শুক্রবার,২২শে জুন, ২০১৮ ইং


বঙ্গবন্ধু রাশিয়ার প্ররোচনায় একদলীয় শাসন চালু করেছিলেন-নূরে আলম সিদ্দিকী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৫.০৮.২০১৬

 

nura-alam-550x303

ডেস্ক রিপোর্ট: স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক নূরে আলম সিদ্দিকী বলেছেন, যদিও বঙ্গবন্ধু একদলীয় শাসন চালু করেছিলেন, কিন্তু সেটা রাশিয়ার প্ররোচনায়। আমি দৃঢভাবে বিশ্বাস করি, তিনি যদি আর তিনটি বছর সময় পেতেন তবে আবারও গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিতেন।

রোববার দিনগত রাতে চ্যানেল আইয়ের তৃতীয় মাত্রায় তিনি এ দাবি করেন।

বঙ্গবন্ধুকে অনেক কৌশলে ৭ মার্চের ভাষণ দিতে হয়েছিল মন্তব্য করে নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, ‘তার বক্তব্য এত সুকৌশলী, শব্দচয়ন এত সুন্দর, এমন আকর্ষনীয় বডি ল্যাংগুয়েজ- বাংলার মানুষকে আলোড়িত করেছিল।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ১০ জানুয়ারি দেশে ফিরেছিলেন। ওই সময়ে মুজিব ভাইকে আমি বলেছিলাম রাষ্ট্রপতির পদ ছেড়ে জাতির জনক হিসেবে জাতীয় ৪ নেতার মধ্য থেকে কাউকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় অবস্থান নেয়ার এবং মহাত্মা গান্ধীর অনুসরণে দলীয় আবর্ত থেকে ঊর্ধ্বে ওঠার। সেক্ষেত্রে জাতির পিতা থাকতেন সব সমালোচনা ও বিতর্কের ঊর্ধ্বে। অথচ দেশ চলত কিন্তু তাঁরই নির্দেশে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেটা হয়নি। কম্যুনিস্টরা তাঁর অজান্তেই তাঁকে পরিবেষ্টিত করে ফেলল।’

শেখ মুজিবের পররাষ্ট্র নীতি সম্পর্কে নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে বলেছিলেন, ভারত আমাদের সহায়তা করেছে, তাদের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞ, তাদের তিনি স্যালুট জানিয়েছিলেন। ইন্দিরা গান্ধির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু তিনি স্পষ্ট করেই বলেছিলেন, আমরা ভারতের অধীনস্থ থাকব না।’

প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের এই আহ্বায়ক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তার মূল উৎস ছিল জনগনের নাড়ি।’

তিনি স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘সতেরোটি মাস এক সঙ্গে কারাগারে ছিলাম। ২৪ ঘন্টা তার স্নেহ পেয়েছি। ২৪ ঘন্টা তাকে অভিভাবক হিসেবে পেয়েছি। আমি মুখে কিছু না বললেও তিনি আমার সবকিছুই বুঝতেন।

নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, ‘একবার বৈরুতে চিকিৎসার জন্য যাচ্ছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। তাকে জিজ্ঞেস করা হলো, তিনি কি রেখে যাচ্ছেন। তিনি বললেন, একটা ময়দান আর একটা কলম। একজন শেখ মুজিব আর একজন মানিক মিয়া। একজন স্বাধীকারের আন্দোলন তরান্বিত করবে, আরেকজন তার ক্ষুরধার লেখনী দিয়ে রাজনৈতিক চেতনা জাগ্রত করবে। আমার মনে আছে, মানিক মিয়া একবার নারায়ণগঞ্জ গেলেন। সেখানে কমিউনিষ্টরা সমাবেশে বলল, আমাদের কমরেড লেলিন নয়, আমাদের কমরেড হলেন মানিক মিয়া। মানিক মিয়া তার বক্তৃতায় প্রতিবাদ করে বলেছিলেন, আমি কমরেড মানিক মিয়া নয়, আমি বাংলাদেশের মানিক মিয়া হতে চেয়েছিলাম।’

‘বঙ্গবন্ধু এদেশের হাট ঘাট মাঠ চষে বেড়িয়েছেন। সম্মোহন করার মত বক্তৃতা আর ভালবাসা দিয়ে বিমোহিত করেছেন দেশবাসীকে। তিনি বলেন, ‘১৫ আগস্ট আমি শুধু হতবিহবল, মর্মাহত, কিংকর্তব্যবিমূঢ়ই হইনি; আমি এতটাই অসহায় ছিলাম যে, না সংসদ, না সংগঠন, না প্রশাসন- কোনো জায়গায়ই আমার কোনো অবস্থান ছিল না।

তিনি বলেন, ‘সামরিক জান্তার রোষানলে ১৯টি মাস আমাকে শুধু কারা নির্যাতনই ভোগ করতে হয়নি, এমন মানসিক নির্যাতনের মুখোমুখি হতে হয়েছে যে, আমি প্রায়ই বলি, আজরাইলের চেহারা থাকলে আমি নিখুঁতভাবে সেটাকে বর্ণনা করতে পারতাম। বন্দি জীবনের সেসব দিনগুলোর কথা মনে পড়লে আজো আমি শিউরে উঠি।’

ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি বলেন, ‘আমি সংস্কারপন্থী। আমি সংস্কারপন্থী হিসেবে নিজে গর্ববোধ করি। আমি চাই তরুণরা আগামী দিনের নেতৃত্ব দিক।

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া বলেছেন- তিনি কেক কাটবেন না। শেষ পর্যন্ত তিনি উপলদ্ধি করেছেন এটা ভাল। তবে আরও আগেই তিনি সেটা বিবেচনা করতে পারতেন।’

যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, ‘যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ছিলেন শেখ ফজলুল হক মণি আর আমি ছিলাম সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু পরে আমাকে বাদ দেয়া হলো। যদি মণি ১৫ আগষ্ট নিহত না হতেন, সেদিনই বাংলার যুব সমাজ মণির নেতৃত্বে খুনীদের দেশ ছাড়া করত। ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাদের বিচার করা হতো।’

‘আমি শেখ হাসিনার বিরোধী নই। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ছিলাম, আছি, ভবিষ্যতেও থাকব।’ দৃঢকন্ঠেই জানালেন নূরে আলম সিদ্দিকী। সূত্র: পূর্বপশ্চিম.কম



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি