সোমবার,২৬শে আগস্ট, ২০১৯ ইং


ঈদ আনন্দে নাড়ির টানে বাড়ি


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৯.০৮.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে মানুষ। প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে শত বাধা উপেক্ষা করে চলেছেন তাঁরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে সরকারি অফিস-আদালত বন্ধ হয়েছে। গতকালই অনেক মানুষ রাজধানী ছেড়ে গেছেন। সেই ধারা অব্যাহত আছে আজ শুক্রবারও। যাঁরা গতকাল যাত্রা করেননি, মূলত তাঁরাই আজকে ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছেন।

সকালে রাজধানীর প্রধান সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে মানুষের উপচেপড়া ভিড়। এখান থেকে মূলত বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, ঝালকাঠি, চাঁদপুর, শরীয়তপুর, বরগুনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের লঞ্চগুলো ছেড়ে যাচ্ছে।

ভোর থেকেই মানুষ লঞ্চে নিজের জায়গা পেতে ব্যস্ত সময় পার করছে। যাঁরা জায়গা পেয়েছেন, তাঁরা এখন অপেক্ষা করছেন লঞ্চ ছাড়ার। তবে চাঁদপুর ও শরীয়তপুরের লঞ্চগুলো ছেড়ে যাচ্ছে। এসব লঞ্চে তিল ধারণের জায়গা ছিল না।

মানিকগঞ্জ থেকে আহমেদ সাব্বির সোহেল বলেন, দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলমুখী যানবাহনের চাপ বাড়তে শুরু করেছে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ফেরিঘাটে। যাত্রীবাহী বাস ও ব্যক্তিগত গাড়ির সারি থেমে থেমে দীর্ঘ হচ্ছে। তবে যাত্রী ভোগান্তির বিষয়টি বিবেচনা করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করা হচ্ছে এসব যানবাহন।

আজ শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় ছিল তিন শতাধিক যানবাহন। এগুলোর অধিকাংশ হচ্ছে ঢাকায় গরু দিয়ে ফিরে যাওয়া খালি ট্রাক, ব্যক্তিগত ছোট গাড়ি ও দূরপাল্লার বাস।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মহিউদ্দিন রাসেল বলেন, ঈদে ঘরমুখো মানুষের চাপ বাড়তে শুরু করেছে পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায়। ভোর থেকেই ব্যক্তিগত ছোট গাড়ির বেশ চাপ রয়েছে। থেমে থেমে দীর্ঘ হচ্ছে বাস ও ছোট গাড়ির সারি। তবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নৌরুট পারাপার করা হচ্ছে এসব যানবাহন।

এ ছাড়া এই নৌপথে পারাপারের অপেক্ষায় দুই শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাকের সারি রয়েছে। গরু বহনকারী খালি ট্রাক ছাড়া অন্যান্য ট্রাক পারাপার বন্ধ রয়েছে। ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ কমে গেলে ওই সব ট্রাক পার করা হবে।

ঈদে যাত্রী ও যানবাহন পারাপারে ছোট-বড় মিলে ১৯টি ফেরি চলাচল করছে। তবে পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোতে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় ভোগান্তি বাড়ছে বলে জানান ম‌হিউদ্দিন রাসেল। সেল।

মুন্সীগঞ্জ থেকে মঈনউদ্দিন সুমন জানিয়েছেন, দুদিন পর বৈরী আবহাওয়া কাটিয়ে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌপথে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল থেকে সেখানে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়। এই পথে সকাল থেকে ১৮টি ফেরি চলাচল করছে। এ ছাড়া এ ঘাট থেকে ৮৭টি লঞ্চ ও দুই শতাধিক সি-বোট দিয়ে যাত্রীরা দিয়ে পদ্মা পারি দিচ্ছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) আবদুল আলিম বলেন, গত বুধবার সকাল থেকেই ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছিল। এ দুদিন মাঝেমধ্যে দু-একটি ফেরি চললেও তা দিয়ে শুধু মানুষ পারাপার করতে হয়েছে। খুব সীমিত আকারে গাড়ি পার হয়েছে। এমনিভাবেই কয়েক দফা ফেরি বন্ধ আবার চালু রাখতে হয়েছিল। সকাল থেকে ছোট গাড়ি ও দেড় হাজার মোটরসাইকেল পার হয়েছে।

সকাল ১০টার দিকে ঘাট এলাকায় ছোট-বড় মিলিয়ে নয় শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় ছিল।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি