শনিবার,১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


ইফতারের গুরুত্ব ও ফজিলত


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৩.০৫.২০১৮

ডেস্ক রিপোর্ট :

আজ বুধবার, পবিত্র মাহে রমজান ও রহমতের দশকের ষষ্ঠ দিন। সারা দিন রোজা রাখার পর ইফতার করা আল্লাহর পক্ষ থেকে বান্দার জন্য এক বড় নিয়ামত। ইফতারের গুরুত্ব অপরিসীম। আল্লাহর হুকুম পালন ও তার সন্তুষ্টি লাভের আশায় বান্দা সারাদিন রোজা রেখে সূর্যাস্তের পূর্ব মুহূর্তে ইফতারসামগ্রী সামনে নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের (সূর্যাস্তের) প্রতীক্ষায় অধীর আগ্রহে বসে থাকে। সবকিছু সামনে থাকা সত্ত্বেও বান্দা কোনোকিছু মুখে দেয় না একমাত্র আল্লাহর ভয়ে। এ কঠিন প্রতীক্ষা আল্লাহপ্রেমিক রোজাদারের খোদাভীতির এক অপূর্ব দৃশ্য!

এহেন মুহূর্তে আল্লাহ তার ফেরেশতাদের ডেকে বলেন, দেখো, আমার বান্দার খোদাভীতির নমুনা! এর মাঝেই রয়েছে খোদাভীতি, ধৈর্য, সংযম ও প্রবৃত্তি দমনের অপূর্ব নিদর্শন। ইফতার রোজাদারের জন্য পরম আনন্দময় মুহূর্ত। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘রোজাদারের আনন্দের সময় দুটি, একটি তার ইফতারের সময় আর অপরটি (পরকালে) তার প্রতিপালকের সঙ্গে সাক্ষাৎ লাভের সময়।’

ইফতারের সময় : সূর্য অস্ত যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ইফতার করা সুন্নত এবং সূর্যাস্তের আগে ইফতারি সামনে নিয়ে বসে থাকা মুস্তাহাব। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, সব নবীকে (সময় হয়ে গেলে দেরি না করে) তাড়াতাড়ি ইফতার করতে আদেশ করা হয়েছে। হযরত সাহল ইবনে সাদ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘মানুষ কল্যাণ পেতে থাকবে ততকাল, যতকাল তারা শিগগির ইফতার করবে।’

কী দ্বারা ইফতার করবে : খেজুর দিয়ে ইফতার করা একটি বরকতময় সুন্নত। সর্বোত্তম হলো তাজা খেজুর দিয়ে ইফতার করা। তাজা খেজুর পাওয়া না গেলে শুকনো খেজুর দিয়েও ইফতার করা যাবে। হযরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে এসেছে, ‘রাসুল (সা.) মাগরিবের নামাজের আগেই কয়েকটি তাজা খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন। তাজা খেজুর না পেলে কয়েকটি শুকনো খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন। শুকনো খেজুরও না পেলে কয়েক ঢোক পানি দিয়ে ইফতার করতেন।’

ইফতার করানোর সওয়াব : অন্যকে ইফতার করানোও একটি গুরুত্বপূর্ণ আমল। এতে অনেক সওয়াব নিহিত রয়েছে। তাই আমাদের উচিত সাধ্যমতো রোজাদারকে ইফতার করানো। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে অথবা কোনো যোদ্ধাকে জিহাদের সামগ্রী দ্বারা সজ্জিত করে দেবে, তার জন্যও তার অনুরূপ সওয়াব রয়েছে। অন্য হাদিসে এসেছে, এই মাসে যে ব্যক্তি রোজাদারকে ইফতার করাবে, এটা তার গোনাহগুলোর ক্ষমা এবং নিজেকে জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তির কারণ হবে। আর সে রোজাদারের সমান সওয়াব লাভ করবে, এতে তার সওয়াব থেকে কিছুই কমানো হবে না।’

ইফতারের দোয়া : রাসুল (সা.) ইফতারের শুরুতে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করতেন, তার দেওয়া নিয়ামতের প্রশংসা করতেন। হাদিস শরিফে এসেছে, রাসুল (সা.) যখন ইফতার করতেন তখন এ দোয়া পাঠ করতেন, ‘আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়া আ’লা রিজকিকা আফতারতু’ অর্থাৎ হে আল্লাহ! আমি আপনারই জন্য রোজা রেখেছি এবং আপনারই দেওয়া রিজিক দ্বারা ইফতার করছি। ইফতার শেষেও রাসুল (সা.) দোয়া করে নিতেন।

ইফতার সংক্রান্ত মাসয়ালা : বৃষ্টির দিনে কিছু সময় দেরি করে ইফতার করা উত্তম। শুধু ঘড়ি বা আজানের ওপর নির্ভর করা ভালো নয়। কারণ এতে ভুল হতে পারে। ইফতারের জন্য মাগরিবের নামাজ পাঁচ-ছয় মিনিট দেরিতে আদায় করার অবকাশ আছে। যদি সূর্যাস্তে সন্দেহ হয়, তাহলে ইফতার করা হালাল হবে না।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি