সোমবার,১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং


শীতে ত্বকের যত্ন


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৩.০১.২০১৯

ডেক্স রিপোর্টঃ

শীত এসেছে বেশ আগে। আপনার ত্বকও নিশ্চয় ঠান্ডা, শুষ্কতা এবং বাতাসের প্রভাব অনুভব করতে শুরু করেছে। তা ছাড়া ত্বক যদি হয় প্রকৃতিগতভাবেই শুষ্ক কিংবা আপনি যদি দিনের বেশির ভাগ সময়ই কাটান শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কামরায়, তাহলে এখনই সময় ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা বজায় রাখতে ত্বকের প্রতি যতœশীল হওয়া। আপনার ত্বক রুক্ষ, শুষ্ক হওয়ার আগেই উপযুক্ত যতেœর মাধ্যমে ত্বককে প্রকৃতির বৈরিতার সঙ্গে মানিয়ে নিন, যাতে আপনার ত্বক থাকে নরম, চাঙা ও মসৃণ।

শীত মৌসুম এলেই আমাদের ত্বক শুষ্ক হয়ে উঠে কেন? এর উত্তর জানতে হলে আমাকে স্ট্র্যাটাম কোর্নিয়ামের বিষয়টিকে পরিষ্কার করতে হবে। স্ট্র্যাটাম কোর্নিয়াম কি? আমাদের ত্বকের ওপরের স্তরটিকে স্ট্র্যাটাম কোর্নিয়াম বলা হয়। এটি মূলত ত্বকের ঢালের মতো, পরিবেশের খারাপ উপাদানগুলোকে বাইরে রেখে এটি ত্বকের ভেতরের আর্দ্রতাকে সুরক্ষিত রাখে। স্ট্র্যাটাম কোর্নিয়াম প্রায় দশ থেকে ১৫টি মাইক্রোমিটারের মৃত কোষ থেকে তৈরি হয়।

বৈজ্ঞানিক গবেষণাগুলোতে দেখা যায়, ত্বকের বহিরাগত স্তর অর্থাৎ স্ট্র্যাটাম কোর্নিয়াম ত্বকের ভেতরে প্রাকৃতিক আর্দ্রতা বজায় রাখার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ‘টোটাল স্কিন: দ্য ডেফিনিটিভ গাইড টু হোল স্কিন কেয়ার ফর লাইফ’–এর লেখক ডেভিড লেফেল ও ইয়েল স্কুল অব মেডিসিনের ডার্মাটোলজিক সার্জারির প্রধানের ভাষ্যমতে, যখন স্ট্র্যাটাম কোর্নিয়াম ক্ষতিগ্রস্ত হয়, আমাদের ত্বকের স্তর ভেদ করে প্রাকৃতিক আর্দ্রতা বেরিয়ে পড়ে। আর তখনই ত্বক হয়ে পড়ে শুষ্ক-খড়খড়ে, কখনো চুলকানিও শুরু হয়।
শীতকালে ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা বজায় রাখতে কিছু বিষয়ের ওপর নজর দিতে হবে। যেমন—পর্যাপ্ত পানি পান করা, শীতকালে প্রচুর পানি পান করতে ভুলবেন না। আপনার শরীর ভেতর থেকে আর্দ্র না হলে সেটার প্রভাব পড়বে আপনার ত্বকের ওপর। সুগার লেভেল ঠিক থাকলে আপনি ডাবের পানি ও ফলের জুস করে খেতে পারেন।
ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন, উন্নত তেলভিত্তিক ময়েশ্চারাইজার ত্বকে ব্যবহার করুন। এটি আপনার ত্বকে পানিকে সিল করতে সহায়তা করবে। কারণ, এটি জলভিত্তিক মুখ লোশনগুলোর চেয়ে বেশি আর্দ্রতাযুক্ত থাকে। ত্বকের পাশাপাশি পুরো বাড়িতে বা নিজ কক্ষে আর্দ্রতা বজায় রাখতে হিমোডিফায়ার ব্যবহার করতে পারেন।

ওমেগা-থ্রি ফ্যাট বা চর্বি: খাদ্য বাছাইয়ে ওমেগা-থ্রি ফ্যাট বা চর্বি রাখুন, আপনার হাতের উপরিভাগ যদি নরম ও মসৃণ না হয় তার অর্থ আপনার শরীরে ওমেগা-থ্রি ফ্যাটের ঘাটতি রয়েছে। সে ক্ষেত্রে আপনি স্যালমন, অলিভ ওয়েল ও ওয়ালনাট খাদ্যতালিকায় রাখুন। শসা ও সেলারিতে (এক ধরনের শাক) প্রচুর পরিমাণে পানি রয়েছে যা আপনার ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা ফিরিয়ে দিতে পারে। কমলা, মিষ্টি আলু, মিষ্টি কুমড়া, গাজর, লাল মরিচ, স্পিন্যাচ ইত্যাদি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট জাতীয় খাবার যাতে রয়েছে ভিটামিন এ, বি, ই, আয়রন এবং ওমেগা-থ্রি ফ্যাট। যেকোনো গাঢ় সবুজ সবজি খাদ্যতালিকায় রাখুন।
অরগানিক সাবান ও তেল: সাবান পরিহার: ত্বকে কেমিক্যাল জাতীয় সাবান পরিহার করুন, যেকোনো এন্টিব্যাক্টিরিয়াল সাবান ও প্রসাধন সামগ্রীতে রয়েছে অ্যালকোহল ও ফ্র্যাগ্রেন্স যা আপনার ত্বকের স্বাভাবিক তেলকে নষ্ট করে। অরগানিক বা প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি সাবান ও তেল ব্যবহার করুন।

ত্বকের যতেœ ল্যাকটিক অ্যাসিড: ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো ল্যাকটিক অ্যাসিড। মুখে ব্যবহারের যেকোনো ক্রিম কেনার আগে পেছনে ইনগ্রিডিয়েন্স পড়ে নিশ্চিত হোন আপনার ক্রিমে ল্যাকটিক অ্যাসিড উপাদানটি রয়েছে কিনা।
গোসলে পানির তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখুন:

শীতকালে অনেকেই গরম পানিতে দীর্ঘক্ষম গোসল নিতে পছন্দ করেন। অতি গরম পানি আপনার ত্বককে শুষ্ক করে দিতে পারে। গোসলের পানি কুসুম গরম রাখুন।
এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল ব্যবহার করুন: এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল ত্বকের যতেœ অত্যন্ত কার্যকর পণ্য হিসাবে কাজ করে। নারকেল তেল তার উচ্চ স্তরের ফ্যারুলিক ও পি-কুমারিক অ্যাসিডের কারণে বিনা মূল্যে ত্বকের ভিত্তিগত ক্ষতির সঙ্গে লড়াই করে এবং এর প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলো আপনার ত্বককে সতেজ রাখবে। তা ছাড়া শীতকালে সাধারণত মুখ ও শরীরের ত্বকের পাশাপাশি গোড়ালি, হাঁটু এবং কনুইয়ের অংশগুলোও রুক্ষ ও কালো হয়ে যায়৷ গোড়ালি, হাঁটু এবং কনুইয়ের রুক্ষতা ও কালো দাগ দূর করতে প্রথমে কিছুক্ষণ পানি দিয়ে জায়গাটি ভিজিয়ে রাখুন। তারপর নারিকেল তেলের প্রলেপ দিন। এভাবে কিছুদিন ব্যবহার করলে নিজেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

ত্বকের জ্বলুনি ভাব দূর করতে যা করতে পারেন: অলিভ ওয়েল সাধারণত সব ধরনের ত্বকের পক্ষেই খুব কার্যকর৷ এর মধ্যে রয়েছে পর্যাপ্ত ফ্যাটি অ্যাসিড ও অ্যান্টিঅক্সিডান্ট যা শুধু আপনার মুখই নয় বরং পুরো শরীরের ত্বকের যতেœ অপরিহার্য ভূমিকা রাখে। গোসলের আধ ঘণ্টা আগে মুখে ও পুরো শরীরে অলিভ ওয়েল মেখে নিন৷ তার পর কুসুম গরম পানিতে গোসল সেরে লাগিয়ে নিন এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল। এ ক্ষেত্রে অ্যালোভেরা খুব উপকারী। অ্যালোভেরা কেটে শাঁসটা বের করে ত্বকে লাগালে খুব দ্রুত আপনার ত্বকের জ্বলুনি ও চুলকানি কমে যাবে।

মাথার তালুর ত্বকের যতেœ যা করণীয়: মাথার তালুর ত্বকে শীতকাল ছাড়াও অনেকেই শুষ্কতা অনুভব করেন। এ ক্ষেত্রে গোসলের আগে এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেন তেল, ভিটামিন-ই তেল, আলমন্ড তেল ও রিগ্যান তেল সামান্য গরম করে মাথার ত্বকে আঙুলের ডগা দিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। তারপর শ্যাম্পু করে নিন। এতে উপকার পাওয়া যাবে।
ত্বকের যতেœর পাশাপাশি যে বিষয়ে বিশেষভাবে সচেতন হতে হবে, তা হলো দুশ্চিন্তামুক্ত থাকা। দুশ্চিন্তা ও মানসিক চাপ আমাদের ইমিউন সিস্টেমকে দুর্বল করে দেয়। মানসিক চাপ ত্বকের সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি করে। ফলে ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, অণুজীব ও রাসায়নিকের প্রভাবে আমাদের ত্বক অধিকতর প্রভাবিত হয়। কাজেই সুন্দর, সতেজ ত্বকের যতেœ উদ্বেগমুক্ত থাকা জরুরি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি