শনিবার,১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


আজ পবিত্র শবে বরাত, ক্ষমা ও রহমতের রজনী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০৫.২০১৮

পূর্বাশা ডেস্ক:

দয়াময় আল্লাহ তায়ালা তাঁর গুনাহগার বান্দাদের মাফ করার জন্য বিভিন্ন স্থান ও সময়-সুযোগ বাতলে দিয়েছেন যাতে বান্দা নিজ কৃতকর্মে অনুতপ্ত হয়ে ক্ষমা চায় সেসব সুযোগের একটি হলো শাবানের ১৪ তারিখের দিবাগত রাত, যাকে আমরা শবে বরাত বলি। কেননা বারায়াত শব্দটি আরবি। এর অর্থ মুক্তি, সে হিসেবে শবে বরাত মানে (গোনাহ) মুক্তির রাত। এ রাতে মহান প্রভু আপন ক্ষমা গুণটির বিশেষ প্রকাশ ঘটিয়ে বান্দাদের গোনাহ মাফ করে দেন। আর কোরআন করিমের ভাষায় একে বলা হয়েছে, ‘লাইলাতুল মুবারাকা’ বা বরকতময় একটি রাত। কারণ এ রাতে আল্লাহ তায়ালা বান্দাদের ওপর বিশেষ রহমত নাজিল করেন। এ রাতে ভারসম্যপূর্ণ আমল এবং বিশেষ ফজিলতের কথা অসংখ্য হাদিস ও আছার (সহাবীগণের বাণী) দ্বারা প্রমাণিত।

শবে বরাত ক্ষমা ও রহমতের রজনী রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন: আল্লাহ তায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে সৃষ্টিকুলের প্রতি (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও হিংসুক ছাড়া সবাইকে ক্ষমা করে দেন।’ (সহিহ ইবনে হিব্বান: ৫৬৬৫)
আল্লাহর রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘১৫ শাবানের রাত যখন হয় তোমরা রাতটি ইবাদত-বন্দেগিতে পালন করো এবং দিনের বেলায় রোজা রাখো। কোননা এ রাতে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তায়ালা প্রথম আসমানে এসে বলেন, আছে কি কোন ক্ষমাপ্রার্থী? আমি তাকে ক্ষমা করে দেব। আছে কি কোন রিজক অন্বেষণকারী? আমি তাকে রিজিক প্রদান করবো। আছে কি কোন রোগাক্রান্ত? আমি তাকে আরোগ্য দান করবো। এভাবে ভোর পর্যন্ত আল্লাহ তায়ালা মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনের কথা উল্লেখ করে করে তাদের ডাকতে থাকেন।’ (সুনানে ইবনে মাজা: ১৩৮৮)

ইমাম আবু হানিফা (রহ.) বলেছেন, নফল ইবাদত এমনভাবে করবে যে, সেখানে তুমি আছো আর আছেন তোমার মাবুদ আল্লাহ। তৃতীয় কেউ নেই। হাদিস শরিফে ১৫ শাবান রাতে দোয়া কবুল হওয়ার সংবাদ এসেছে। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) এর সূত্রে বর্ণিত, তিনি বলেন, পাঁচটি রাত এমন আছে, যেগুলোতে বান্দার দোয়া আল্লাহ তায়ালা ফিরিয়ে দেন না। অর্থাৎ দোয়া কবুল করেন। রাতগুলো হলো, জুমার রাত, রজবের প্রথম রাত, শাবানের ১৫ তারিখের রাত, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার রাত।’ (মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক: ৭৯২৯)

কবর জিয়ারত ও কবরবাসীর জন্য দোয়া করা। উম্মুল মুমিনিন আয়েশা রা. সূত্রে বর্ণিত, ‘এক রাতে আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বিছানায় অনুপস্থিত পেলাম আমি বের হয়ে দেখতে পেলাম তিনি জান্নাতুল বাকিতে আছেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, তোমার কী ধারণা হয়, আল্লাহ ও তাঁর রাসুল তোমার প্রতি অবিচার করবেন। আমি বললাম হে আল্লাহর রাসুল! আমার ধারণা হলো আপনি অন্য স্ত্রীর ঘরে তাশরিফ নিয়েছেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করলেন। মধ্য শাবানের রাতে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন দুনিয়ার আসমানে অবতরণ করেন এবং কালব গোত্রের ভেড়ার পশমের চেয়েও অধিক সংখ্যক লোককে ক্ষমা করে দেন।’ (সুনানে তিরমিজি: ৭৩৬)

এখানে লক্ষ্যণীয় বিষয় হলো, রাসুলুল্লাহ (সা.) জান্নাতুল বাকি কবরস্থানে একাকী গিয়েছেন। দলবল ডেকে ডেকে যাননি। শবে বরাতসহ অন্যান্য বরকতময় রজনীসমূহে পূর্ণ রাত জেগে থাকবে। যদি কষ্টকর হয় তাহলে যতটুক সম্ভব জেগে থেকে ইবাদত করবে। ঈশা ও ফজরের নামাজ জামাতের সাথে পড়বে, তাহলে পূর্ণ রাত ইবাদতের সাওয়াব লাভ করবে। (ফাতওয়ায়ে শামি)। এ কথা সত্য যে, বরতময় ও ফজিলতপূর্ণ কোন মাস বা কোন দিনে কোরআন হাদিস থেকে বর্ণীত আমলগুলো করলে যেমন বেশি বেশি সওয়ার পাওয়া যায় তেমনি যা কোরআন-হাদিস ও সাহাবাগণের আছার (বাণী) থেকে বর্ণীত নয় তা পালন করা তেমনি বড় গোনাহ। আল্লাহ আমাদের বুঝার আমল করার তাওফিক দিন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি