বৃহস্পতিবার,১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং


প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে মা সমাবেশের গুরুত্ব ( প্রেক্ষিত চান্দিনা )


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.১২.২০১৪

Chandina picture 29-09-14
শেখ ছালেহ আহাম্মদ,
উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চান্দিনা, কুমিল্লা।

“মা কথাটি ছোট্ট অতি
কিন্তু জেনো ভাই
ইহার চেয়ে নাম যে মধুর
ত্রিভুবনে নাই।”
‘মা’ কথাটি ছোট্ট হলেও পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ সম্পদ হচ্ছে মা। সব ধর্মেই মাকে সবার উপরে স্থান দেয়া হয়েছে। একজন মা তার গর্ভে দশ মাস দশ দিন অতি কষ্ট সহ্য করে অতি যতেœ তার সন্তানকে লালন পালন করেন। জন্মমাত্র সুতীব্র চিৎকারে হতচকিত নয়নে একটি শিশু তার মায়ের কাছেই জানতে চায় অবাক পৃথিবীর অজানা রহস্য। এই অসহায় শিশুটিকে শত প্রতিকৃলতা পেরিয়ে তার মাই কথা বলতে, পথ চলতে শেখান। সন্তানের ভবিষ্যৎ গঠনে মায়ের ভূমিকা তাই অপরিসীম। নেপোলিয়াম বলেছেন- “তোমরা আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাদের একটি শিক্ষিত জাতি উপহার দেব”, সুতরাং একথা অনস্বীকার্য যে, সন্তানের ভবিষ্যৎ গঠনে মায়ের দায়িত্ব এবং ভূমিকাই প্রধান।
মা সমাবেশ ঃ প্রাথমিক শিক্ষাই হচ্ছে একটি শিশুর সুদীর্ঘ পথ পরিক্রমার প্রথম ধাপ। মায়ের হাত ধরে গুটি গুটি পায়ে যখন একটি শিশু প্রথম বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় পা রাখে তখন শুরু হয় তার নতুন জগতে বিচরণ। এই বিচরণকে মসৃণ করতে মায়ের সচেতনতাই সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। তাই প্রাথমিক শিক্ষায় ‘মা সমাবেশ’ নামক একটি আনুষ্ঠানিকতার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের সকল শিশুর মায়েদের প্রতিমাসে একটি নির্দিষ্ট দিনে বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয়। সেদিন সকল শিশু তার মা সহ বিদ্যালয়ে হাজির হয়। এই মা সমাবেশের মাধ্যমেই সমাজকে সচেতন করা হয় শিশু শিক্ষার প্রতি নজর দেয়ার জন্য। শিশুর ভবিষ্যৎ গঠনে প্রথম পদক্ষেপ সাধারণত মাই নিয়ে থাকেন। তাই ‘মা সমাবেশ’ অত্যন্ত গুরুত্ব বহন করে, মা সমাবেসের মাধ্যমে-শিশুর আচার আচরণ সম্পর্কে অবহিত করা,শিশুর মধ্যে কোনো অস্বাভাবিকতা থাকলে তা জানা, শিশুর শারীরিক ও মানসিক অবস্থা সম্পর্কে শিক্ষক ও পরিবারের মধ্যে তথ্য বিনিময় করা,কোনো শিক্ষার্থীর উপস্থিতি ও বিদ্যালয়ে না আসার প্রবণতা থাকলে তা জানা, শিক্ষা জীবনে শিক্ষার্থীর ফলাফল কেমন, তার উন্নয়নের ক্ষেত্রগুলো কি কি তা মায়ের মাধ্যমে প্রতিটি পরিবারে জানা,মা সমাবেশের মাধ্যমে পরিবারের সদস্যদের শিশু সম্পর্কে সচেতন করা,শিক্ষার্থীর ঘাটতিগুলো সনাক্ত করে নিরাময়মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা, শিশুর জন্য পরিবারে এবং বিদ্যালয়ে ভীতিহীন পরিবেশ বজায় রাখা,শিশুর পাঠের তদারকি এবং শেখার কাজে শিশুকে আগ্রহী করে তোলা যায়। শিশুকে একটি সুন্দর ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য এবং উন্নত জীবনের স্বপ্ন দর্শনে উদ্বুদ্ধ করার জন্য সম্ভব হয় মা সমাবেশের মাধ্যমেই।মা সমাবেশের মাধ্যমে একজন মা আরও একাধিক মায়ের সাথে ভাব বিনিময়ের সুযোগ পেয়ে থাকেন যার দরূন সন্তানের জন্য সঠিক ও উপযুক্ত লক্ষ্য নির্ধারণ সহজ হয়।প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিভিন্ন ভাবে মা সমাবেশের আয়োজন করা হয়। যেমন কোনো বিদ্যালয়ে এক একটি শ্রেণির অভিভাবকদের এক একদিন ডাকা হয়। কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলায় ইউনিয়ন পর্যায়ে ও মা সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সকল ইউনিয়নভুক্ত বিদ্যালয় গুলোর শিক্ষার্থীদের মায়েদের একটি নিদির্ষ্ট দিনে ডাকা হয়। খুব জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে এই দিনটি পালিত হয়। এই সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন আমাদের মাননীয় এম.পি. মহোদয় অধ্যাপক আলী আশ্রাফ স্যার। উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার, বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ সহ সমাজের গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ। তারা মায়েদের উদ্দেশ্যে শিশুর জন্য দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন। শিশুর ভবিষ্যৎ গঠনে তাদের সহযোগীতার হাতও প্রসারিত করে থাকেন। এভাবে উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গের সাথে মিলন মেলায় মিলিত হন প্রতিটি শিশুর মা এবং শিশুরা। তারাও উৎসাহিত হন ভবিষ্যৎ জীবনে শিশুর একটি উত্তম অবস্থান তৈরি নিশ্চিত করতে।“মায়ের পদতলে সন্তানের বেহেশ্ত।” আল কোরআনের এই বাণীটি যেমন চিরন্তর। তেমনি এই পৃথিবীতেই সন্তানের জন্য স্বর্গ রচনা করতে পারেন মা-ই। মা সমাবেশের মাধ্যমে সমাজকে জাগ্রত করা হয় শিশুর প্রতি দৃষ্টি দেয়ার জন্য, তাই প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে ‘মা সমাবেশ’ সমাজকে উদ্বুদ্ধ করার একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রক্রিয়া।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি