সোমবার,১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


সাংবাদিকের ক্যামেরা ভেঙে ফেললেন শামির স্ত্রী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৩.০৩.২০১৮

ডেস্ক রিপোর্ট :

মেজাজ হারালেন ভারতীয় ক্রিকেটার মোহাম্মাদ শামির স্ত্রী হাসিন জাহান। মঙ্গলবার ভারতের যাদবপুরের বাড়ি থেকে বেড়োনোর পর তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ভারতের সংবাদ মাধ্যম। মূলত হাসিন সেই মূহূর্তে কোথায় যাচ্ছেন সেটাই জানতে চেয়ে তাঁর গাডীির পিছু করে কিছু মিডিয়া। কিছুদূর যেতেই অবশ্য গাড়ি থেকে নেমে একটি নির্দিষ্ট সাংবাদমাধ্যমের গাড়ি লক্ষ্য করে এগিয়ে আসেন জাহান।

এরপর ঐ সংবাদমাধ্যমের কর্তব্যরত চিত্রসাংবাদিকের ক্যামেরা ভেঙে দেন বলে অভিযোগ। রাস্তাতেই সংবাদমাধ্যমের কর্মীর উপর চড়াও হয়ে হাতাহাতিতে জড়ান হাসিন। গাড়ি থেকে ক্যামেরা ও ক্যামেরার ব্যাগও ছুঁড়ে ফেলে দেন। গালিগালাজও করেছেন বলে অভিযোগ। আহত হন চিত্রসাংবাদিক।

এই ঘটনার পর অবশ্য গাড়ি ছুটিয়ে বেড়িয়ে যান শামির স্ত্রী। তার ব্যক্তিগত জীবনে উঁকিঝুঁকি দেওয়া বন্ধ করুন, এই বলেই নাকি গাড়িতে চড়ে বেড়িয়ে চান তিনি। শামির সঙ্গে সম্পর্কের টানাপোড়েনে এই মূহূর্তে সমস্যায় জর্জরিত হাসিন জাহান। তবে কেন হঠাৎ মিডিয়ার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করলেন, সেই নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি তিনি। জানা গিয়েছে তিনি শাামির পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন।

গত মঙ্গলবারই শামির বিরুদ্ধে বিবাহ বর্হিভূত একাধিক নারীর সঙ্গে সম্পর্কের অভিযোগ এনে সোশ্যাল মিডিয়ায় শামির চ্যাট প্রকাশ করেন হাসিন। এরপর সাংবাদমাধ্যমের সাহায্য চেয়ে একে একে শামির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলে ধরেন তিনি। সম্প্রতি সোমবার, দক্ষিণ আফ্রিকা সফরেও শামি এক গৃহবধূর সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন বলে অভিযোগ করেন। দক্ষিণ আফ্রিকায় একাধিক জায়গায় ঐ নারীর সঙ্গে শামি একাধিকবার দেখা করেন বলেও দাবী করেছেন জাহান।

১৭ ফেব্রুয়ারি দেশে ফেরার বিমান ছিল শামির। প্রোটিয়া সফর শেষে ফেরার আগে, ১৬ ও ১৭ ফেব্রুয়ারি ঐ মহিলার সঙ্গেই ছিলেন বলে দাবী শামির স্ত্রীয়ের। শামি নিজের সেলফি তুলে ঐ মহিলাকে পাঠিয়েছেন বলেও দাবী হাসিনের। সঙ্গে ঐ মহিলার সঙ্গেও ছবি তুলেছেন বলে জানিয়েছেন জাহান। যে মোবাইলের চ্যাট নিয়ে এত বিতর্ক, সেই মোবাইলটি সোমবারই বাজেযাপ্ত করে পুলিশ।

টিম ইন্ডিয়ার তারকা পেসার মহম্মদ শামির বিরুদ্ধে তাঁর স্ত্রী হাসিন জাহানের অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে সোমবার বড়সড় পদক্ষেপ নেয় কলকাতা পুলিশ। লিখিত অভিযোগ পাওয়া মাত্রই একাধিক জামিন অযোগ্য ধারায়া মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছিল পুলিশ৷ সেই মতো লালবাজারের গোয়েন্দা বিভাগ চিঠি লিখে বিসিসিআই-এর কাছ থেকে শামি সংক্রান্ত তথ্য জানতে চেয়েছে।

অন্যদিকে সোমবারই হাসিনের আইনিজীবীর সঙ্গে শামির পরিবারের সদস্যরা দেখা করে বলে জানা গিয়েছে৷ ফলে দুই পরিবারের মধ্যস্থতার ইঙ্গিতও পাওয়া গিয়েছে৷ এরপরই হঠাৎ মিডিয়াকে এড়িয়ে চলছেন হাসিন।

পূর্বাশানিউজ/ ১৩ মার্চ ২০১৮/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি