রবিবার,২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং


কেমন ছিলো বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সেই সময়ে উৎসবের দিনগুলো


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০৬.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্ট :

মা-বাবা, পাঁচ ভাইবোন মিলে হাসিখুশি একটা পৃথিবী ছিলো। ছিলো সোনালি শৈশব, বর্ণালী কৈশোর। ছিলো হাসি-কান্না, স্বপ্ন-আনন্দভরা দিনরাত্রি। হঠাৎ করে একদিন সব শূন্য হয়ে গেলো। আর কোনো উৎসব হৃদয় ছুঁয়ে আর আসেনি তাদের জীবনে।

কোনো উৎসব আসলেই মনে পড়ে বাবা-মার কথা, রাসেলের কথা। মনে পড়ে ভাইদের, ভাবিদের কথা। কেমন ছিলো বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সেই সময়ের উৎসব দিনগুলো। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানার কাছ থেকে বিশেষ কিছু স্মৃতি কথা আসুন জেনে নিই।

আমরা তো আগে কোনোদিন একা একা ভাত খাইনি। এখন একা একা খেতে হয়! রোববারে ছুটির দিনে মা একটু ভালো রান্না করতেন। হয়তো লুচি বা পরোটা। মা লুচি ভাজছেন। একটা মোড়া নিয়ে আব্বা বসেছেন। তার পাশে আমরা সবাই পিঁড়ি পেতে বসেছি। একটা একটা করে লুচি ভাজা হচ্ছে। আমাদের একেকজনের পাতে পড়ছে। আমাদের চার ভাইবোনের চারটা কাঁসার থালা ছিলো। সেই কাঁসার থালায় আমরা খাচ্ছি।ৃ বলছিলেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা, ছোট আপা। আব্বা জেলে থাকলে তো আমাদের ঈদ বিশেষ কিছু ছিলো না।

কাপড়চোপড়ও তো নতুন তেমন কিছু আসতো না। ঈদের আগে সবচেয়ে ব্যস্ত থাকতে হতো হাসিনা আপাকে, আমাদের এখনকার প্রধানমন্ত্রীকে। আমাদের ছিলো সেলাই মেশিন। তখন দর্জির কাছে কেউ পোশাক বানাতে যেতো না। বাড়িতে জামাকাপড় বানাতে হতো, সেটাই ছিলো চল। মা আমাদের কাপড় সেলাই করতেন, তারপরে করতে শুরু করেন হাসু আপা। আমাদের বাড়িতেই কতো লোকজন, তার উপর আশপাশের পড়শিরাও এসে দিয়ে যেতো কাপড়। আপা সবার জামা বানিয়ে দিতেন। সবারটা দিচ্ছেন, শুধু আমারটা দিচ্ছেন না। আমি বলি, আপা, আমার জামাটা বানাবে না? বানাও। আপা বলেন, ‘বানাবো রে। একটু মাথা ধরেছে। তুই এক কাজ কর তো। এক কাপ চা বানিয়ে নিয়ে আয়।

তোর বানানো চায়ের কোনো তুলনা হয় না।’ চা বানিয়ে আনলাম। খাচ্ছেন। ‘ভালো হয়েছে’ বলে হাসলেন। তারপর আবার আরেকজনের জামা বানাতে শুরু করলেন। আমি বলি, আপা, আমারটা বানাবে না? আমারটা ধরো। তিনি হাসতেন, হয়তো বললেন, ‘যা তো, দেখ তো, কফি কোথায় পাওয়া যায়, একটু কফি খেতে পারলে ভালো হতো।’ আমি অভিমান করতাম, যাও, আমারটা তোমাকে বানাতে হবে না। আমারটা বানাতেন একেবারে চাঁদরাতে। শেষ সময়ে। উফ্। কি যে করতেন! একবার তো শেষ সময়ে তাড়াহুড়ো করে আপা জামা বানিয়ে দিয়েছেন ঈদের আগের রাতে। লুকিয়ে রেখে সকালে পরতে গেছি। দেখি, সেলাই করেছেন কাপড়ের উল্টো দিকে। পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যার পর দেশের স্বাধীনতার সূর্য যখন প্রায় অস্তমিত হতে যাচ্ছিলো, জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তন আর তার নেতৃত্বের জন্যই আজ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ রাষ্ট্র সৃষ্টির সার্থকতা প্রমাণিত হয়েছে। স্বপ্নসারথি শেখ হাসিনা ও তার ছায়াসঙ্গী শেখ রেহানা দু’জনের প্রতি জানাই শ্রদ্ধা। তাদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি