বুধবার,২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং


প্রাপ্তি তবু একটি করমর্দন


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১১.১২.২০১৪

saarc4

ডেস্ক রিপোর্ট
দক্ষিণ এশিয়ার আট দেশের ১৮তম সার্ক শীর্ষ সম্মেলন শেষ হয়েছে ২৭ নভেম্বর। ৩৬ দফা ‘কাঠমান্ডু ঘোষণা’ এসেছে সম্মেলন থেকে। শেষ মুহূর্তে এসে স্বাক্ষর হয়েছে জ্বালানি সহযোগিতাবিষয়ক সার্ক ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি। নরেন্দ্র মোদি ও নওয়াজ শরিফের মধ্যে ‘আন্তরিকতাহীন’ করমর্দনও হয়েছে।

অন্তত এ দু’টি ঘটনা না ঘটলে অর্থহীন হয়ে পড়তো কাঠমান্ডু সম্মেলন। দক্ষিণ এশিয়ার আট দেশের নেতাদের মুখে হাসি ছিল ঠিকই, বড়সড় ব্যর্থতার ছায়া পড়ে ছিল সম্মেলনজুড়ে। পাঁচ ঘণ্টার রিট্রিটে তারা দু’জন দু’জন করে বসলেন, দর্শনীয় স্থানগুলো দেখলেন, হিমালয়ের শীতল বাতাসও উপভোগ করলেন।

১৯৮৫ সালে যাত্রার শুরু থেকে কম চুক্তি করেনি সার্ক দেশগুলো। সাপটা, সাফটা কত কী! কোনোটিরও সুখকর সমাপ্তি হয়নি। কারণ একটাই। রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবই এই ব্যর্থতার পেছনে কাজ করেছে। সার্ক শুরু হয়েছিল একটি মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল গঠনের স্বপ্ন নিয়ে। সাফটা সইয়ের উদ্দেশ্যও ওটা। সন্দেহ নেই, সাফটার উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হলে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করবে এ অঞ্চল।

দুঃখজনক হলো, দুই দশক পরও এ চুক্তি বাস্তবায়নে তেমন কার্যকর উদ্যোগ চোখে পড়েনি। ফলে যা হয়েছে, সার্ক দেশগুলোর মধ্যেকার আন্তঃসীমান্ত বাণিজ্য এখন তাদের মোট বিশ্ববাণিজ্যের পাঁচ শতাংশেরও কম।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সম্মেলনে আঞ্চলিক অবকাঠামো, স্বাস্থ্যসুবিধা, এমনকি যোগাযোগ উপগ্রহে বিনিয়োগের অঙ্গীকার করেছেন। সার্কভুক্ত ছোট দেশগুলো থেকে রফতানিতে ভারতের বাজার খুলে দেওয়ার অঙ্গীকারও করেছেন তিনি। তবে, অনেক দেরিতে আসে এ পদক্ষেপ। নেপাল এরই মধ্যে দশক ধরে চীনা বিনিয়োগের সুবিধা নিয়ে ফেলেছে। চীনের সহায়তায় দেশটিতে বড় বড় রাস্তা হয়েছে। সব ধরনের অবকাঠামোয় তারা চীনা সুবিধা পেয়েছে। এমনকি, যে ভেন্যুতে সম্মেলন হয়েছে, তাও চীনের টাকায় তৈরি।

পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাসহ কয়েকটি সদস্যদেশ সার্কে চীনের পূর্ণ সদস্যপদের ব্যাপারে সমর্থন দিয়েছে। পাকিস্তান, আফগানিস্তান, মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কাসহ এ অঞ্চলে চীনের গভীর প্রভাব রয়েছে। প্রতিবেশি কিছু দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ভারত অনাকাক্সিক্ষত হস্তক্ষেপ করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

সম্মেলনের প্রথম দিনে ভারত ও পাকিস্তানের দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে দেখাদেখিও হয়নি। কাছাকাছি বসলেও পরস্পরের দিকে তাকানওনি দু’জন। সম্মেলনের ব্যর্থতার জন্য ওই বৈরিতাই কি দায়ী ছিল?

বিষয়টি স্পষ্ট হয়, যখন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং সম্মেলনের দু’দিন পর পাকিস্তানকে আঘাত করে কড়া বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, ভারতের অভ্যন্তরে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য পাকিস্তানি ‘রাষ্ট্রনায়করা’ দায়ী। পুরনো দাবিকে তুলে এনে তিনি বলেন, ইসলামি জঙ্গিদের লালন করছে পাকিস্তান। ভারতের সেনাটহলে যে গেরিলা হামলায় ১০ জন নিহত হন, এর জন্য তিনি পাকিস্তানকে দায়ী করেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, সার্কের অগ্রগতিতে ভারত ও পাকিস্তানের বৈরিতা প্রাচীর হয়ে কাজ করছে। দুই দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক তৈরি না হলে এবং সার্কের উন্নয়নে দুই দেশ সমন্বিতভাবে আন্তরিক না হলে সংস্থাটির ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল নয়। এখানে কাশ্মির একটি বড় সমস্যা। এ সমস্যার সুরাহা দীর্ঘ প্রচেষ্টার পরও হয়নি। ভবিষ্যতে হবে, এমন সম্ভাবনাও নেই।

বিষয়টি আরো পরিষ্কার করে বলা যায়, কাশ্মিরের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বই কেবল দীর্ঘদিন ধরে পুঞ্জিভূত সমস্যাটির সমাধান হতে পারে। এর ওপরই নির্ভর করছে এ অঞ্চলের স্থিতিশীলতা। সার্কের উন্নতিও অনেকটা এর ওপর নির্ভরশীল।

হলিডে থেকে অনুবাদ করেছেন মুরশিদুল আলম চৌধুরী



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি