সোমবার,২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং
  • প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » সব দেশের স্বার্থেই রোহিঙ্গা সমস্যার সুন্দর একটি সমাধান হোক : বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদুত


সব দেশের স্বার্থেই রোহিঙ্গা সমস্যার সুন্দর একটি সমাধান হোক : বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদুত


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০২.০৭.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্ট : চীনে প্রথম সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতা আসার পর । এই সফরে দুদেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি চুক্তি সই ছাড়াও রোহিঙ্গা সংকট সমাধানেরও উপায় নিয়ে আলোচনা হবে আশা করা হচ্ছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, চীনের নেতৃত্বের কাছে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়টি তুলে ধরবেন। এর কতোটা অগ্রগতি হতে পারে?

এ বিষয়ে চীনে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদুত মুন্সি ফয়েজ আহমেদ বলেন, নিরাশ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ইতিমধ্যেই চীন এব্যাপারে যুক্ত হয়েছেন। চেষ্টা করছে বাংলাদেশ মিয়ানমারের মধ্যেকার বিষয়টি সমাধানের। যদিও সে চেষ্টা এখন পর্যন্ত সফল হয়নি। কিছুটা হয়েছে যে দুই দেশে চুক্তি হয়েছে। এক সঙ্গে কাজের দল হয়েছে। কিন্তু আসল কাজটি এখনো শুরু হয়নি।

এটি করতে হলে দেখা যাবে, যারা ফেরত যাবে তাদের নিরাপত্তা, সকল ধরনের সুযোগ সুবিধা এবং মান মর্যাদার নিশ্চয়তা দিতে হবে। সেটি না হলে তারা বাংলাদেশ থেকে যাবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়গুলো নিশ্চয় বোঝানোর চেষ্টা করবেন।

পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিক ক্ষমতাধর দেশ চীন। আর তারা যেহেতু এই বিষয়ে যুক্ত হয়েছেন তাদেরও একটি ভাবমূর্তি রয়েছে, যদি তারা সফল পরিণতিতে না যায় তাহলে তাদেরও মুখরক্ষা হবে না।

চীনের সাথে বড় ধরনের বিনিয়োগ, রাজনৈতিক ও ভৌগোলিক কারণেই একটি বড় সুযোগ রয়েছে মিয়ানমারের ওপর চাপ তৈরি করার ব্যাপারে। তারা যেটি চায় সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠিত না হলে তো হবে। রাখাইন রাজ্যে যে কর্মকাণ্ড তারা করতে চায় তার জন্য লোকবলেরও প্রয়োজন রয়েছে।

আমরা শুনতে পাই রোহিঙ্গারা চলে আসার পরে সেখানকার অর্থনৈতি পুরোপুরি ভেঙে পড়েছে। তার মানে রোহিঙ্গারা সেখানে একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক শক্তি ছিলো। সেই শক্তিটি এখন মিয়ানমারের বা আরাকানের কাছে লাগবে। আরর যারা ওখানে বিনিয়োগ করবে তাদেরও কাজে লাগবে। সুতরাং সবার স্বার্থেই এই সমস্যার সুন্দর একটি সমাধান হোক এবং রোহিঙ্গারা তাদের বসত বাড়িতে ফিরে গিয়ে অর্থপূর্ণ জীবন যাপন করতে পারে।

আমি মনে করি চীনের সেই কৌশল আছে। কিন্তু সেভাবে চেষ্টা করতে হবে। তারা যতোটুকু কঠোর হতে পারে এখন পর্যন্ত ততোটুকু কঠোর হয়নি। হয়তো তাদের ভয় থাকতে পারে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের সাথে কঠোর হলে তাদের প্রভাব কমে যেতে পারে। কিন্তু এখন যারা ক্ষমতায় আছে তারা ক্ষুদ্র স্বার্থ গোষ্টি। সাধারণ মিয়ানমারদের এত কোনো লাভ নেই একটি সংঘর্ষপূর্ণ পরিবেশ তৈরি করে রাখার। যদি চীন এটি করে দেয় তাদের চীনের ওপর সহনশীলতা আরো বাড়বে। আর এটি সব পক্ষের জন্যই মঙ্গল হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি