সোমবার,১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


‘মনোনয়ন মুখ্য নয়, কাজ করবো বিএনপির জন্য’ 


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.১২.২০১৮

ডেস্ক রিপোর্টঃ চিত্রনায়ক হেলাল খান বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত সেই ১৯৭৯ সাল থেকে। প্রায় ৪০ বছরের রাজনৈতিক জীবনে তাকে নানান চড়াই উতরাই পার হতে হয়েছে। বিশেষ করে গত দশ বছরে মামলা-হামলা, রিমান্ড ও জেল জুলুম সহ্য করতে হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৬ আসন থেকে মনোনয়ন চেয়েও দল থেকে মনোনয়ন পাননি। সেজন্য মন খারাপ হলেও দলের জন্য যেকোন ত্যাগে প্রস্তুত তিনি। সম্প্রতি নির্বাচন, রাজনৈতিক ও অভিনয় ও ব্যবসায়ীক জীবন নিয়ে কথা হয় তার সাথে।

তিনি জানান দলের স্বার্থে যেকোন সিদ্ধান্ত তিনি মেনে নেবেন। রাজনীতিতে কথা আছে ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ। একথা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি।

হেলাল খান বলেন, সিলেট ৬ আসন থেকে নির্বাচন করার জন্য আমি দীর্ঘদিন ধরেই প্রস্তুতি নিচ্ছি। এলাকার মানুষ চায় আমি নির্বাচন করি। আমার এলাকার মানুষের সুখে দুঃখে সব সময় তাদের পাশে ছিলাম আছি। বিগত দুইটি নির্বাচনে এই আসনে জোট থেকে মনোনয়ন পায় জামায়াতে ইসলামী। কিন্তু দুইবারই সেই প্রার্থী পরাজিত হয়। কিন্তু এবার আশা করেছিলাম মনোনয়ন পাবো।

তিনি বলেন, ব্যক্তিগত উদ্যোগে এলাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাট করেছি। আমার প্রতিষ্ঠা করা স্কুল সরকারি করণ হয়েছে। এছাড়া অভিনয়ের জন্য এলাকার মানুষ আমাকে ভালোবাসে। তারা ‘হাসন রাজা’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পর থেকে আমাকে হাসন রাজা নামেই ডাকে। এসব কিছু বিবেচনায় নিয়ে আমি মনে করি দল মনোনয়ন দিলে আমার বিজয় নিশ্চিত ছিল।

হেলাল খান বলেন, বর্তমানে সাংস্কৃতিক জগতের মানুষেরা রাজনীতিতে আসছে। কারণ তারা সব সময়ই তাদের কাজের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের সাথেই থাকে। তাই রাজনীতিতেও তারা ভালো করবে। তবে গত সংসদে কয়েকজন সাংসদ সাংস্কৃতিক অঙ্গনের ছিলেন। বিশেষ করে সংস্কৃতিমন্ত্রী, যিনি দেশের শক্তিমান অভিনেতা। কিন্তু অনেক সীমাবদ্ধতার কারণে তিনি কাজে সফল হতে পারেননি। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি আসাদুজ্জামান নুর ভাইয়ের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও সীমাবদ্ধতার কারণে তিনি সফল হতে পারেননি।

হেলাল খান জানান, মনোনয়ন পেলাম বা না পেলাম। বিএনপির রাজনীতি দিয়ে আমার রাজনৈতিক জীবন শুরু। আর জীবনের শেষ পর্যন্ত বিএনপির রাজনীতির সাথেই জড়িত থাকবো।

নায়ক হেলাল খান ১৯৯৫ সালে হাফিজ উদ্দিন পরিচালিত ‘প্রিয় তুমি’ সিনেমার মাধ্যমে বড়পর্দায় আসেন। এরপর ‘বাজিগর’, ‘সাগরিকা’, ‘আশা আমার আশা’, ‘হাছন রাজা’, ‘মমতাজ’, ‘জুয়াড়ি’, ‘গুরু ভাই’, ‘কুখ্যাত খুনি’সহ অর্ধশতাধিক সিনেমায় তিনি অভিনয় করেছেন। তার প্রযোজিত ছবির মধ্যে বাজিগর, সাগরিকা ও হাছন রাজা অন্যতম।

হাছন রাজা চলচ্চিত্রটি ২০০২ সালে সেরা চলচ্চিত্রের ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পায়। এছাড়া তিনি পুরস্কার পেয়েছেন একই বছর ‘জুয়াড়ি’ চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের জন্য।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি