সোমবার,২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য


দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৪.০৬.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্ট :

দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নিয়ে তিনি বলেছেন, ‘ঘুষ যে দেবে আর যে নেবে, উভয়ই অপরাধী; সেটাই ধরে নিতে হবে। শুধু ঘুষ নিলে তাকে ধরা হবে, তা নয়; যে ঘুষ দেবে তাকেও ধরা হবে।

কারণ ঘুষ দেয়াটাও অপরাধ। সেভাবেই বিচার করতে হবে। অপরাধ যারা করছে আর অপরাধে যারা উসকানিদাতা তাদের বিরুদ্ধেও আমরা ব্যবস্থা নিতে চাই।’ প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্য দুর্নীতিবাজদের জন্য একটি সতর্কবার্তা।

এখন দেখার বিষয় এতে দুর্নীতিবাজরা সতর্ক হয়ে নিজেদের সংশোধন করে কিনা। আর তা না করলে সরকার এবং দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয় সেটিও দেখার বিষয়।

বস্তুত দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর ও কার্যকর ব্যবস্থার ওপরই নির্ভর করছে দেশে দুর্নীতির ব্যাপকতা হ্রাস বা বৃদ্ধি পাওয়া। কারণ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির পরও দুর্নীতি কমেনি, যা ইতিপূর্বে প্রধানমন্ত্রীর এক বক্তব্যেও ফুটে উঠেছে।

দুর্নীতি এখন বলতে গেলে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে পড়েছে। এমন কোনো খাত নেই, যেখানে কোনো না কোনোভাবে দুর্নীতি হচ্ছে না। এমনকি দুর্নীতি দমনের দায়িত্বে নিয়োজিত যে প্রতিষ্ঠান- দুদক, তার কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে।

নারী অপদস্ত ও ক্ষমতা অপব্যবহারের দায়ে অভিযুক্ত ডিআইজি মিজানুর রহমান দুদকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে মোটা অঙ্কের ঘুষ প্রদান করেছেন বলে জানিয়েছেন। এ কথা সত্য হলে ঘুষদাতা ও ঘুষ গ্রহণকারী উভয়কেই দুর্নীতির অপরাধে সাজা পেতে হবে।
এটা ঠিক, যারা দুর্নীতি দমনের কাজে নিয়োজিত সেই প্রতিষ্ঠানের একজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ ওঠা উদ্বেগজনক। শর্ষের মধ্যেই ভূত থাকলে ভূত তাড়ানো কঠিন হয়ে পড়ে। কাজেই শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে অবশ্যই।

প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন, দুর্নীতি দমন সংস্থার মধ্যে অনেকেই দুর্নীতি ব্যাধিতে আক্রান্ত বলে যে জনশ্রুতি আছে, তা একেবারে মিথ্যে নয়। কাজেই আমরা মনে করি দুদকেও শুদ্ধি অভিযান চালানো প্রয়োজন।

দুদকের অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে অবশ্য সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। কিন্তু কথা হল, ডিআইজি মিজান যেখানে নিজেই ঘুষ প্রদানের কথা স্বীকার করেছেন, সেখানে তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না কেন? তিনি তো আত্মস্বীকৃত অপরাধী!

দেশে দুর্নীতির একটি বড় উপলক্ষ সরকারি চাকরিতে নিয়োগ। সম্প্রতি রাষ্ট্রপতির কাছে দেয়া দুদকের বার্ষিক প্রতিবেদনে (২০১৮) সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও সংবিধিবদ্ধ সরকারি সংস্থায় নিয়োগে দুর্নীতি-অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির যে চিত্র উঠে এসেছে, তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক।

বলা যায়, এসব প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতির সূত্রপাত ঘটে শুরু থেকেই। অর্থাৎ যারা ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে নিয়োগ পায়, পরবর্তী সময়ে তারা আরও বেশি দুর্নীতির আশ্রয় গ্রহণ করে থাকে। একপর্যায়ে তারা ঘুষ-র্দুর্নীতির মাধ্যমে অন্যদের নিয়োগ দেয়।
আর এভাবেই চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়ছে দুর্নীতি। প্রকৃতপক্ষে দুর্নীতির এই দুষ্টচক্রের কারণেই সরকারি প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতি রোধ করা যাচ্ছে না। দুর্নীতি দমন করতে চাইলে ভেঙে ফেলতে হবে এ দুষ্টচক্র।

আমরা মনে করি দুর্নীতি রোধে সবার আগে নিয়োগ ক্ষেত্রে দুর্নীতি বন্ধ করা জরুরি। নিয়োগে দুর্নীতি রোধ করা গেলে সামগ্রিকভাবে দুর্নীতি অনেকাংশে কমে আসবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি