শুক্রবার,১৮ই জানুয়ারি, ২০১৯ ইং


বিশ্ব হিজাব দিবস ও পর্দার বিধান


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০২.২০১৬

hijab-2

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিশ্ব হিজাব দিবস আজ। ‘বেটার অ্যাওয়্যারনেস, গ্রেটার আন্ডার্স্ট্যান্ডিং, পিসফুল ওয়ার্ল্ড’ সেøাগানে উজ্জীবিত হয়ে বিশ্বব্যাপী পালন হচ্ছে দিবসটি।

চলমান পরিস্থিতিতে ধর্মীয় সম্প্রীতির ব্যাপারটিকে আরো বেগবান করার অভিপ্রায়ে যারা মুসলমান নন, তাদেরকেও এদিন হিজাব পরার আহ্বান জানানো হয়েছে। ২০১৩ সাল থেকে দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। নিউইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাজমা খান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সর্বপ্রথম হিজাব দিবস পালনের পক্ষে প্রচারণা চালান। এর ধারাবাহিকতায় পরে মুসলিম দেশগুলোতে এই দিবসটি পালনের প্রচলন শুরু হয়।

এ উপলক্ষে নিউইয়র্কের মূল অনুষ্ঠান হবে সিটি হলের বারান্দায়। বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, আফগান, তুরস্ক, সৌদি আরব, মিসর, কুয়েত, কাতার ও ইরানের নারীরা হিজাব দিবসের চেতনা ভিন্ন ধর্মের আমেরিকানদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেবেন।

হিজাব নারীর সৌন্দর্য্য। হিজাব পরা ইসলাম ও মুসলমানদের সংস্কৃতি। সমাজে নারী পুরুষের আচার আচরণে শালীনতা বজায় রাখার জন্য পর্দার বিধান চালু করা হয়। বিশ্বব্যাপী মুসলিম নারীদের হিজাব পরিধানে উদ্বুদ্ধ করতে ‘বিশ্ব হিজাব দিবস’ পালন অভিনব পদ্ধতি।

সমাজে পর্দার বিধানটি কোনক্রমের তুচ্ছ করে দেখার বিষয় নয়। পর্দার বিধানে আল্লাহ তায়ালা মানবসভ্যতার জন্য কল্যাণ লুকায়িত রেখেছেন। ইসলামে পর্দার বিধানটি অন্যান্য কল্যাণের পাশাপাশি নারীর সম্মান ও সমাজের পবিত্রতা রক্ষার জন্যই দেওয়া হয়েছে। পর্দার বিধান সম্পর্কে আল্লাহ তায়ালা বলেন, এই বিধান তোমাদের ও তাদের অন্তরের জন্য অধিকতর পবিত্রতার কারণ। (সুরা আহযাব : ৫৩)

পর্দার বিধান নিয়ে আল্লাহ তায়ালা বলেন, হে নবী! আপনি আপনার স্ত্রীদের, কন্যাদের ও মুমিনদের নারীদের বলুন, তারা যেন তাদের চাদরের কিয়দংশ নিজেদের ওপর টেনে দেয়। এতে তাদের চেনা সহজ হবে। ফলে তাদের উত্যক্ত করা হবে না। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। (সুরা আহযাব : ৫৯)

অন্যত্র বলেছেন, তোমরা তাঁদের (নবী পতœীদের) নিকট কিছু চাইলে পর্দার আড়াল থেকে চাও। এই বিধান তোমাদের ও তাদের হৃদয়ের জন্য অধিকতর পবিত্রতার কারণ। তোমাদের কারো জন্য আল্লাহর রাসুলকে কষ্ট দেওয়া সংগত নয় এবং তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর পতœীদেরকে বিয়ে করা তোমাদের জন্য কখনো বৈধ নয়। আল্লাহর দৃষ্টিতে এটা ঘোরতর অপরাধ। (সুরা আহযাব: ৫৩)

এই আয়াত থেকেও বোঝা যায়, নারীর দেহের কোনো অংশই পর্দা-বিধানের বাইরে নয়। উম্মুল মুমিনীনগণের আমলও তা প্রমাণ করে।

সুরা নুরে বলা হয়, (হে নবী!) মুমিন নারীদের বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি সংযত রাখে ও তাদের লজ্জাস্থানের হেফাযত করে। তারা যেন সাধারণত যা প্রকাশ থাকে তা ছাড়া নিজেদের আভরণ প্রদর্শন না করে। (সুরা নুর : ৩১)

বিভিন্ন হাদিস দ্বারাও পর্দার বিষয়টি প্রমাণিত। উম্মুল মুমিনীন হযরত আয়েশা রা. বলেন, আমরা যখন রাসুলুল্লাহ এর সঙ্গে ইহরাম অবস্থায় ছিলাম তখন আমাদের পাশ দিয়ে অনেক কাফেলা অতিক্রম করত। তারা যখন আমাদের সামনাসামনি চলে আসত তখন আমাদের সকলেই চেহারার ওপর ওড়না টেনে দিতাম। তারা চলে গেলে আবার তা সরিয়ে নিতাম। মুসনাদে আহমাদ ৬/৩০; ইবনে মাজাহ, হাদিস: ২৯৩৫

এসব আয়াত ও হাদিস থেকে বোঝা যায়, পরপুরুষকে আকৃষ্ট করে এমন সব কাজ থেকে বিরত থাকা ঈমানদার নারীর কর্তব্য। মুসলিম নারীদের জন্য এটি আল্লাহ রাববুল আলামীনের একটি গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা। এ বিধান পালনেই সমাজে নারী পুরুষের শান্তি সৌহার্দ্য স্থিতিশীল থাকবে এতে সন্দেহ নেই।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি