রবিবার,৮ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং


‘এদেশ কবে হবে আমাদের?’


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৪.০৬.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

পিঠে ব্যাগ নিয়ে পলায়নরত শিশুটির ছবি ফেসবুকে সকালে দেখার পর যেন কিছুতেই ভুলতে পারছি না। শিশুটির কী নাম, ধাম আমি কিছুই জানি না। কিন্তু কোথায় বুঝি কী যেন আছে, মন বলছে সে আর আমি কোনও ভিন্ন সত্তা নয়। তার ছবি যেন আমার স্মৃতির ঝাঁপি খুলে আমার ছেলেবেলার স্মৃতিকে সামনে নিয়ে আসতে চায়। তার মধ্যে আমি যেন নিজেকে দেখছি।

আমার ভাগ্যও নিশ্চয় সেই শিশুটির মতোই ছিল। আমার জীবনে ছোটবেলার স্মৃতি, বেড়ে ওঠার স্মৃতি, পৃথিবীর সাথে প্রথম পরিচয়ের স্মৃতি বলতে যা মনে পড়ে তা হলো ঠিক – এই ছোট্ট শিশুটির মতো মৃত্যু আতঙ্ক নিয়ে পালানোর স্মৃতি। আমরা একই রকম দুর্ভাগ্য পীড়িত, একই পথের পথিক। পৃথিবীতে আমাদের জীবনের শুরু বুঝিবা এইভাবে হয়, আমরা বেড়ে ওঠি ওর মধ্যে, বেঁচেও থাকি এই দুঃসহ বাস্তবতায় আর অতীত দুঃস্বপ্নকে স্বপ্ন দেখে- সেগুলো আমাদের জীবনের সত্তার অংশ হয়ে গেছে।’ এটি আমার ফেসবুক বন্ধু হরিপূর্ণ ত্রিপুরার জীবন অভিজ্ঞতার বয়ান।

ফেসবুক ভরে গেছে হরির মতো পার্বত্য অঞ্চলের বন্ধুদের এমনসব কষ্ট, বেদনা আর এক এককটি মৃত্যু উপত্যকার স্মৃতি হাতড়ানোর অভিজ্ঞতায়। আজকের লেখার এই শিরোনামটিও নেওয়া হয়েছে আমার আরেক পাহাড়ি বন্ধুর ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে। এই স্ট্যাটাসের সঙ্গে তিনি বর্ণনা করেছেন একে একে পাহাড়ে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন হত্যাকাণ্ড আর প্রশ্ন তুলছেন কবে এদেশে পাহাড়ে আগুনে পোড়া বন্ধ হবে? দেশ তাদের, মাটি তাদের, শুধু জীবন তাদের নয়। কবে এই দেশটি তার হবে? হয়তো কোনোদিনই হবে না, কিংবা কোনও একদিন হবে?

গত দুইদিন ধরে এই বছরের বাজেট নিয়ে যখন টেবিলে টেবিলে আলোচনা হচ্ছে, ১ লাখ টাকা ব্যাংক ডিপোজিটে কর কাটা নিয়ে যখন বেশিভাগ মানুষের কপাল কুঁচকে যাচ্ছে, কেউ কেউ ব্যস্ত সঞ্চয়পত্রের খোঁজ নিতে, কেউবা ব্যস্ত গাড়ির দাম নিয়ে। গণমাধ্যম ব্যস্ত পূর্বাচলে অস্ত্রের চালান আর বাজেট বিশ্লেষণ নিয়ে। কিন্তু সেই সময়টাতেই জ্বলছে পাহাড়, সেটি নিয়ে ব্যস্ততা খুব কম মানুষেরই আছে। পাহাড়ের আগুন নিয়ে অন্যমনস্কতার কারণ এবং রাজনীতি খুব বেশি কারোরই অজানা থাকার কথা নেই।

ছোটবেলা থেকেই লংগদু নামটির সঙ্গে পরিচয়। আমার ছোটবেলার প্রাইমারি স্কুল মাইজদী পিটিআই স্কুলে টিচার্স ট্রেনিং কোর্সে এসেছিলেন এই লংগদু থেকে অতিথা চাকমা। আজও আমি আমার সেই স্কুল শিক্ষককে খুঁজে বেড়াই। স্কুল পার না হতেই জেনেছিলাম আমার সেই প্রিয় শিক্ষকের লংগদুতে ‘গণহত্যা’ হচ্ছে। তখনও আমি ঠিকমত জানি না পার্বত্য চট্টগ্রামে কী হয়? কেন কয়েকদিন পর পর আমার সিনিয়র ব্যাচের জমজ বোন কৃষনা-কাবেরী দি’রা মন মরা হয়ে থাকতো? কেন ওদের বাবা-মা আমাদের বাবা-মাকে বলতেন ওরা নিজেদের বাড়ি যেতে পারে না? আমি বড় হলাম, বোঝার জায়গা বড় হলো, আর সেই রাজনৈতিকভাবে বড় হওয়া আমি থেকে এখন বুঝতে পারি কেন একজন নুরুল ইসলামের মৃত্যুতে বাত্যা পাড়া থেকে লংগদু সদর পর্যন্ত তিন কিলোমিটারের মধ্যকার তিনটি টিলার পাহাড়িরা ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়? কেন একজন হরি ত্রিপুরা পাহাড়ের আগুন লাগার খবরে দেখতে পায় তার ভয় কাঁটা দেয়া শৈশবকে?

পাহাড়ি গ্রামে আগুন লাগছে, পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের বাড়িঘর, দোকান পাট। বাঙালিদের ধারণা গত বৃহস্পতিবার যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলামকে পাহাড়িরা হত্যা করেছে, যদিও এটি প্রমাণিত নয়। কিন্তু এই প্রমাণ-অপ্রমাণের সময় নেই, এরমধ্যেই পুড়ে যাচ্ছে জীবন। তিনটিলা ও মানিকজোরছড়া গ্রামে দুই শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে জনসংহতি সমিতির কার্যালয়ও। বর্তমানে সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

পাহাড়ে ঘর বাড়িতে আগুন লাগানোর ঘটনা নতুন নয়, বরং গণহত্যার নতুন রূপ হিসেবে এটি এখন পাহাড়ের নিপীড়নের সংস্কৃতি। তাই ঘরবাড়ি পোড়ানোর আতঙ্ক সব পাহাড়ির নিত্য দিনেরই ভয়। গত তিন বছর আগে আমার গবেষণার কাজে যখন খাগড়াছড়ির দীঘীনালায় ছিলাম, তখন সেই এলাকায় পাহাড়িরা বলেছিলো, তারা কোনও স্থায়ী ঘরবাড়ি করতে চান না কারণ তারা সংশয়ে থাকেন হয়তো আগামীকালই তার বাড়িটা পুড়ে যাবে, তাকে এই বাড়িঘর ছেড়ে শুধু প্রাণটা নিয়েই পালিয়ে যেতে হবে।

তবে এই ঘটনাটিও আগের মতই। নুরুল ইসলামের লাশ নিয়ে মিছিলের অনুমতি দেওয়া হয় এবং সেই মিছিলের পর পাহাড়দিরে ঘর বাড়িতে আগুন লাগানো হয় এবং ভাঙচুর চলে। যদিও এই লাশ পাওয়া খবর শুনেই পাহাড়িদের মধ্যে ছুটো-ছুটি শুরু হয়ে গিয়েছিল। প্রাণ নিয়ে, পালিয়ে বেড়ানোর ছবিগুলো ঘুরছে ফেসবুকের দেয়ালে ভাইরাল হয়ে। নিরপাদ স্থানে সরে যেতে চাচ্ছেন সবাই।

ঘরবাড়িতে আগুন লেগেছে। বিশ্লেষণের জায়গা হলো এখন পাহাড়ে কোনও কিছু ঘটলে বলা হচ্ছে ‘ইনসিডেন্ট’ বা ঘটনা। কিন্তু যখন একই ঘটনা বারবার বা মতাদর্শিক জায়গা থেকেই ঘটতে থাকে তাহলে সেটি আর কিছুতেই ‘ঘটনা’ হয়ে থাকে না বা থাকতে পারে না। তখন সেটি হয়ে যায় হত্যাযজ্ঞ। আর পাহাড়িরা এই ধরনের হত্যাযজ্ঞের ভয় প্রতিদিনই পায়।

শান্তি চুক্তির পর পাহাড়ের প্রথম পরিবর্তন – পাহাড়ে আগুনজনিত নিপীড়ন। এই আগুনের রাজনীতি নতুন তবে বেশ কার্যকরী। কারণ কে আগুন লাগিয়েছে কেউ তা দেখে না, সবার প্রশ্ন হয়, কে লাগালে আগুন, কে লাগালো? নিপীড়ককে বের করা কঠিন হয়ে পড়ে রাষ্ট্রের কাছে, সেই নিপীড়ক আপা অদৃশ্য থাকে… কিন্তু এই আগুনে ছারখার হয়ে যায় বহু জীবন। আর এই অদৃশ্য নিপীড়ক আমাদের নিপীড়নের মনস্কতা বাড়ায়, আমরা তাই বাজেটে মন দিই, টিভিতে অস্ত্রের বাহার দেখি, আর ফেসবুকের কল্যাণে পাহাড়ের আগুনে পাহাড়ি বন্ধুদের আতঙ্কিত শৈশব দেখি।

04 Jun, 2017/ Choity.



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি