রবিবার,২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং


ঈদের সময় দুর্ঘটনায় নিহত ২৫৩, আহত ৯০৮


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.০৮.২০১৯

পূর্বাশা ডেস্ক:

সারা দেশে এবার ঈদের বাড়ি ফেরার যাত্রার মত মনিটরিং যদি ঈদের পরেও করা হতো তবে দুর্ঘটনা অনেকাংশে এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হতো বলে মনে করে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

রোববার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সংস্থাটির এবারের ঈদ যাত্রায় সংগঠিত দুর্ঘটনা নিয়ে করা প্রতিবেদন নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য জানিয়েছেন সংস্থাটির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী।

সংস্থাটি জানিয়েছে, পবিত্র ঈদুল আজহায় সড়ক, রেল ও নৌপথে ২৪৪টি দুর্ঘটনায় মোট ২৫৩ জন নিহত এবং ৯০৮ জন আহত হয়েছেন।

এর মধ্যে পৃথকভাবে শুধু সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ২২৪ জন এবং আহতের সংখ্যা ৮৬৬ জন। তবে দুর্ঘটনা ও হতাহতের এই সংখ্যা গত বছরের তুলনায় কম।

ঈদের আগে ঈদ যাত্রায় দুর্ঘটনা কম হয়েছে উল্লেখ করে মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, ঈদের আগের চেয়ে ঈদের পরে ঢাকামুখী যানবাহনে দুর্ঘটনা বেশি হয়েছে। কারণ যানবাহন ও যানবাহনের চালকরা ঈদের এই কয়েকদিনে তেমন বিশ্রাম পায়নি।

তিনি আরও বলেন, ঈদের আগে মনিটরিংয়ে আমরা সবাইকে মাঠে দেখেছি। আমাদের সড়ক পরিবহনমন্ত্রী, পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মাঠে থাকায় সমস্ত কর্মকর্তাদের আমরা দৌড়ঝাঁপ করতে দেখেছি। কিন্তু ঈদের পরের দিন থেকে একই বিষয়ের উল্টোচিত্র আমরা লক্ষ্য করেছি। যে সময়ে কেউ ছিল না, সবাই যখন ঘরে ঢুকে পড়েছে তখন ফাঁকা মাঠে বেপরোয়া হয়েছে চালকরা। ঈদ যাত্রাপথে দুর্ঘটনায় প্রাণহানি এড়াতে ঈদের পরেও একই ধরনের মনিটরিং ব্যবস্থা গ্রহণ প্রয়োজন। তাহলে দুর্ঘটনার হার অনেক কমানো সম্ভব। কারণ ঈদের পরই দুর্ঘটনা বেশি হয়।

মোজাম্মেল হক চৌধুরী জানান, রাস্তাঘাটের পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতিসহ সার্বিক পরিকল্পনা গ্রহণের কারণে সড়ক দুর্ঘটনার হার ৬.৪০ শতাংশ, নিহত হওয়ার হার ৬.২৫ শতাংশ এবং আহত হওয়ার হার ১.৫০ শতাংশ কমেছে। এ বছর মোট সংগঠিত ২০৩টি সড়ক দুর্ঘটনার ৬৭টি ঘটেছে মোটরসাইকেলের সাথে অন্যান্য যানবাহনের সংঘর্ষে, যা মোট নিহতের সংখ্যার ৩৪.৩৭ শতাংশ এবং মোট আহতের ৮.৪২ শতাংশ।

অন্যদিকে পথচারীদের গাড়ি চাপা দেয়ার ঘটনায় দুর্ঘটনা ঘটেছে ৫২.২১ শতাংশ। আগামী ঈদে এই দুটি ঘটনা এড়ানো সম্ভব হলে সড়ক দুর্ঘটনা প্রায় ৮৫.২১ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

এবারের ঈদযাত্রার দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে রয়েছেন ৩৭ জন চালক, ৩ শ্রমিক, ৭০ জন নারী, ২২ জন শিশু, ৪২জন ছাত্র-ছাত্রী, ৩ জন সাংবাদিক, ২ জন চিকিৎসক, ৮ জন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, ৩ জন রাজনৈতিক নেতা।

সংগঠিত দুর্ঘটনা বিশ্লেষণে দেখা যায়, সংঘটিত দুর্ঘটনার ২৭.৪ শতাংশ ক্ষেত্রে বাস, ২৬.৩৩ শতাংশ ক্ষেত্রে মোটরসাইকেল, ১৬.৪ শতাংশ ক্ষেত্রে ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ড ভ্যান-লরি, ৭.৮২ শতাংশ ক্ষেত্রে কার-মাইক্রো, ১৩.৫২ শতাংশ ক্ষেত্রে অটোরিক্সা ৩.৫৫ শতাংশ ক্ষেত্রে নছিমন-করিমন, ৪.৯৮ শতাংশ ক্ষেত্রে ব্যাটারি চালিত রিকশা ও ইজিবাইক দুর্ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিলো।

সংগঠিত দুর্ঘটনার ২১ শতাংশ ক্ষেত্রে মুখোমুখি সংঘর্ষ, ৫২.২১ শতাংশ ক্ষেত্রে পথচারীকে গাড়ি চাপা দেয়ার ঘটনা, ১৭ শতাংশ ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ার ঘটনা ও ৯.৮৫ শতাংশ ঘটনা অন্যান্য অজ্ঞাত কারণে ঘটেছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিআরটিএ-এর সাবেক চেয়ারম্যান তাইবুর রহমান, যাত্রী অধিকার আন্দোলনের সভাপতি কেফায়েত শাকিল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সম্পাদনা: তানজিনা রুমকী



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি