[bangla_day],[english_date]
  • প্রচ্ছদ »সম্পাদকীয় » স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঠিকানা হবার কথা ছিল পাগলাগারদে, ভাগ্যের নির্মম পরিহাস উনার ঠিকানা মন্ত্রীপাড়া!


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঠিকানা হবার কথা ছিল পাগলাগারদে, ভাগ্যের নির্মম পরিহাস উনার ঠিকানা মন্ত্রীপাড়া!


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
28.01.2017

ইমরান এইচ সরকার:

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন ঔদ্যর্তপূণ্য বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ইমরান এইচ সরকার তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন…

এই অমানবিক, বর্বর নির্যাতনকে যে ব্যক্তি ধাক্কাধাক্কি বলতে পারে তার ঠিকানা হবার কথা ছিল পাগলাগারদ। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস উনার ঠিকানা মন্ত্রীপাড়া!

ছি! লজ্জায় মরে যাই!! এই আমাদের বাংলাদেশ??




গতকাল মৌলভীবাজারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের বক্তব্য :

সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, পুলিশ সাংবাদিকদের নির্যাতন করে না। মাঝে মধ্যে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায়। বৃহস্পতিবারও তাই হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে মৌলভীবাজারের শমসেরনগরে ঐতিহাসিক রেজা শাহ পাহলভী তোরণের পুনঃনির্মাণ ও সংস্কারপূর্বক উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীতে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিলের দাবিতে তেল-গ্যাস ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির আধাবেলা হরতালে শাহবাগ থানায় দুই সাংবাদিককে পেটায় কয়েকজন পুলিশ সদস্য। এই ঘটনায় একজন সহকারী উপপরিদর্শককে বরখাস্ত করা হয়েছে। চিহ্নিত হয়েছেন আরো ১১ জন। এদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

এর আগেও নানা সময় সাংবাদিকদের পিটিয়েছে পুলিশ। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেয়া হলেও প্রায়ই একই ধরনের ঘটনা ঘটেই যাচ্ছে। এই বিষয়টি নিয়েই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর কাছ থেকে জানতে চেয়েছিলেন সাংবাদিকরা।

সার্চ কমিটি নিয়ে বিএনপির প্রতিক্রিয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আপত্তি ছাড়া বিএনপি কোনো বিষয়ই মানে না। আপত্তি করাই তাদের প্রক্রিয়া। সময়মতো তারা ঠিকই নির্বাচনে আসবে।’

এ সময় কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার লংলার জমিদার আলী আমজাদের বংশধর নওয়াব আলী হায়দর খাঁন ও নওয়াব আলী আজগর খাঁনের বিশেষ আমন্ত্রণে ১৯৫১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ইরানি রয়েল এয়ার ফোর্সের একটি বিমানে শমসেরনগর বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তার সম্মানার্থে শমসেরনগর রেলওয়ে স্টেশনে কয়েকটি তোরণ স্থাপিত হয়েছিল। কয়েক বৎসর পূর্বে গাড়ির ধাক্কায় একটি তোরণ ভেঙে গেলে শমসেরনগরের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা চাঁদা তুলে ঐতিহ্যবাহী এই তোরণটি পুনর্নির্মাণ করেন এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শুক্রবার এটির উদ্বোধন করেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি