সোমবার,২৬শে আগস্ট, ২০১৯ ইং


ভারতকে চাপে ফেলতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী চীন সফরে 


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৯.০৮.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ
কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলে ভারতের সিদ্ধান্ত পাল্টাতে দেশটির ওপর চাপ প্রয়োগ করতে চীন সফরে রয়েছেন পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরাইশি। নিউ ইয়র্ক টাইমস ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

শুক্রবার তিনি চীনা নেতাদের সঙ্গে কাশ্মীর সংকট নিয়ে আলোচনায় বসবেন। বেইজিংয়ের উদ্দেশে বিমানে ওঠার আগে কুরাইশি বলেন, ইসলামাবাদের আস্থাভাজন বন্ধু দেশ চীনকে তিনি কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে অবহিত করবেন।

বেইজিংয়ে তাকে চীনে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত নাগমানা হাশমি ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা স্বাগত জানিয়েছে। অধিকৃত কাশ্মীর সংকট ও দক্ষিণ এশিয়ার বর্তমান পরিস্থিতিতে কুরাইশির এই সফরকে গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হচ্ছে।

ভারতের ক্ষমতাসীন উগ্র হিন্দুত্ববাদী সরকার কাশ্মীরের সাংবিধানিক বিশেষ স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা কেড়ে নেয়ার পর দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

এদিকে কাশ্মীরের বিশেষ স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নেয়ায় ভারতের বিরুদ্ধে কোনো সামরিক পদক্ষেপে যাবে না পাকিস্তান। কেবল প্রতিবেশী দেশটির বিরুদ্ধে কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক পদক্ষেপের মধ্যেই সীমিত থাকতে চাচ্ছে তারা।

যদিও ভারতীয় সেনাবাহিনী কাশ্মীরকে সস্পূর্ণ অচল করে রাখায় হিমালয় অঞ্চলটিতে উত্তেজনা এখনো চরমে।

এক বিবৃতিতে পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরাইশি দক্ষিণ এশীয় দুই প্রতিবেশীর মধ্যে সর্বাত্মক লড়াইয়ের আশঙ্কা দূর করে দিয়েছেন।

অথচ দুই দেশের মধ্যকার তিনটি যুদ্ধের দুটিই বেধেছে এই কাশ্মীর নিয়ে। কিন্তু যখন যুদ্ধ সংঘটিত হয়, তখন এই দুই দেশের কারও হাতে পারমাণবিক অস্ত্র ছিল না।

গত সোমবার কাশ্মীরের বিশেষ স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নেয়া ভারত সরকার। রাজ্যটিকে সরাসরি কেন্দ্রীয় শাসনের অধীনে নিয়ে আসলে পাকিস্তানের সঙ্গে শত্রুতা আরও গভীর হয়।

কীভাবে কাশ্মীরে ভারতীয় পদক্ষেপের জবাব দেয়া হবে, তা নিয়ে কয়েক দিন বেশ বিতর্ক চলে। পরবর্তী সময়ে এমন সিদ্ধান্ত এসেছে।

ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে কুরাইশি বলেন, পাকিস্তান কোনো সামরিক বিকল্প দেখছে না। পরিস্থিতি মোকাবেলায় তার চেয়ে বরং আমরা রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও আইনি পদক্ষেপগুলোর কথাই বেশি ভাবছি।

ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতির সিদ্ধান্তের পরই কুরাইশির এমন মন্তব্য এসেছে। ইতিমধ্যে নয়াদিল্লির সঙ্গে বাণিজ্যিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থগিত করেছে ইসলামাবাদ।

পাকিস্তান অবশ্য বিষয়টি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে উপস্থাপনের কথা বলেছে। যদিও দেশটির সামরিক বাহিনী বলেছে, তারা কাশ্মীরিদের পাশে থাকবে।

বৃহস্পতিবার ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, পাকিস্তান সমর্থিত সন্ত্রাসবাদের অবসান ঘটাতে কাশ্মীরের স্বায়ত্বশাসন কেড়ে নেয়া জরুরি ছিল।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি