বৃহস্পতিবার,১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং


অধিকাংশ আসনেই টিকিট পাচ্ছেন পুরনোরাই


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৪.০৬.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির টিকিট পাচ্ছেন অধিকাংশ পুরনো প্রার্থীরা। সারাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাঠানো দলের প্রার্থী বাছাই তালিকা থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

দলটির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে এ ব্যাপারে ইতিবাচক মনোভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। ৩শ’টি আসনের মধ্যে ২০০৮ সালের নির্বাচনে দলটির টিকিট পাওয়া প্রার্থীরা রয়েছেন অধিকাংশ। বিএনপির এক কেন্দ্রীয় নেতার সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই নেতা বলেন, প্রায় ৭০টির অধিক আসনে পরিবর্তন আসতে পারে। যেসব আসনে আগের প্রার্থীরা দলের রাজনীতিতে সক্রিয় নন, বয়সের ভার সামলাতে পারছেন না এমন ব্যক্তিরা বাদ যেতে পারেন, আবার অনেকগুলো আসনে বেশ কয়েক শীর্ষ নেতার মৃত্যুর কারণে ওইসব আসনে নতুনদের সুযোগ দেয়া হবে। এছাড়া একাধিক জেলাতে গ্রুপিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকার কারণে অনেক নেতা দলের টিকিট নাও পেতে পারেন। এমনটিও জানান দলটির এক প্রভাবশালী নেতা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে দলকে শক্তিশালী রাখতে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার এই শুভ উদ্যোগ কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে পজেটিভ বার্তা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। যা দলের নেতারা দায়িত্বশীল হয়ে নিজ নিজ এলাকায় সংগঠনের কার্যক্রমকে গতিশীল করছেন। আর এটিকে পুঁজ করে আগামী নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতার স্বাদ গ্রহণ করবে বলে জানান এই নেতা।

এ ব্যাপারে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে.জে. মাহবুবুর রহমান মানবকণ্ঠকে বলেন, যেসব প্রার্থীর জিতে আসার সম্ভাবনা আছে, জনসমর্থন আছে, গ্রহণযোগ্যতা আছে, আমি মনে করি তাদের দল বিবেচনা করবে। বেশির ভাগই পুরনো প্রার্থীরা বিএনপির টিকিট পাচ্ছেন- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি ঠিক জানি না।

এদিকে দলটির এক সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, সারাদেশ থেকে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এ মুহূর্তে চূড়ান্ত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে না। তিনি বলেন, প্রার্থীদের নাম যদি আগাম ঘোষণা করা হয়, তাহলে আসন ভিত্তিক মহা গ্রুপিংয়ে পড়বে দলের নেতাকর্মীরা। সেজন্য বিএনপির হাই কমান্ড নির্বাচনে চূড়ান্তভাবে অংশ নেবার আগ পর্যন্ত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করবেন না।

দলটির সহ-সম্পাদক পদের এক নেতা বলেন, বিএনপি এখন আগাম নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিয়ে তৈরি থাকবে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করার পর নির্বাচনে অংশ নেবে। অপরদিকে সারাদেশের আসনওয়ারী প্রার্থীদের তালিকা বাছাইকালে অনেক স্থানীয় জেলা, উপজেলা পর্যায়ের নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারস্থ হচ্ছেন। অনেকে ঢাকা এসে শীর্ষ নেতাদের বাসায়, অথবা কোনো চাইনিজ রেস্টুরেন্টে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হচ্ছেন। এমন তথ্যও জানা গেছে মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কাছ থেকে।

অন্যদিকে নির্বাচনীমুখী নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক আমেজ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। রাজধানীর নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বেশ কয়েক নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে এসব কথা জানা গেছে। তারা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নেতাকর্মীরা হামলা-মামলা শিকারের পর একটু ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বরিশালের আলিম বলেন, আমি মনে করি বিএনপি নির্র্বাচনমুখী হওয়ার ফলে নেতাকর্মীদের মধ্যে সাংগঠনিক তৎপরতা বেড়েছে। দলও স্থানীয়ভাবে শক্তিশালী হচ্ছে। নেতাদের সঙ্গে কর্মীদের সম্পর্ক দিন দিন গভীর হচ্ছে। এদিকে কেন্দ্রের দিকে তাকিয়ে আছেন দলের নেতাকর্মীরা। তারা স্থানীয়ভাবে যাকে দল টিকিট দেবে তার সঙ্গে আগ থেকে সম্পর্ক করার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন। সারাদেশে আবার অনেক নেতাকর্মীরা নিজ নিজ আসনে কে দলের টিকিট পাচ্ছেন তাও তারা জেনেছেন। সেই জন্য অনেক নেতাকর্মী ওই প্রার্থীর সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালা করছেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি