শনিবার,১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


কুমিল্লার নামে বিভাগ হবে-হবে না; নেপথ্যে আসলে কী?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৫.০২.২০১৭

ফারুক মেহেদীঃ

এমন একটি বিষয় নিয়ে লিখবো কখনও ভাবিনি। বিষয়টি আমার কাছে অনেক স্পর্শকাতর! স্পর্শকাতর বলছি এ কারণে যে, এর সাথে আত্মসম্মানবোধ, আত্মঅহংকারের মত মহামূল্যবান কিছু বিষয় জড়িয়ে আছে। এর সাথে জড়িয়ে আছে আমার ভালোবাসা, আবেগ-অনুভূতি! বিষয়টি যদি এমন হতো যে তা শুধু একটি নামের মধ্যেই সীমাবদ্ধ তাহলে কথা ছিল না। বিষয়টি নামের বাইরেও অনেক কিছু। এমন যে তা শুধু লিখে প্রকাশ করা যাবে না, আবার বলেও শেষ করা যাবে না। বলছিলাম কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে ময়নামতি নামে বিভাগ করার বিষয় নিয়ে।

গত কয়েকদিন ধরেই দেখছি, কুমিল্লার পরিবর্তে ময়নামতি নামে বিভাগ করা নিয়ে উত্তাল কুমিল্লা। এমন প্রস্তাবনার প্রতিবাদে স্থানীয় নানান শ্রেণী পেশার মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছেন। শুধু কুমিল্লায় নয়; মানুষ প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন দেশের ভেতরে বিভিন্ন স্থানে। দেশের বাইরেও বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী কুমিল্লার অধিবাসিরা প্রতিবাদ-বিক্ষোভ করছেন। আর প্রতিবাদ ও সমালোচনার ঝড় উঠেছে ফেইসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

প্রতিবাদটি যৌক্তিক। দেশের সব বিভাগের নাম হয়েছে স্থানীয় জেলার নামেই। কেন তবে কুমিল্লার ক্ষেত্রে বিভাগের নাম কুমিল্লা না হয়ে ময়নামতি হবে? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন খুনি মুস্তাকের কারণে কুমিল্লা নামের প্রতি এক ধরনের ঘৃণা কাজ করে! তাই নাম বদলানোর কারণ। আরও একটি কারণ তিনি বলেছেন-তা হলো নোয়াখালির মানুষেরও কুমিল্লা নামে আপত্তি। সত্যিকার অর্থে এসব কোনো কারণ হতে পারে না একটি বিভাগের নাম পরিবর্তনের। যদি এমনই হতো তবে কুমিল্লার প্রায় এক কোটি মানুষ কী চান তাদের কী মতামত নেয়া হয়েছে? কুমিল্লার মানুষও এদেশের নাগরিক। শিক্ষায়, সাহিত্যে, সংস্কৃতিতে, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি, প্রশাসন, খেলাধুলায় সব ক্ষেত্রেই কুমিল্লার মানুষের উল্লেখযোগ্য অবদান আছে এবং এখনও রেখে চলেছেন। একজন খুনির কারণে সব ক্ষেত্রে অগ্রসরমান একটি জেলার সব মানুষের আবেগ অনুভূতিকে অগ্রাধিকারে না নিয়ে যেকোন সিদ্ধান্ত নেয়া অগণতান্ত্রিক। একটি বিশেষ জেলার মানুষের অপছন্দের কারণে যদি একটি জেলার নামে বিভাগ না করে অন্য নামে করার উদ্যোগ নেয়া যায়, তবে একটি জেলার ইচ্ছে, আবেগ অনুভূতির কারণে কেন ওই জেলার নামে বিভাগের নামকরণ করা যাবে না?

কুমিল্লা সবক্ষেত্রেই অবহেলার শিকার। সরকারি চাকুরিতে কুমিল্লার মানুষ এগিয়ে আছে তাই তাদের দমিয়ে রাখতে কোটা পদ্ধতি! অন্য জেলার মানুষ পিছিয়ে আছেন তাই তাদের এগিয়ে দেয়ার জন্য কুমিল্লার মানুষের যোগ্যতা থাকলেও টেনে ধরতে হবে! শিক্ষায় বহু আগে থেকেই এগিয়ে কুমিল্লা। অথচ একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে এ জেলার মানুষকে অপেক্ষা করতে হয়েছে যুগের পর যুগ। এ জেলা দেশের পুরো যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সম্পৃক্ত করেছে; অথচ জেলাটির সার্বিক উন্নয়নে সমন্বিত উন্নয়ন প্রকল্প নেই!

কুমিল্লার একজন খুনির কারণে আড়ালে পড়ে যাবে উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ শচিন দেব বর্মণ? আজকে বাঙলা ভাষা প্রতিষ্ঠা করার পেছনে যে মানুষটি প্রথম প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছিলেন, সেই ধিরেন্দ্রনাথ দত্তের অবদান উপেক্ষিত। যে ব্যক্তির কারণে বাঙলা ভাষা আর্ন্তজাতিক ভাষার স্বীকৃতি পেয়েছে, তার কথাও মনে রাখবেন না কেউ? জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, রবীন্দ্রনাথ, মহাত্মা গান্ধী, নজরুলের স্মৃতিবিজড়িত কুমিল্লার প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স অর্থনীতিকে সচল রেখেছে। সারাদেশে রেমিট্যান্স প্রবাহে শীর্ষ জেলা হওয়ার পরও কুমিল্লা শুধুই বদনামের ভাগিদার?

কারা আসলে কুমিল্লাকে প্রাপ্য মর্যাদা থেকে বঞ্চিত করার খেলায় মেতেছেন? আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কেউ পেছন থেকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করছেন। প্রধানমন্ত্রী কোনো বিশেষ অঞ্চলের নন, তিনি একটি বিশেষ অঞ্চলের প্রতি বিরাগভাজন থাকবেন এটাও হওয়া সম্ভব নয়। তিনি সবার, সব জেলার সব মানুষের প্রধানমন্ত্রী। তিনি কারও মনে আঘাত দিয়ে কারও একক ভালোবাসা পাওয়ার ব্যপারে লোভী নন। তাকে কেউ না কেউ বিষয়গুলোর ভুল ব্যাখ্যা দিয়েছেন, তাকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন। এটা ষড়যন্ত্রও হতে পারে। এমনও হতে পারে কুমিল্লার মানুষের আবেগ অনুভূতিতে আঘাত লাগে এমন ঘটনা প্রধানমন্ত্রীর নামে ঘটানো যাতে মানুষ প্রধানমন্ত্রীর প্রতি রাগ করেন, বিক্ষুব্ধ হন। এর মধ্য দিয়ে অন্য কাউকে সুযোগ দেয়ার ষড়যন্ত্র হবে না-এটা উড়িয়ে দেয়া যায় না।

এমনও হতে পারে একটা অস্থিরতা তৈরি করা। যার ফলে সরকারের বাড়তি মনোযোগ দিতে হবে এ বিষয়ে, এতে জনপ্রিয়তা কমলে তৃতীয় পক্ষ সুবিধা নেবে! সামনে নির্বাচন আসছে। সরকার এ যাবৎকালের সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন কর্মকান্ড করছে। দেশে, সড়ক মহাসড়ক, ফ্লাইওভার , মেট্রোরেল হচ্ছে। একশোটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে। বন্দর, সেতুসহ মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে বিনিয়োগ কর্মসংস্থানের রেকর্ড গড়তে যাচ্ছে সরকার। বেসরকারি খাতও এগিয়ে যাচ্ছে। যার সুফল পাচ্ছেন সাধারন মানুষ। কেউ এখন আর না খেয়ে নেই। সর্বত্র উন্নয়নের ছোয়ায় মানুষের মধ্যে যখন সাবলম্বী হওয়ার উদ্যম; তখন একটি বিশেষ জনপদের মানুষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে দিয়ে একটি বিশেষ মহল বিশেষ সুবিধা নিতে চান বলেই আমার ধারনা। উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণেই এমন আশংকা তৈরি হচ্ছে।

তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সতর্কতার সাথে বিষয়টির সুরাহা করতে হবে। কুমিল্লার কোটি মানুষের ইচ্ছে কতটা যৌক্তিক তার একটা পর্যালোচনা হতে পারে। একটি দেশের সব মানুষ যেমন তাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ভালোবাসেন, পছন্দ করেন; তেমনি তিনিও সবার আবেগ অনুভূতির বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দেবেন বলে আশা করি। কাউকে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের সুযোগ দেয়া ঠিক হবে না।

ময়নামতিও কুমিল্লার একটি ঐতিহাসিক স্থানের নাম। এ স্থানের পেছনে অনেক ঐতিহাসিক ঘটনা রয়েছে। যে কারণে এ জায়গাটির আলাদা আবেদন রয়েছে। একে বিভাগ করার মধ্য দিয়ে বিশেষ মর্যাদা দেয়ার প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। বরং এ টানাহেচড়ার মধ্য দিয়ে ময়নামতি নামের অবমাননা করা হবে। আমি মনে করি যেহেতু আর কোনো বিভাগের নামে কোনো পরিবর্তন আনা হয় নি; তাই কুমিল্লার নামেই বিভাগ করা হোক। আর যদি তা না হয়; তবে কুমিল্লায় বিভাগ দেয়ার কোনো প্রয়োজন নেই! আমার বিশ্বাস কুমিল্লার মানুষেরও এটাই আবেগের কথা! ময়নামতি নয়; কুমিল্লাই হোক তবে বিভাগের নাম।

 

ফারুক মেহেদী:

লেখক-সাংবাদিক

বিজনেস এডিটর

চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

ইমেইল: [email protected]



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি