রবিবার,২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং


আগুনে সব হারিয়ে এখন মিরপুর বস্তিতে থাকা নিয়েই শঙ্কা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.০৮.২০১৯

পূর্বাশা ডেস্ক:

ঈদের আমেজ তখনো কাটেনি মিরপুরের রূপনগরের চলন্তিকা মোড়ের বস্তির বাসিন্দাদের। ছেলেমেয়েদের কোলাহল, সারা দিন বিভিন্ন বিনোদনকেন্দ্রে ঘুরে আসা বাসিন্দাদের চিৎকার-চেঁচামেচিতে সরগরম ছিল বস্তিটি। অনেকেরই ঘরে ফ্রিজ, কাঠের আসবাবপত্র, সোনার গহনা, নগদ টাকাসহ নানা মূল্যবান সামগ্রী ছিল।

হাজার হাজার ঘরের মধ্যে কিছু বাসিন্দা বাড়িতে ঈদ করতে গেছেন, কিছু বাইরে গেছেন- ঠিক সেই সময়টাতেই সন্ধ্যার মুহূর্তে আগুন লাগে বস্তিতে। যে যেভাবে পারেন জীবন বাজি রেখে বেরিয়ে আসেন। তিন ঘণ্টা পর যখন আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে, তখন দেখা যায়, সেখানে কোনো ঘর নেই, পড়ে আছে শুধু পোড়া টিন, কাঠ আর কয়লা। মুহূর্তের মধ্যে প্রায় পুরো বস্তিটাই গিলে ফেলেছে আগুনের লেলিহান শিখা।

আজ শনিবার সকালে অগ্নিকাণ্ডের প্রায় ১২ ঘণ্টা পর গিয়ে রূপনগর থানার পেছনের এই বস্তি ঘুরে এবং সেখানকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে এমনটি জানা গেছে। এটি নাশকতা নাকি দুর্ঘটনা এ নিয়ে বস্তির বাসিন্দাদের কেউ প্রকাশ্যে কোনো কথা বলছেন না। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নাশকতার কোনো অভিযোগ তাদের কাছে নেই।

বস্তিটিতে ২০ থেকে ২২ হাজার ঘর ছিল বলে জানান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র। কেউ কিছুই বের করতে পারেনি। অধিকাংশ মানুষ রাতে যে কাপড়ে ছিল সেই কাপড়েই আছে এখনো। যার যেখানে ঘর ছিল সে সেখানেই দাঁড়িয়ে ঘর দেখছে আর কাঁদছে। এসব মানুষের এখন একটাই শঙ্কা, তাঁরা আবার এই বস্তিতে থাকতে পারবে কি না।

বস্তির বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা একেবারেই নিঃস্ব হয়ে গেছে। থাকার কোনো জায়গা নেই। খাওয়ার কিছু নেই। সারা রাত সবাই রাস্তায় কাটিয়েছে। আজ রাতে কোথায় ঘুমাবে সেটাও জানে না তারা। এই বস্তিতে তাদের আর থাকতে দেওয়া হবে কি না, সেটাও তারা জানে না।

নিজের ঘরের পোড়া টিনের উপর দাঁড়িয়ে কান্না করছিল রোমানা আক্তার, সে একটি স্কুলে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে। সে বলছিল, ‘আমার অনেক কবুতর ছিল, সব উড়ে গেছে। আমাদের ঘর পুড়ে গেছে। আমার বই-খাতাও পুড়ে গেছে। এখন কই থাকব জানি না। আমরা গরিব আর ঘরবাড়ি বানাতে পারবে না আব্বু। আমাদের সব শেষ।’ বলতে বলতে কাঁদছিল রোমানা।

বাবুল ভাণ্ডারিও (৫০) নিজের পোড়া ঘরের ওপর দাঁড়িয়ে বিলোপ করতে করতে বলছিলেন, ‘আমার সব শেষ। আমার মুদির দোকান আছে। ঈদের বেচাকেনা করে এক লাখের মতো টাকা রাখছিলাম ঘরে। কষ্টের টাকা আমার ছাই হয়ে গেছে। ঘরে দোকানের অনেক মাল ছিল তাও পুড়ে গেছে। ফ্রিজ ছিল, এক ভরি স্বর্ণ ছিল, জামা-কাপড়, হাড়ি-পাতিল সব ছিল, কিছুই বের করতে পারিনি। সব পুড়ে শেষ। শুধু টিন আছে।’

জানতে চাওয়া হলে বাবুল ভাণ্ডারি আরো বলেন, ‘সবার আগে ফরিদের ঘরে আগুন লাগে। কারেন্টের তারে আগুনডা ধরে। আগুনের কথা ফরিদকে জানালে সে দ্রুত ঘরে ঢুকে যায়। তারপর আগুন নেভানোর জন্য নাকি বাড়ানোর জন্য জানি না, ঘরের গ্যাস সিলিন্ডার আগুনে ছুড়ে মারছে সে। তারপর আগুন দাও দাও করে জ্বলে উঠেছে। এই ফরিদ বস্তিতে বাবাখোর (ইয়াবাসেবনকারী) হিসেবে পরিচিত। আগেও একবার বউয়ের সঙ্গে গণ্ডগোল করে বস্তি জ্বালায়ে দিবার চাইছিল সে।’

নিজের ঘরের পোড়া টিনের উপর দাঁড়িয়ে ছিলেন আছিয়া বেগম। তিনি বলেন, ‘ঘর থেকে যে একটা পানি খাবার মগ নিমু তাও পারিনি। শুধু পরনের কাপড় আর বাচ্চাগোর জীবন নিয়ে বের হয়ে গেছি। রাতে আগুন নেভার পর আইসা দেখি আমগোর কিছুই নাই। সব পুইড়া শ্যাষ।’

শরিফ নামের এক বাসিন্দা বলেন, ‘আমি রিকশা চালাই। এক মেয়ে আছে ছোড। আমার সব শ্যাষ। আমি কই থাকবো, কই যাব কিছুই জানি না। আমার মেয়ে কাইল রাত থেকে কানতাছে। একটা কাপড়ও নাই তার। ঘরে চাইল নাই। খাবো কী? আমাদের মইরা যাইতে অইব এইবার।’

তিন ঘণ্টা চেষ্টার পর ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ততক্ষণে পুড়ে ছাই হয় পুরো বস্তি।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক (অপারেশন্স অ্যান্ড মেইনটেন্যান্স) লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান বলেন, বস্তির মধ্যে যে ঘরবাড়ি ছিল সেগুলো অস্থায়ী প্রকৃতির। মূলত বাঁশ ও কাঠ দিয়ে তৈরি। এগুলোতে আগুন লাগলে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। সবাই একসঙ্গে কাজ করায় অতি দ্রুততম সময়ে মধ্যে আগুন নেভানো সম্ভব হয়েছে।

তবে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত কীভাবে তা তদন্তের পরই বলা যাবে বলে সাংবাদিকদের জানান ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা।

 



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি