বুধবার,২০শে জুন, ২০১৮ ইং


‘হিজড়া’ নিয়ে মাথাব্যথা নির্বাচন কমিশনের!


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৩.০২.২০১৮

পূর্বাশা ডেস্ক:

‘হিজড়া’ হিসেবে লৈঙ্গিক স্বীকৃতি মেলার পর তাদের স্বতন্ত্র পরিচয়ে ভোটার করা নিয়ে ভাবনায় পড়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বিষয়টি এখন রীতিমতো মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ইসির। তাদের বিষয়ে ইসির বিদ্যমান নিবন্ধন বিধি আইনে নির্দিষ্ট করে কিছু বলা নেই। যে কারণে সংশ্লিষ্ট বিধি ও ফরম সংশোধন এবং নিবন্ধন ফরম-২-এ নতুন সাব-ফিল্ড সংযোজন করা নিয়ে সমস্যা হচ্ছে। এ ছাড়া হিজড়াদের নিবন্ধন করতে গেলে অটোমেটিক ফিঙ্গার আইডেনটিফিকেশন সিস্টেমে (এএফআইএস) ম্যাচিংয়ে সমস্যার আশঙ্কাও রয়েছে।
কমিশনের নথি পর্যালোচনায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের হিজড়া জনগোষ্ঠীকে ‘হিজড়া’ লিঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে সরকার। এর আগে ছবিসহ ভোটার তালিকা প্রণয়ন করার পর ‘হিজড়া’ হিসেবে নাম তালিকাভুক্তির আবেদন জানানো হয়। গত মাসে কমিশন সভা করে হিজড়াদের ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করা নিয়ে উদ্যোগ নেয়। কমিশন সভায় বিষয়টি উত্থাপন করা হয়। পরে বিদ্যমান বিধিমালার সংশ্লিষ্ট বিধি ও ফরমে সংশোধন এবং নিবন্ধন ফরম-২-এ নতুন সাব-ফিল্ড সংযোজনের সিদ্ধান্ত হয়। এরপরই ভোটার নিবন্ধন আইন ও বিধিতে পরিবর্তন এনে তাদের ভোটার তালিকাভুক্ত করার উদ্যোগ নেয় কমিশন। পাশাপাশি আইন ও বিধি সংশোধনের আগে আর কোনো জটিলতা রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে কমিশনের আইন শাখার নেতৃত্বে একটি পর্যালোচনা কমিটি গঠনের প্রস্তাব রয়েছে। ফলে সমাজের পিছিয়ে পড়া এই জনগোষ্ঠীর লৈঙ্গিক স্বীকৃতির পরও তাদের নিয়ে যে ঝামেলা রয়েছে তা ভোটার তালিকায় নাম ওঠানোর সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে কমিশনকে।
ইসি সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, অটোমেটিক ফিঙ্গার আইডেনটিফিকেশন সিস্টেমে (এএফআইএস) তৃতীয় লিঙ্গের বিষয়টি আন্তর্ভুক্ত নেই। এখন তাদের নিবন্ধন করতে গেলে ম্যাচিংয়ে কোনো সমস্যা দেখা দেবে কিনা, তা এখনো বোঝা যাচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে আরো পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে। কারিগরিভাবে এটি সম্ভব কি-না তাও খতিয়ে দেখতে হবে। এ ছাড়া ৩য় সাব-ফিল্ড বিদ্যমান ভোটার সার্ভার (তথ্যভাণ্ডার) গ্রহণ করবে কিনা সেটিও বিবেচনা করতে হবে।
জানা গেছে, বেদে ও হরিজন নামে দেশে আরো দুটি পিছিয়ে পড়া সম্প্রদায় রয়েছে। এদের সংখ্যা নিয়ে সঠিক তথ্য নেই পরিসংখ্যান ব্যুরোতে। তবে সমাজসেবা অধিদফতরের জেলা পর্যায়ের তথ্য অনুযায়ী, ৭৫ হাজার ৭০২ জন বেদে, ১০ হাজার ১৩৯ জন হিজড়া এবং দুই লাখ ৬৪ হাজার ৬১৬ জন হরিজন সম্প্রদায়ের লোক রয়েছে। প্রতিবন্ধিতা শনাক্তকরণ জরিপ অনুযায়ী, দেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির সংখ্যা ১৫ লাখ ৯ হাজার ৭১৬। এদের শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, কর্মসংস্থান ও সার্বিক উন্নয়নের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। স্কুলগামী বেদে, হিজড়া ও হরিজন শিশুদের জন্য চার স্তরে উপবৃত্তি দিচ্ছে সরকার। এর মধ্যে প্রাথমিক স্তরে ৩০০ টাকা, মাধ্যমিক স্তরে ৪৫০ টাকা, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ৬০০ টাকা এবং উচ্চতর স্তরে এক হাজার টাকা করে উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি ৫০ বছর বা তার বেশি বয়সের অক্ষম ও অসচ্ছল হিজড়াদের বয়স্কভাতা বা বিশেষ ভাতা মাসিক ৬০০ টাকা এবং বেদে ও হরিজনদের বয়স্কভাতা বা বিশেষভাতা মাসিক ৫০০ টাকা দেয়া হচ্ছে।
সুবিধাবঞ্চিত হিজড়া সম্প্রদায়কে ভোটার তালিকায় নাম আলাদাভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। কিন্তু সরকার থেকে স্বীকৃতি মেলায় এখন কমিশনকে আলাদাভাবে তাদের ভোটার করার বিষয়ে বাধ্যবাধকতার মধ্যে চলে আসে। এখন আইন ও বিধি সংশোধনের পর আগামীতে শুরু হওয়া হালনাগাদ তালিকায় তাদের স্বতন্ত্র লিঙ্গ হিসেবে নাম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে ইসিকে। এর জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সাংবিধানিক এই প্রতিষ্ঠানটি।
নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম বলেন, ভোটার তালিকার আইন ও বিধিমালা পরিবর্তন করতে হলে এ বিষয়টি ছাড়াও আর কোনো কিছু পরিবর্তনের প্রয়োজন আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা উচিত। এর জন্য আইন শাখার যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে একটি পর্যালোচনা কমিটি গঠন করাই শ্রেয়।

পূর্বাশানিউজ/০৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি