে দিতে পারে।

ডেইলি মেইল থেকে



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি