সোমবার,২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং
  • প্রচ্ছদ » খেলা » বিশ্ব ক্রিকেটের কাছে এবারের বাংলাদেশ দুটি কারণে বিস্ময়


বিশ্ব ক্রিকেটের কাছে এবারের বাংলাদেশ দুটি কারণে বিস্ময়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১১.০৭.২০১৯

স্পোর্টস ডেস্কঃ

কোনো কোনো প্রশ্নে এমন তাচ্ছিল্য মিশে থাকে যে উত্তর দিতে যাওয়ার মানে নেই। এমন প্রশ্নের উত্তরে সলজ্জ হাসির বেশি কিছু করা যাচ্ছে না। সেই হাসিটা বারবার দিয়ে ক্লান্ত হয়ে যেতে হচ্ছে।

বিশ্ব ক্রিকেটের কাছে এবারের বাংলাদেশ দুটি কারণে বিস্ময়। প্রথম কারণ, আন্তর্জাতিক মহল বাংলাদেশের কাছে এমন ক্রিকেট আশা করেনি।

দ্বিতীয় বিস্ময়, বাংলাদেশের এই মরিয়া প্রতিক্রিয়া। যখন বিশ্বকাপ শেষ হয়নি, অন্য সব দেশ যখন নিজেদের পর্যালোচনায় সময় নিচ্ছে, তখন বাংলাদেশের ব্যস্ততায় মনে হচ্ছে কয়েক দিন পরই আরেকটি বিশ্বকাপ। কোচিং স্টাফদের ঝেঁটিয়ে বিদায় না করলে সেই বিশ্বকাপ জেতা হবে না।

পরশু কপিল দেবের সঙ্গে কথা হচ্ছিল। তিনি প্রশংসায় ভাসিয়ে দিলেন বাংলাদেশ দলকে। তাঁর মতে, সেই দিন আর বেশিদিন দূরে নয় যেদিন বাংলাদেশ বিশ্ব ক্রিকেটের শীর্ষে পৌঁছে যাবে। সৌরভ গাঙ্গুলিও মনে করেন, বাংলাদেশ দারুণ খেলেছে। কিছু জায়গায় সামান্য যোগ-বিয়োগ করলে এই দলই হয়ে উঠতে পারে অপ্রতিরোধ্য। ভি ভি এস লক্ষ্মণ সেদিন লিফটে খুব প্রশংসা করলেন বাংলাদেশ দলের। একটা ব্যাপারই তাঁর কাছে ঠিক মেলে না। মাহমুদ উল্লাহকে কেন এত নিচে নামানো হয়। এ রকম ছোটখাটো ত্রুটি-বিচ্যুতি নিয়ে কথা আছে। আছে শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া নিয়েও, কিন্তু মোটা দাগে এই বিশ্বকাপের বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক স্তরের কাছ থেকে যে সম্মান কুড়িয়েছে তা অভূতপূর্ব। অথচ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রতিক্রিয়া ঠিক তার বিপরীত। কেন এমন হচ্ছে?

আগে মেনে নিই, আন্তর্জাতিক অঙ্গনের তুমুল প্রশংসায় পুরোপুরি ভোলা ঠিক হবে না। এরা সবাই যে বাংলাদেশের খুব খবর রাখেন এমন নয়। পরশু দিন কপিল জানালেন, বাংলাদেশে ফুটবল খুব জনপ্রিয়! তবে ইদানীং যে ক্রিকেটও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এটা তাঁর খুব ভালো লাগছে। বাংলাদেশের বাস্তবতার সঙ্গে অবিশ্বাস্য এমন ধারণাও তাই ছড়িয়ে গেছে। এবং এঁদের অনেকের কাছেই বাংলাদেশের চেয়ে আফগানিস্তানই ছিল বেশি সম্ভাবনাময় দল। কারণও পরিষ্কার। আমরা যেভাবেই দেখি না কেন, সব দেশের সেরা ক্রিকেটার খেলেন বলে আইপিএলকে একটা সাধারণ পাল্লা ভেবে নিচ্ছে ক্রিকেট দুনিয়া। সেখানে আফগানিস্তানের ক্রিকেটার বাংলাদেশের চেয়ে বেশি। তুলনামূলক উজ্জ্বল পারফরম্যান্স। তার ভিত্তিতেই ওঁদের ধারণা সাকিব ছাড়া বাংলাদেশের বাকি দল এমন কিছু নয়। এই বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ প্রায় সাকিবসর্বস্ব, তবু শেষ পাকিস্তান ম্যাচটি বাদ দিলে কোনো ম্যাচেই তো বাংলাদেশ বিধ্বস্ত হয়নি। বোলিংকে খুব নির্বিষ দেখিয়েছে, কিন্তু এই টুর্নামেন্টেই তো বাংলাদেশ নিজেদের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড দুইবার ভেঙেছে। আর তাই ওঁদের কাছে এবারের বাংলাদেশ সবচেয়ে বড় চমক। অতটা আসলে ওঁরা কেউ ভাবেননি। এই না ভাবাতে বাংলাদেশের কৃতিত্ব আছে, আছে ওঁদের ভুলভাল পূর্ব ধারণা। আর ওদের প্রত্যাশা ছাপিয়ে গেছে বলে যত নয়, ক্ষেত্রবিশেষে ততটা বা তার চেয়েও বেশি প্রশংসিত বাংলাদেশ দল।

এবার দেখি উল্টো পিঠটা। বাংলাদেশের প্রত্যাশা এবং প্রাপ্তির সমীকরণ। প্রথমত, আমাদের প্রত্যাশাটা ঠিক কী ছিল, এটা বুঝতে হবে। সেমিফাইনাল খেলা! কিসের ভিত্তিতে। র‍্যাংকিংয়ে কি আমরা প্রথম চারের মধ্যে ছিলাম। ছিলাম না। তাহলে কিভাবে ধরেই নেই যে সেমিফাইনাল খেলব। বরং বাংলাদেশ দল শুরুর পারফরম্যান্সে সেই যে প্রত্যাশা জাগিয়েছিল সেটাই কি তাদের জন্য কাল হলো। মাঝেমধ্যে আবার মনে হয় উল্টা হলেও বোধহয় এত সমস্যা হতো না। শুরুতে কয়েক ম্যাচ হেরে যাওয়া এবং শেষ দিকে জেতা—তাহলে বোধ হয় মূল্যায়নটা হতো অন্য রকম। আমাদের সাধারণ জীবনচর্চা কিংবা ক্রিকেটচর্চায় শেষটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ব্যর্থতায় আমাদের শেষ, আর তার রেশ এত বিস্তৃত হয়ে গেছে যে শুরুর দিকের সাফল্যটা যেন ঘটেইনি। যেন সেটা করেছে অন্য কোনো দল।

বাংলাদেশ অষ্টম হয়েছে, এটা কোনো কৃতিত্ব নয়। বরং সামগ্রিক হিসাবে সমালোচনার যথেষ্ট সুযোগ আছে। কিন্তু কর্তা বা অধীর সমর্থকরা যে কারণে ধৈর্য হারাচ্ছেন সেই সাময়িকতায় নয়, বৃহত্তর দৃষ্টিতে ব্যর্থতা আছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের। বাংলাদেশে ক্রিকেট যেভাবে চর্চিত হয়, যে সুযোগ এবং সম্ভাবনা এই দেশে, যে ভালোবাসা আর তারকাখ্যাতি পান ক্রিকেটাররা সেই তুলনায় গেলে মনে করি, বাংলাদেশের এখন সেরা চারে থাকা উচিত। ভারত ছাড়া কোথাও এত আবেগ নেই ক্রিকেটকে ঘিরে। খোদ ইংল্যান্ডের যা ক্রিকেটপ্রেম বাংলাদেশে এর কয়েক শ গুণ বেশি। এই দলকে অষ্টম স্থানে মানায় না। কিন্তু সেটার জন্য এবারের বিশ্বকাপ মিশন এবং এর কোচিং স্টাফ বা খেলোয়াড়দের দায় দিলে চলবে না। এর দায় আরো অনেকের, যারা ক্রিকেটের তুচ্ছ সাফল্যে মেতে উঠি। সাফল্যের অতি উচ্ছ্বাস এবং ব্যর্থতার অতিরিক্ত হাহাকারে আসলে সঠিক অবস্থানটাই নির্ণীত হচ্ছে না। এবারও যেমন হবে না। হেড কোচকে বিদায় করা, কোচদের দলে দলে বিদায় করাতে পুরো ফোকাসটা অন্য দিকে চলে যাচ্ছে। মনে হচ্ছে এঁরাই ছিলেন নষ্টের গোড়া। গেছে। এখন সব ঠিক হয়ে যাবে। এরপর শ্রীলঙ্কায় একটি-দুটি ম্যাচ জিতলেই মনে হবে সব হয়ে গেছে। এখনকার সমালোচনা তখন এমন প্রশংসায় রূপ নেবে যে আর দীর্ঘ মেয়াদে কিছু ভাবার দরকারই হবে না। অথচ দীর্ঘমেয়াদি ভাবনা হওয়া উচিত সেটা, যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকায় ক্রিকেটের সে অর্থে কোনো কদর নেই তাদের চেয়ে কিভাবে আমরা এগোতে পারি। সামগ্রিক মানে কিভাবে ওদের ছাড়িয়ে যাওয়া যায়।

বাংলাদেশ খেলবে এই আশায় সেমিফাইনাল খেলবে ভেবে বসেছিলেন অনেকে। টিকিটটা নষ্ট করতে চান না বলে খেলা দেখতে এসেছেন। আরো যাঁরা আছেন তাঁদের সঙ্গেও কথা হচ্ছে মাঝেমধ্যে। তাঁদের মধ্যে হতাশা আছে কিন্তু কেউই দেখি এমন মনে করছেন না বাংলাদেশ মহাভারত অশুদ্ধ করে ফেলেছে। তাহলে বাংলাদেশ বোর্ড এত মরিয়া কেন? শুনলাম জনতার প্রতিক্রিয়া। ঢাকার রাস্তায় কি মিছিল হচ্ছে? মানববন্ধন। খেলোয়াড়দের কুশপুত্তলিকা দাহ! তাহলে জনপ্রতিক্রিয়ায় তীব্রতাটা কোথায় পাওয়া গেল। ফেসবুক! ও, আচ্ছা। সত্যি বললে ফেসবুকে সমালোচনা আছে কিন্তু সেখানে কোন বিষয়টা নিয়ে সমালোচনা হয় না। আর ফেসবুকে কিছু মানুষের সমালোচনা মানে এই নয় যে গোটা দেশ তা-ই মনে করছে। মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশে সেসব মানুষই সরব থাকে যারা বিরুদ্ধে থাকে। পক্ষে যারা তারা সাধারণত নীরব থাকে। কারণ, বাংলাদেশে বিপক্ষে কিছু লিখলেই বাজার গরম করা যায়। পক্ষের জনমত তাই সাধারণত নীরব। ফলে এই নীরব জনগোষ্ঠীকে বিবেচনায় আনা হয় না। যে কিছু শতাংশ মানুষ সরব তাদের মধ্যেও সবাই যে দুনিয়া উল্টে গেছে বলে হাহাকার করছে তাও তো নয়। তাহলে! এত ব্যস্ততা কেন? ‘দ্রুতলয়ের বিচার আসলে বিচারকে কবর দেওয়ারই নামান্তর’ বিচারের সেই পুরনো বাণীটাও মিথ্যা হয়ে যাচ্ছে তাই।

একদিক থেকে অবশ্য ভালোই হয়েছে। এই কাণ্ডে বাংলাদেশ এখনো বিশ্বকাপে টিকে আছে। হাসি-তামাশা কিছু হচ্ছে। কিন্তু কেউ কেউ তো মনে করে, হাস্যকর হওয়াটাও কৃতিত্বের বিষয়। লোকে হাসল। কিন্তু চিনলও তো।

আমাদের চেনাও অবশ্য এখন বিশ্ব ক্রিকেটের জন্য কঠিন হয়ে যাচ্ছে। চিরন্তন ক্রিকেট চিন্তা আর আমাদের ক্রিকেট বোধ—দুটি যে দুই দিকে বেঁকে যাচ্ছে ক্রমশ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি