সোমবার,২৬শে আগস্ট, ২০১৯ ইং


ঈদযাত্রায় সড়ক, জল ও রেলপথে যাত্রীদের চরম ভোগান্তি


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১০.০৮.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ঈদ যাত্রায় ঢাকা ছেড়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে মানুষ। এমন বাড়ি ফেরায় ভোগান্তিতে ক্ষুব্ধ অনেকেই।বিমান, রেল,লঞ্চও সড়কপথে দীর্ঘ যানজটের কারণে ঘরমুখো মানুষ যথাসময়ে গন্তব্যে পৌঁছাতে সময় লাগছে নির্ধারিত সময়ের চেয়ে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা বেশি। রেলপথেও রয়েছে ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়।

শনিবার (১০ আগস্ট) সরেজমিনে গেলে এ চিত্র লক্ষ তকরা যায়। তবে এ পর্যন্ত কমেনি সড়ক, জলপথ ও রেলের ভোগান্তি। এদিকে লঞ্চের সিডিউল ঠিক থাকলেও এবার কোনো যাত্রীকে মটর সাইকেল লঞ্চে তুলতে দেয়া হয়নি।

গাইবান্ধাগামী আল হামলা পরিবহনের বাস যাত্রী কলেজ শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান দৈনিক জাগরণকে জানান,শনিবার সকাল সোয়া ১০টার বাসের টিকিট নেয়া।কিন্তু বেলা ১১টা বাজলেও বাসের কোনো খোঁজ নেই। তিনি বলেন, কাউন্টার থেকে তিনি জানতে পারেন, যে বাসে যাবেন ওই বাস সকাল ১০টায় গাইবান্ধা থেকে রওয়ানা হয়েছে। ঢাকায় আসার পর বাসটি আবার গাইবান্ধার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। এরকম অসংখ্য যাত্রীর অভিযোগ রয়েছে।

গাবতলীতে আল হামরা ক্উান্টারের ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন জানগরণকে জানান, রাস্তায় যানজট থাকায় বাসগুলো ঢাকায় ঢুকতে বিলম্ব হচ্ছে। তাই যথা সময়ে বাস ছাড়া যাচ্ছে না। ৮-১০ ঘণ্টা বিলম্ব হচ্ছে। বাস ফিরতে বিলম্ব হওয়ায় নিরুপায় হয়ে যাত্রীদের টাকা ফেরত দেয়া হচ্ছে।

জানা যায়,ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে রয়েছে দীর্ঘ যানজট। পাটুরিয়া ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় কয়েক’শ যানবাহন। কমলাপুর থেকে বিলম্বে ছেড়ে যাচ্ছে প্রতিটি ট্রেন। শুক্রবার কমলাপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া প্রত্যেকটি ট্রেনই সর্বোচ্চ ৫ থেকে ৬ ঘণ্টা দেরিতে ছেড়েছে। এছাড়া ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়। এতে করে উত্তর বঙ্গের সঙ্গে ঢাকার রেলযোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায় । যদিও সাড়ে তিন ঘণ্টা পর ওই রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

কাউন্টারে বাসের জন্য যাত্রীদের অপেক্ষা
শুক্রবারের ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় নিয়ে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন সাংবাদিকদের বলেন, পশ্চিমাঞ্চলের প্রতিটি ট্রেনকে বঙ্গবন্ধু সেতু অতিক্রম করে যেতে হয়। সেতু অতিক্রম করতে প্রতিটি ট্রেনের ৩০ থেকে ৪০ মিনিট করে বেশি সময় লাগে। এভাবে প্রতিদিন ৩২টি ট্রেন চলাচল করছে। যার ফলে শিডিউল ঠিক রাখা যাচ্ছে না।

এদিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যানজটের কারণে ধীর গতিতে চলছে যানবাহন। শুক্রবার রাতে এই মহাসড়কের উভয় পাশে ৭০ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজট ছিলো । দুপুরে ছিলো প্রায় ৩০ কিলোমিটার। বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম ও পূর্বপ্রান্তে যানবাহনের চাপ বেশি ছিল। গাজীপুর জয়দেবপুর থেকে ময়মনসিংহ মহাসড়কে যানবাহনের চাপের পাশাপাশি যানজটও বেড়েছে। চালকরা জানিয়েছেন, টঙ্গী থেকে জয়দেবপুর পর্যন্ত প্রায় ১৩ কিলোমিটার সড়ক জুড়েই চলছে একটি প্রজেক্টের কাজ। তাই এই ১৩ কিলোমিটার সড়কই খানাখন্দে ভরা। দ্রুত গতির বাসগুলো ধীরে ধীরে চলছে। দিনভর সাভারের তিন সড়কে দীর্ঘ যানজটের অবসান ঘটে বিকাল চারটার পর। এর আগে সকাল থেকেই ঢাকা- আরিচা, নবীনগর-চন্দ্রা ও টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কে ২১ কিলোমিটার যানজট ছিল।

ঈদে ঘরমুখো মানুষের চাপে দক্ষিণ বঙ্গের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার শিমুলিয়া ঘাটে যানবাহনের চাপ বাড়ছে। বৈরি আবহাওয়ার কারণে বৃহস্পতিবার থেকে এমন চাপ বাড়ছে। সহস্রাধিক যানবাহন নদী পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। নদী উত্তাল থাকায় ছেড়ে যাওয়া লঞ্চগুলো ধীরে ধীরে চলছে।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে এশিয়ান হাইওয়ে (বাইপাস) সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত এ সড়কের কাঞ্চন সেতু থেকে গোলাকান্দাইল পর্যন্ত কমপক্ষে ৯ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যানজটে ভোগান্তিতে পড়েছেন গরুবোঝাই ট্রাক, দূরপাল্লার বিভিন্ন পণ্যবাহী যানবাহনসহ ঈদে ঘরমুখো যাত্রী সাধারণ।

সম্পাদনা: তানজিনা রুমকী



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি