[bangla_day],[english_date]


লিবিয়ায় অভিবাসী আটক কেন্দ্রে বিমান হামলায় নিহত ৪০


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
03.07.2019

ডেস্ক রিপোর্ট :

লিবিয়ার সাবেক স্বৈরশাসক কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির ঘনিষ্ঠ সহচর খালিফা হাফতার নেতৃত্বাধীন বাহিনীর হামলায় দেশটির রাজধানী ত্রিপোলিতে একটি অভিবাসী বন্দিশালায় এক বিমান হামলায় অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে আরো ৮০ জন। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলা আশঙ্কা করা হচ্ছে। দেশটির ত্রিপোলি ভিত্তিক সরকারের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার গভীর রাতে ত্রিপোলির তাজুরা জেলায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় নিহতের বেশিরভাগই আফ্রিকান অভিবাসী।

জরুরি সেবা বিভাগের মুখপাত্র ওসামা আলি সংবাদ সংস্থা এএফপিকে জানান, তজুরা এলাকার একটি ভবনে ১২০ অভিবাসী ছিলেন, সেখানেই ওই হামলার ঘটনা ঘটে। মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানান ওসামা।

এদিকে, লিবিয়ার জাতিসংঘ সমর্থিত ত্রিপোলি ভিত্তিক জাতীয় সরকারের (জিএনএ) প্রধানমন্ত্রী ফায়েজাল-সেরা এ হামলার ঘটনায় ‘যুদ্ধাপরাধী খলিফা হাফতার’ নেতৃত্বাধীন সরকারবিরোধী লিবিয়ান ন্যাশনাল আর্মিকে (এলএনএ) দায়ী করেছেন।

বর্তমানে তজুরা এলাকায় খলিফা হাফতারের নেতৃত্বে এলএনএ বাহিনী সরকার অনুগত বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করছে। হামলার শিকার অভিবাসী আটক কেন্দ্রটি ওই এলাকাতেই।

এর আগে ত্রিপোলির বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানো হবে বলে ঘোষণাও দেয় এলএনএ। যদিও বাহিনীটির একজন মুখপাত্র জানান, তাঁরা ওই অভিবাসী আটক কেন্দ্রে হামলা চালাননি।

সম্প্রতি ইউরোপে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের জন্য লিবিয়া হয়ে উঠেছে এক সহজ গমনপথ। দেশটির উপকূলীয় অঞ্চল থেকে ইউরোপের দূরত্ব কম হওয়ায় এ পথ ব্যবহার করতে তৎপর মানবপাচারকারী ও অভিবাসনপ্রত্যাশীরা। ফলে অবৈধ উপায়ে এ পথে যাত্রা করা হাজার হাজার অভিবাসীকে বিভিন্ন বন্দি কেন্দ্রে আটকে রেখেছে লিবিয়া সরকার। বন্দিশালাগুলোর সার্বিক অবস্থা মানবেতর বলে দাবি মানবাধিকার সংগঠনগুলোর।

২০১১ সালে লিবিয়ার দীর্ঘদিনের শাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফির ক্ষমতাচ্যুতি ও নিহত হওয়ার পর থেকে দেশটিতে রাজনৈতিক অস্থিরতা ও সহিংসতা বিরাজ করছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি