বৃহস্পতিবার,২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং


দান করা একটি মর্যাদাপূর্ণ ইবাদত


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৫.০৫.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

অর্থ সম্পদ ও টাকা-পয়সার মায়া কাটানো মানুষের পক্ষে বেশ কঠিন কাজ। নিজের খাওয়া, পরা কিংবা ভোগ-বিলাসিতায় অর্থ খরচ করতে কারও সমস্যা হয় না। যত সমস্যা সব মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সময়, দান-খয়রাত করার সময়। সদকা মানে দান করা। ইসলামে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং মর্যাদাময় ইবাদত। সম্পদশালীরা গরীব-অসহায়দের সাহায্য-সহযোগিতার মাধ্যমে তাদের দুঃখ-কষ্ট কিছুটা হলেও দূর করার চেষ্টা করে এমন মহৎ ইবাদতে অংশগ্রহণ করে থাকেন। আর যাদের সম্পদ কম তাদের জন্য দান-খয়রাত বাধ্যতামূলক নয়। তবে তারা নিজ নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে এ কাজ করতে পারেন, তাতে নিষেধাজ্ঞা নেই। দান-সদকা মানে যে শুধু টাকা-পয়সা দিতে হবে তা নয়। বরং খাদ্য, বস্ত্র ইত্যাদির মাধ্যমে দান-সদকা করা যায়। এ প্রসঙ্গে হাদিসে বলা হয়েছে, হযরত জাবের (রা) হতে বর্ণিত, হযরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে কোনো মুসলিম (যখন) কোনো গাছ লাগায়, পরে তা থেকে যতটা খাওয়া হয়, তা তার জন্য সদকা হয়, তা থেকে যতটুকু চুরি হয়, তা তার জন্য সদকা হয় এবং যে ব্যক্তি তার ক্ষতি করে, সেটাও তার জন্য সদকা হয়ে যায়। (সহিহ মুসলিম: ১৫৫২)

হযরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কোনো মুসলমান বিবস্ত্র মুসলমানকে বস্ত্র পরিয়ে দিলে কেয়ামতের দিন আল্লাহতায়ালা তাকে বেহেশতের সবুজ পোশাক পরাবেন। কোনো মুসলমান তার ক্ষুধার্ত ভাইকে অন্ন দান করলে এবং তাকে পিপাসায় পানি পান করালে আল্লাহপাক তাকে বেহেশতের মোহর করা শরাব পান করাবেন। (আবু দাউদ ও তিরমিজি)

হাদিসের বিভিন্ন বর্ণনায় বলা হয়েছে, সব ভালো কাজই হচ্ছে- সদকাস্বরূপ। যারা ভালো কাজের জন্য উৎসাহ দেয় তারা ভালো কাজ সম্পাদনকারীদের সমান সওয়াব পায়। আর আল্লাহতায়ালা অসহায়দেরকে সাহায্য করা পছন্দ করেন। যে ব্যক্তি কোনো অভাবগ্রস্তের অভাব দূর করবে, আল্লাহ তার দুনিয়া ও আখেরাতের সব বিষয় সহজ করে দেবেন।

হাদিসে আরও বলা হয়েছে, দানশীলতা ও সহমর্মিতা নেয়ামত বৃদ্ধি করে এবং শহরসমূহ আবাদ করে। ইসলামি স্কলাররা বলেছেন, বিশেষ কল্যাণ দুই শ্রেণীর লোকের জন্য- যারা অধিক দান করে, আর যে গোনাহ করলে দ্রুত তওবা করে। হযরত রাসুলুল্লাহ (সা.) হাদিসে বলেছেন, সাত প্রকার লোককে আল্লাহতায়ালা (কিয়ামতের দিন) তার আরশের ছায়ায় স্থান দেবেন। সেদিন আরশের ছায়া ছাড়া আর অন্য কোনো ছায়া থাকবে না। ওই সাত প্রকার লোকের মাঝে অন্যতম হলো- গোপনে দানকারী।  সাহাবি হযরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো অভাবগ্রস্তের অভাব দূর করবে, আল্লাহ তার দুনিয়া ও আখেরাতের সব বিষয় সহজ করে দেবেন। (সহিহ মুসলিম)

আবুযর (রা.) বললেন, ওরা ধ্বংস হোক, ক্ষতিগ্রস্ত হোক- কারা তারা হে আল্লাহর রাসুল? তিনি বললেন, টাখনুর নীচে ঝুলিয়ে যে কাপড় পরিধান করে, দান করে যে খোঁটা দেয় এবং মিথ্যা শপথ করে যে ব্যবসায়ী পণ্য বিক্রয় করে।

পূর্বাশানিউজ/২৫-মে,২০১৭/ফারজানা



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি