শনিবার,১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং


‘আর্টিকেল ৬৬ অনুযায়ী নির্বাচনের সুযোগ পাবেন খালেদা জিয়া’


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৫.১২.২০১৮

ডেস্ক রিপোর্টঃ  আইন যদি তার নিজস্ব গতিতে চলে এবং নির্বাচন কমিশন যদি ফেয়ারলি ডিসাইট করেন তবে নির্বাচন কমিশন থেকেই বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে রায় আসবে বলে মন্তব্য করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী কায়সার কামাল। বুধবার সাড়ে ১২টায় আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে ফেনী-১ আসন থেকে ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, বগুড়া-৬ থেকে আইনজীবী নওশাদ জমির ও বগুড়া-৭ আসন থেকে মাসুদ আহমেদ তালুকদার খালেদা জিয়ার পক্ষে আপিল করেন।

আপিল প্রক্রিয়া শেষে ফেরার পথে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী কায়সার কামাল।

তিনি বলেন, আইন বহির্ভূতভাবে অন্যায়ভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তা খালেদা জিয়ার ফেনী-১ বগুড়া-৬ ও ৭ আসনের মনোনয়ন ফরম বাতিল করেছেন। যেটা আমরা মনে করি সরকারের যড়যন্ত্রের অংশ। আজকে আমরা খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করেছি তিন আইনজীবী।

তিনি বলেন, সারাদেশ ও জাতি তাকিয়ে আছে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য। আর দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া যে নির্বাচন হবে তা হবে প্রহসনের নির্বাচন। দেশের স্বার্থে, জাতির স্বার্থে ও আন্তর্জাতিক মহলে স্বীকৃতির জন্য নির্বাচন কমিশন সুবিচার করবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

‘যদি কমিশন আপিলে সুবিচার না করে সেক্ষেত্রে আপনারা কি করবেন? জানতে চাইলে আইনজীবি কায়সার কামাল বলেন, নির্বাচন কমিশনের প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে। আইন যদি ফলো করা হয়; কমিশন যদি আইন ফলো করেন তবে যে আইনে খালেদা জিয়ার মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে তা এক্ষেত্রে আইন প্রযোজ্য হবে না। সুতরাং আমরা বিশ্বাস করি কমিশন আইনগতভাবেই বিষয়টি বিবেচনা করবেন।

আইনের ব্যাখ্যা নির্বাচন কমিশন ও আদালতও দিয়েছে। এরপরও কেন দুই বছরের বেশি সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার মনোনয়ন ফিরে পাবার আশা করছেন?

উত্তরে আইনজীবী কায়সার কামাল বলেন, পৃথক মামলায় পৃথক রায় ও বক্তব্য এসেছে। একেকজন একেক কেইসে বলেছেন। এক্ষেত্রে খালেদা জিয়ার কেইস সম্পূর্ণ ভিন্ন। আইন নিজস্ব গতিতে চললে ও নির্বাচন কমিশন সংবিধান ও আইন যদি ফলো করেন তবে খালেদা জিয়া মনোনয়ন ফিরে পাবেন।

কায়সার কামাল আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন অনেক বিতর্ক করেছেন। আমরা আশা করবো খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে বিতর্কের উর্ধ্বে উঠে পক্ষপাত না করে খালে মনোনয়নপত্র গ্রহণ করবেন। খালেদা জিয়া যাতে নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন সেধরণের ব্যবস্থা তারা গ্রহণ করবেন।

আইনে আর্টিকেল ৬৬ আছে, সেখানে দেয়া আছে সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক। আপিল হচ্ছে কন্টিনিওয়াস অব ট্রায়াল। খালেদা জিয়ার যে দুটা মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে দুটারেই আপিল করা হয়েছে। আপিলের রায় এখনো আসে নাই। তাছাড়া অতীতের অনেক নজীরও রয়েছে আশা করবো সেসব বিবেচনা করে কমিশন রায় দেবেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি