[bangla_day],[english_date]
  • প্রচ্ছদ »রাজনীতি » একদিকে লুট করছে, অন্যদিকে বাজেট দিচ্ছে,ভোট চোরদের হাতে দেশের সম্পদ নিরাপদ নয় : আমীর খসরু


একদিকে লুট করছে, অন্যদিকে বাজেট দিচ্ছে,ভোট চোরদের হাতে দেশের সম্পদ নিরাপদ নয় : আমীর খসরু


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
15.06.2019

ডেস্ক রিপোর্ট :

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ক্ষমতাসীন সরকারের সমালোচনা করে বলেছেন, বাজেট দেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করবেনা। তারা জনগণের কাছে দায়বদ্ধ নয়। তারা একদিকে লুট করছে, অন্যদিকে বাজেট দিচ্ছে, দেশ পরিচালনা করছে, পলিসি নির্ধারণ করছে। আজকে সব একীভূত। সত্যিকার অর্থে যারা ভোট চুরি করে তাদের হাতে দেশের সম্পদ নিরাপদ নয়। তাদের দ্বারা সম্পদের সুষম বণ্টন হতে পারেনা।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের তৃতীয় তলায় মিলনায়তনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া‘ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী তাঁতী দল।

সংগঠনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, ওলামা দলের আহ্বায়ক শাহ মোহাম্মদ নেছারুল হক, বিএনপির তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক সভাপতি হুমায়ুন ইসলাম খান, বাহাউদ্দিন বাহার, কাজী মনিরুজ্জামান সহ দেশের বিভিন্ন এলাকার তাঁতী দলের নেতৃবৃন্দ। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সাংগঠনিক সবকিছু প্রোটোকল মেনে কাজ করার পরিবেশ দেশে নেই। সব অংগ সংগঠনকে যথাযথ মূল্যায়ন করতে হবে। এটার প্রয়োজনীয়তা আছে। তা না হলে অন্যরা কাজ করবেনা। বাজেটে দেশের তাঁতী সম্প্রদায়ের জন্য কি দেয়া হয়েছে সে নিয়েও তাঁতী দলকে কাজ করতে হবে। তবেই আপনারা বিএনপির হয়ে তাঁত শিল্পে কর্মরত লোকজনের কাছে সমাদৃত হবেন। সব অংগ সংগঠনের প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে নিজ নিজ খাতের বিভিন্ন বিষয়ে সোচ্চার হওয়া। কেননা তাঁতীদের চাহিদা কখনোই পূরণ করা সম্ভব হয়নি। সারাবিশ্বে হাতে বোনা তাঁত পণ্যের চাহিদা অনেক বেশি। কিন্তু আমরা বাংলাদেশে তার মূল্যায়ন করতে পারিনা।

এই শিল্পের বিকাশ ঘটাতে ও বাজার ধরে রাখতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তাঁত শিল্প বাঁচানোর বিকল্প নেই। তিনি বলেন, আজকে দেশের মানুষ সবচেয়ে বেশি স্পর্শকাতর দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি। তার মুক্তির সাথে সবকিছু জড়িত। তার মুক্তির সাথে জড়িত মানুষ ভোটাধিকার ও নিরাপত্তা ফিরে পাবে কিনা। ন্যায় বিচার পাবে কিনা। আমাদের এক দাবি নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। সেটা হলো খালেদা জিয়ার মুক্তি। আমীর খসরু বলেন, দেশের একটি গোষ্ঠী জনগণকে বাইরে রেখে ক্ষমতা দখল করে একদলীয় স্বৈরশাসন প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

আজকে তিউনিশিয়ার উপকূলীয় এলাকায় বাংলাদেশের তরুণ যুবকেরা ভাসছে। কেনো জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পালিয়েছে? কেউ কি জবাব দিতে পারবেন? যে দেশে গণতন্ত্র থাকবেনা, বাক স্বাধীনতা থাকবেনা , সেখানে ন্যায় বিচার হতে পারেনা। আমাদেরকে আন্দোলনে নেমে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান বলেন, সবার আগে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দিতে হবে। তাহলেই দেশের সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তিনি আমাদের নেত্রী। তার স্বামী দেশের স্বাধীনতার ঘোষক। দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে দেশনেত্রীর মুক্তি আন্দোলন শুরু করুন। কৌশল অবলম্বন করে এগিয়ে যেতে হবে। আবুল কালাম আজাদ সভাপতির বক্তব্যে বলেন, মোটা কাপড় মোটা ভাত শহীদ জিয়ার মতবাদ।

১৯৮০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি শহীদ জিয়া তাঁতী দলের প্রতিষ্ঠা করেন। আমরা পেশাভিত্তিক দল। সরকারকে টিকিয়ে রাখার জন্য উৎপাদনমূলক কাজ করি। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানই প্রথম বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের চাল রফতানি শুরু করেন। কিন্তু ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল সহ অন্যান্য সংগঠনের ন্যায় বিএনপি আমাদের এখন আগের মতো মূল্যায়ন করেনা। বড় বড় জনসভায় আমাদের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের নাম পর্যন্ত বলা হয় না। যা খুবই দুঃখজনক। তবুও আমরা শক্তিশালী।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি