[bangla_day],[english_date]


কিভাবে জঙ্গিরা জামিন পাচ্ছে- প্রশ্ন রিজভীর


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
03.06.2019

ডেস্ক রিপোর্ট :

২০১৬ সালের গুলশান হলি আর্টিজান হামলার পর গ্রেফতারকৃত ৫১২ জন জঙ্গির মধ্যে ৩০০ জন জামিনে রয়েছেন। জামিনে থাকায় জঙ্গিদের অধিকাংশ এখন পলাতক। র্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদের এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, র‌্যাবের এর মহাপরিচালকের বক্তব্য শুনে সারাজাতি বিস্মিত ও স্তম্ভিত। জঙ্গিরা জামিন পাচ্ছে কিভাবে?

সোমবার নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমরা জানি নিম্ন আদালত সম্পূর্ণরুপে সরকারের করায়ত্ত্বে। গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অংশগ্রহণের জন্য বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মী, মানবাধিকার কর্মী, বরেণ্য আইনজীবী কেউই নিম্ন আদালত থেকে জামিন পান না। তাহলে সরকারের নিয়ন্ত্রণে থাকা নিম্ন আদালত থেকে কিভাবে ভয়ংকর জঙ্গি হামলায় জড়িত জঙ্গিরা জামিন পাচ্ছে? সরকার জঙ্গি দমনের নামে যা করছে তা পরিকল্পিত নাটক কি না তা নিয়ে জনমনে দীর্ঘদিন থেকে সংশয় রয়েছে।

রিজভী আহমেদ বলেন, র্যাবের মহাপরিচালকের বক্তব্যে সেই সংশয় আরও গভীর থেকে গভীরতর হলো। আসলে জঙ্গি দমনের নামে কোন খেলাধুলা চলছে কি না সেই প্রশ্নও মানুষের মধ্যে বিদ্যমান ছিল। কোন সহানুভুতি লাভের জঙ্গি দমনের নামে রুপকথার সিন্দাবাদের দৈত্যের কাহিনী রচনা করা হচ্ছে কি না সেই প্রশ্নটিও আরও দীর্ঘতর হলো র‌্যাবের মহাপরিচালকের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে।

বিএনপির এ মুখপাত্র বলেন, আসলে জঙ্গি দমনের নামে কর্তৃত্ববাদী শাসন দীর্ঘায়িত করা, গণতন্ত্র হরণ ও বিরোধী মত নিধনে গোপন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কি না সেটিও আজ মানুষের মুখে মুখে ঘোরপাক খাচ্ছে। তা না হলে বিএনপি’র নেতাকর্মীরা সব মামলা থেকে জামিন পাওয়ার পরেও কারাগারের ফটক থেকে বের হওয়ার সময় তাদের বিরুদ্ধে আরও অজানা মামলার ওয়ারেন্ট নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে এবং পুনরায় তাদেরকে জেলগেট থেকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। কিন্তু জঙ্গির নামে যাদের ধরা হয় তারা জামিন পেয়ে আবার লোকচক্ষুর আড়ালেও চলে যাচ্ছে। আসলে সত্য ও বিবেক এদেশ থেকে নির্বাসিত হয়েছে। অবৈধ ক্ষমতার সঙ্গে যুক্ত প্রতিহিংসার সংশ্লেষণে এদেশে রক্তপাত ক্রমবর্ধমান হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি