বুধবার,২০শে জুন, ২০১৮ ইং


‘বাজার ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতি হলে ব্যবসার পরিবেশ নষ্ট হয়’


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০৩.২০১৮

ডেস্ক রিপোর্ট :

ব্যবসার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে বাজার ব্যবস্থাপনা। আর এই বাজার ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতি হলে ব্যবসার পরিবেশ নষ্ট হয়। ব্যবসায় দেশীয় বিনিয়োগ না থাকলে বিদেশি বিনিয়োগও আসবে না বলে মন্তব্য করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তিনি বলেন, বাজার ব্যবস্থাপনায় অনৈতিক হস্তক্ষেপ দেশীয় বিনিয়োগের পথকে বাধাগ্রস্ত করে।

গতকাল সকালে কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে বাংলাদেশ ইনভেস্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (বিডা) উদ্যোগে বিভিন্ন চেম্বারের নেতাদের সঙ্গে প্রভাইডিং করাপশন ফ্রি পাবলিক সার্ভিস ফর ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড বিজনেস ফ্রেন্ডলি এনভায়রনমেন্ট ইন বাংলাদেশ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের কোন কোন কর্মকর্তা ব্যবসায়ীদের হয়রানি করেন এমন বক্তব্য কখনো কখনো শোনা যায়। আমি এ বিষয়ে দ্ব্যর্থহীনভাবে বলতে চাই এমন কোনো ঘটনা আপনাদের নজরে এলে তা কমিশনকে জানান।

দুদকের চেয়ারম্যান আরও বলেন, আমাদের দরজা ব্যবসায়ীদের জন্য সর্বদা উন্মুক্ত। তবে ব্যবসার একটি নৈতিক মানদণ্ড থাকা উচিত। ভ্যাট ফাঁকি, ট্যাক্স ফাঁকি, ওভার ইনভয়েসিং অথবা আন্ডার-ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে অনৈতিক উপায়ে অর্থ উপার্জন দেশের সংবিধানও সমর্থন করে না।

তিনি জানান, সংবিধানের ২০(২) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্র এমন অবস্থা সৃষ্টির চেষ্টা করিবে, যেখানে সাধারণ নীতি হিসাবে কোনো ব্যক্তি অনুপার্জিত আয় ভোগ করতে সমর্থ হইবেন না। যখন অনুপার্জিত আয় কেউ ভোগ করেন এবং দুর্নীতি দমন কমিশনে অভিযোগ আসে তখন কমিশনের আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার বিষয়টি আইনি প্রক্রিয়ার অংশ হয়ে যায়।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ব্যাংক ঋণ বিতরণ কিংবা আদায় প্রক্রিয়ায় দুদক হস্তক্ষেপ করে না আর করবেও না। তবে ব্যাংক ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে কেউ যদি জাল কাগজপত্র বা দলিলাদি ব্যবহার করেন তাহলে বিষয়টি দুদকের এখতিয়ারে এসে যায়। সবাইকে মনে রাখতে হবে সরকারি-বেসরকারি সকল ব্যাংকের অর্থই পাবলিক মানি। এটার যে কোনো প্রকার অপচয় বা ক্ষতিসাধনই দুর্নীতি।

দুদক চেয়ারম্যান আরও বলেন, আমরা সরকারি কার্যক্রমে পদ্ধতিগত উন্নয়নের কথা বলছি। পদ্ধতিগত উন্নয়ন ছাড়া সরকারি পরিষেবার মান উন্নয়ন সম্ভব নয়। দ্রুত সেবা নেয়ার নামে ঘুষ বা স্পিড মানি সহ্য করা হবে না। সরকারি সকল সেবা নির্ধারিত টাইম ফ্রেমে দিতে হবে। নির্ধারিত সময়ে সেবা দিতে না পারলে দায়ী কর্মকর্তাকেই এর ক্ষতিপূরণ দিতে হবে এমন ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তারা যদি সচিবালয় নির্দেশিকা মানেন তাহলেই অনেক ঘুষ বা স্পিড মানির প্রবণতা কমে আসবে। গত বছরই কমিশন ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে প্রায় ২৫ জন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমাদের অনুরোধ ব্যবসায়ীরা কোনো কাজে ঘুষ দিবেন না ঘুষ দেয়ার আগে বিষয়টি কমিশনকে জানালে ঘুষ গ্রহণকারীকে আইন আমলে আনা হবে এবং ব্যবসায়ীদের বৈধ কাজ সঠিক সময়েই সম্পন্ন করার ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

ব্যবসায়িক কার্যক্রমে কোনো প্রকার তদবির ও প্রভাবশালীদের হস্তক্ষেপ কাঙ্ক্ষিত নয় বলেও মন্তব্য করেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনে দুর্নীতি প্রতিরোধে যেসব মতবিনিময় বা আলোচনা হয় তা এখন থেকে গণমাধ্যমের জন্য উন্মুক্ত থাকে এবং এটি আমরা মনে করি স্বচ্ছতার একটি মানদণ্ড।

মতবিনিময় সভায় বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী আমিনুল ইসলাম বলেন, গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় সকল প্রকার বিধি-বিধান, আইন-কানুন হবে বৈষম্যহীন ও সম-সুযোগের ক্ষেত্র। ব্যবসা ক্ষেত্রে দুর্নীতি থাকলে পণ্য এবং সেবার মূল্য বেড়ে যায় এবং বিশ্ববাজারে প্রতিযোগিতা অসমতার সৃষ্টি হয়।

পূর্বাশানিউজ/ ০১ মার্চ ২০১৮/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি