সোমবার,১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


মান হারাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঐতিহ্যবাহি ছানামুখী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৮.১০.২০১৮

স্টাফ রিপোর্টার:

রাজত্বকালে উপমহাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। মহাদেব পাঁড়ের জন্ম ভারতের কাশিধামে হলেও তিনি কলকাতায় তার ভাইয়ের মিষ্টির দোকানে কাজ করতেন। ভাইয়ের মৃত্যুর পর তিনি ঘুরতে ঘুরতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসেন। পরে মসজিদ রোড এলাকায় তিনি মিষ্টির দোকান চালু করেন। বর্তমানে তার নামের অনুসারে ওই এলাকাটিকে মহাদেব পট্টি নামে ডাকা হয়। সেই থেকে ছানামুখী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অংশ হয়ে আছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাম করা মিষ্টান্ন বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান আদর্শ মাতৃ ভাণ্ডারে গিয়ে কথা হয় ছানামুখীর তৈরির কারিগর দুলাল পালের সঙ্গে। প্রথমে কাঁচা দুধ সংগ্রহ করার পর পরিষ্কার কাপড় দিয়ে ছেকে নেওয়া হয়। তারপর দুধ আগুনে ফুটিয়ে নেওয়া হয়। এরপর ছানাপানি দিয়ে দুধ থেকে ছানা তৈরি করা হয়। তৈরিকৃত ছানার পানি শুকানোর জন্য পাতলা সুতি কাপড়ে বেঁধে তা ঝুলিয়ে রাখা হয়। এরপর পানি ঝরে গেলে চার কোনা করে ছোট ছোট করে কাটা হয়। এরপর তাতে চিনি দিয়ে বানানোর রসের মিশ্রন দিয়ে শুকিয়ে নেওয়া হয়। ২ ঘণ্টার মধ্যে তৈরি হয়ে যায় ছানামুখী।

তিনি আরো বলেন, আগে দেশী গাভীর দুধের কারণে ছানামুখীর মান উৎকৃষ্ট ছিলো। বর্তমানে শংকর জাতের গাভীর কারণে আগের মত ছানামুখীর স্বাদ পাওয়া যায় না।

একই কথা জানান মহাদেব পট্টির ভোলাগিরি মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের স্বত্বাধিকারী নান্টু মোদক। তিনি বলেন, আমরা প্রতিদিন ৭/৮ কেজি ছানামুখী তৈরী করি। প্রতি কেজি বিক্রি করতে হয় ৫৫০ টাকা কেজি। তাতে লাভ হয় ২০/২৫ টাকা। বিভিন্ন উৎসবে দুধের দাম বেড়ে গেলে আমাদের লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে হয়। অন্যথায় ছানামুখী উৎপাদন বন্ধ রাখতে হয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি