রবিবার,২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং


সুদের অভিশাপ থেকে মুক্তির সহজ পথ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৪.০৩.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

ঋণ জীবনে কমবেশি সবারই প্রয়োজন হয়। আল্লাহ রাব্বুল আলামিনকে খুশি করার জন্য, কাউকে ঋণ দিলে; ঋণ গ্রহীতার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করলে হজরত রাসুলে কারিম সা. ঋতদাতার জন্য জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

মহানবী সা. বলেছেন, এক ব্যক্তি মানুষকে ঋণ দিত। তারপর সে ঋণ ওঠাতে একজন আদায়কারী পাঠাতো। আদায়কারীকে বলে পাঠাতো অতি অভাবী কোনো ব্যক্তি পেলে তাকে মাফ করে দিও! হয়তো এর কল্যাণে আল্লাহ আমাদেরও মাফ করে দিবেন। হজরত রাসূল সা. বলেছেন, সেই ঋণদাতা ব্যক্তিটি যখন মৃত্যু হলো আল্লাহ তায়ালা তার সব গুনাহ মাফ করে জান্নাতবাসী করে দিলেন। বুখারি, মুসলিম

মহানবী সা. আরও বলেছেন, কেয়ামতের ভয়াবহ আজাব-গজব থেকে রক্ষা পেলে যাদের ভালো লাগবে; সে যেন দরিদ্র- ঋণগ্রস্ত ব্যক্তিকে ঋত পরিশোধের মেয়াদ বাড়িয়ে দেয় অথবা তার ওপর থেকে ঋণের বোঝা একেবারেই নামিয়ে দেয়, অর্থাৎ মাফ করে দেয়। মুসলিম

হজরত আবু সাঈদ খুদরি রা. সূত্রে রাসূল সা. বর্ণিত। জানাজার নামাজ পড়নোর জন্য মহানবী সা. এর কাছে একটি লাশ নিয়ে আসা হলো। নবীজি জানতে চাইলেন, তোমাদের এই মৃত্যের ওপর কি কোনো ঋণ আছে? লোকেরা বললো, হ্যাঁ ওর জিম্মায় কিছু ঋত আছে।

মহানবী সা. আবারও জিজ্ঞেস করলেন, সে কি এমন কোনো সম্পত্তি রেখে গেছে, যা দিয়ে ঋণ পরিশোধ করা যায়? লোকেরা বললো, না। তখন রাসূল সা. বললেন, আমি নই; তোমরা ওর জানাজ আদায় করো। এই পরিস্থিতি দেখে হজরত আলী রা. তার ঋণের ভার বহন করলেন। তখন নবীজি বললেন, হে আলী, তুমি যেভাবে নিজের এই মুসলিম ভাই এর ঋণের দায়িত্ব গ্রহণ করে তাকে রক্ষা করলে, আল্লাহ তায়ালা তোমাকেও দোজখ থেকে রক্ষা করবেন। যদি কেউ অপর ভাইয়ের ঋত পরিশোধ করে, কেয়ামতের দিন আল্লাহ তায়ালা তাকে জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি দেবেন। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. বলেন, রাসূল সা. বলেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর পথে শহিদ হয়েছে তার সকল গুনাহ মাফ হবে। কিন্তু ঋত মাফ হবে না। মুসলিম

হযরত আবু রাফে রা. সূত্রে বর্ণিত, মহানবী সা. একজন ব্যক্তির কাছ থেকে একটি ছোট্ট উট ধার নেন। এরপর মহানবী সা. এর কাছে জাকাতের কিছু উট এলো। মহানবী সা. আমাকে আদেশ করলেন, ঋণদাতা ব্যক্তির ছোট্ট উটের ঋত যেন পরিশোধ করে দিই। আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসুল সা. একটি উটই তো দেখছি খুব উৎকৃষ্ট এবং সাত বছরের। মহানবী সা. বললেন ওটাই তাকে দিয়ে দাও। কেননা সে ব্যক্তিই ভালো মানুষ, যে সর্বোত্তম পন্থায় ঋণ পরিশোধ করে। মুসলিম শরিফ

হজরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, মহানবী সা. বলেন, আমার উম্মতের মধ্যে প্রকৃত দরিদ্র হলো সেই ব্যক্তি, যে কেয়ামতের দিন প্রচুর নামাজ, রোজা, হজ ও জাকাত নিয়ে আসবে; কিন্তু সে যদি কাউকে গালি দিয়ে আসে, প্রহার করে আসে অথবা কারও সম্পদ আত্মসাৎ করে আসে। এরপর এসব মজলুম বা পাওনাদারদের মধ্যে তার নেক কাজের সওয়াব বণ্টন করা দেওয়া হবে। যখন নেক আমল ফুরিয়ে যাবে বা পাওনাদারদের পাপ কাজ তার ঘাড়ে চাপিয়ে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। তিরমিজি

সুদের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেতে সমাজে করজে হাসানা বা ঋণ সুবিধা চালু হওয়া প্রয়োজন। ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে গ্রামে গ্রামে, পাড়া-মহল্লায় সুদের দোকান না খুলে অভাবীদের জন্য সুদমুক্ত ঋণ ব্যবস্থার ব্যাপক প্রচলন প্রয়োজন। জাগবে কি আমাদের অন্তর? কী দিয়ে নেভাবো জাহান্নামের আগুন? মাবুদ! আমাদের বোধ-বুদ্ধি ও বিবেক জাগিয়ে দাও!



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি