শনিবার,১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং


বিএনপির দাবি এবং রাজনৈতিক বাস্তবতা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.১০.২০১৮

ডেস্ক রিপোর্ট: বিএনপি দেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক দল সেটা নিয়ে বিতর্ক করা অর্থহীন। তবে দলটির কার্যক্রম সীমিত হয়ে এসেছে। তাদের সাংগঠনিক তৎপরতা এখন সরকার নিয়ন্ত্রিত। গত বছর দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করার পর গত ৩০ সেপ্টেম্বর আবার একই স্থানে জনসভা করার অনুমতি পায় বিএনপি। খালেদা জিয়া কারাগারে তাই তার জন্য মঞ্চে একটি খালি আসন রাখা হয়েছিল।

রাম বনবাসে যাওয়ার পর তার ভাই লক্ষ্মণ রাজ্য শাসন করলেও সিংহাসনে স্থান দিয়েছিলেন রামের পাদুকা। তখন জুতা আবিষ্কার হয়নি। তখন পাদুকা বলতে বোঝাতো কাঠের তৈরি খড়ম। রামভক্ত লক্ষ্মণের নীতি অনুসরণ করছেন খালেদাভক্তরা। কিন্তু একটি আসন খালি রাখায় প্রশ্ন উঠেছে দলের দ্বিতীয় প্রধান তারেক রহমানের অবস্থান নিয়ে। তারেক রহমান এখন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপাসন। চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতির জন্য যদি আসন শূন্য রাখা হয় তাহলে কি তারেকের জন্যও একটি আসন খালি রাখা উচিত ছিল না? তারেকের জন্য চেয়ার খালি না রাখা কি বিশেষ কোনো বার্তা দিচ্ছে?

বিএনপির দাবির মধ্যে আছে, ‘খালেদা জিয়াকে মুক্তি এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে’। দাবির ক্ষেত্রে সমতা থাকলেও আসন শূন্য রাখার ক্ষেত্রে বৈষম্য করা হলো কেন? এটা কি দলের অভ্যন্তরীণ কোনো সংকটের প্রকাশ, নাকি নিছকই ভুল। বিএনপির অনেকেই তারেকে দলের ভবিষ্যৎ কান্ডারি মনে করলেও রাজনীতিসংশ্লষ্ট অনেকেই তাকে বিএনপির জন্য আপদ এবং বিপদ বলেই মনে করে।

যাহোক, নানা রকম বাধাবিপত্তি, ভয়ভাতি সত্ত্বেও বিএনপির জনসভায় জনসমাগম কম হয়নি। বিএনপির নেতাকর্মীরা মোটামুটি খুশি। অনেকদিন পর বিএনপি ঢাকায় প্রকাশ্য জনসভা করার সুযোগ পেয়েছে, সে জনসভায় উপস্থিত হওয়া অনেকের কাছেই ছিল ‘ফরজ’। এই জনসভার উপস্থিতি দেখে যারা মনে করছেন, ‘দেখেন বিএনপি কত জনপ্রিয় দল’ – তারা যতটা আবেগকাতর, ততটা যুক্তিতাড়িত নন। বেঁধে রাখা গরু হঠাৎ ছেড়ে দিলে দৌঁড়ঝাঁপ একটু বেশি করে। তারপর ঠিক হয়ে যায়। বিএনপির জনপ্রিয়তা নিয়ে এখনই বিতর্ক করে লাভ নেই। বিএনপিকে আরো বহু পথ হাঁটতে হবে।

জনসভায় যেসব দাবি তুলে ধরা হয়েছে, তার কোনোটাই নতুন নয়। এসব দাবি কোনোটাই আদায় করার ক্ষমতা বিএনপির নেই। এমনকি একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ আদায় করার জন্য সরকারের সঙ্গে দেনদরবার করার মতো অবস্থায়ও বিএনপি নেই। সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য যতটুকু সংয়ম বক্তৃতা-বিবৃতিতে থাকা উচিত, ততটুকুও বিএনপি দেখাতে পারছে না। উত্তেজক বক্তৃতা না দিলে মানুষ খুশি হয় না বলে যে ধারণাটা অনেকের মধ্য চালু আছে, সেটাও সম্ভবত এখন আর ঠিক নেই। মানুষ এখন বুঝতে পারে বাগাড়ম্বর কোনটা, আর কোনটা আসল কথা।

আগামী দিনে ক্ষমতায় গেলে বিএনপি কীভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করবে, তার কিছু অঙ্গীকার বিএনপি নেতারা করেছেন। কিন্তু এসব অঙ্গীকার তারা ক্ষমতায় গেলে সত্যি পূরণ করবেন, অথবা কীভাবে করবেন তা মানুষের কাছে পরিষ্কার করতে হবে। ভালো কথা বলা সহজ কিন্তু কঠিন হলো ভালো কাজ করা। বিএনপি আগে ক্ষমতায় ছিল। তাদের আমলনামা মানুষের অজানা নয়। কাজেই আগামীর পরীক্ষার জন্য তাদের প্রস্তুতি যে আগের চেয়ে ভালো সেটা মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হতে হবে।

একদিকে অঙ্গীকারে ক্ষমতায় গেলে প্রতিহিংসার রাজনীতি অবসানে জাতীয় ঐকমত্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, অন্যদিকে, বক্তৃতায় সরকারি কর্মকর্তা, পুলিসসহ সরকার সমর্থকদের দেখে নেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়েছে। ‘সবাইকে জবাবদিহি করতে হবে, কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। কেউ রেহাই পাবেন না’ – বলার পর কি প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে দূরে থাকার কথা কারো কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা পাবে?

অনেক কাঠঘর পুড়িয়ে বিএনপি ঢাকায় একটি জনসভা করেছে। এই জনসভা থেকে বিএনপি নিজেদের ঘরে কতটুকু ফায়দা তুলতে পারলো সেটাই এখন দেখার বিষয়।

সরকারকে দাবি পূরণে বাধ্য করা হবে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে ছাড়া নির্বাচন হবে না, নির্বাচনের আগে সংসদ বাতিল – এসব দাবি বা বক্তব্য উত্তেজনা ছড়াতে পারে। তবে এখন পর্যন্ত দেশের যে রাজনৈতিক বাস্তবতা তা থেকে মনে হয় না ভোটের আগে জয়ের আনন্দ উপভোগের সৌভাগ্য বিএনপির হবে!



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি