বুধবার,২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং


মেছতা কেন হয়? উপশমের উপায় কী?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২২.০৮.২০১৯

পূর্বাশা ডেস্ক:

মেছতা নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকেন অনেকে। ত্বকের মধ্যে কালো কালো প্যাঁচের মতো বিষয় হলো মেছতা। গাল, চিবুক ইত্যাদি অংশে মেছতা হয়। মেছতা কেন হয়? এবং এটি দূর করার উপায় কী?

এ বিষয়ে  ডা. তাওহীদা রহমান ইরিন বলেছেন। বর্তমানে তিনি শিওর সেল-এর ডার্মাটোলজি বিভাগের পরামর্শক হিসেবে কর্মরত।

উত্তর : ত্বকের উজ্জ্বলতার বিষয় নিয়ে যদি কোনো রোগী আসে, এখানে ৮০ ভাগ রোগীই আসে মেছতা নিয়ে। কারণ, এ কালো দাগটি সৌন্দর্যহানিকর। এ ক্ষেত্রে অন্যান্য কারণের মধ্যে রয়েছে হরমোন। মেয়েদের প্রজনন বয়সে মেছতা বেশি হয়, গর্ভাবস্থায় বেশি হয়। শিশুর জন্মের এক থেকে দুই মাসের মধ্যে চলে যায়। এরপর রয়েছে কিছু ওষুধ। ওরাল কনট্রাসেপটিভ পিলের কারণেও মেছতা হয়ে থাকে। মেছতা যখন হয়, আমরা চিকিৎসা ব্যব্স্থায় প্রথম রোগীকে কাউন্সেলিং করি। এটি চলে যেতেও পারে। তবে গভীর লেয়ারে হলে না চলে যাওয়ার আশঙ্কা বেশি। তবে সুপার ফেসিয়াল বা মধ্যম লেয়ারে হলে পুরোপুরি চলে যায়। সে ক্ষেত্রে একটু লম্বা সময় ধরে চিকিৎসা করতে দওয়া হয়।

প্রথম চিকিৎসা হলো সানস্ক্রিন। সেই সানস্ক্রিন শুধু ট্রপিক্যাল সানস্ক্রিন নয়। ক্রিম বা লোশন নয়। ওরাল সানস্ক্রিনও কিন্তু এখন একটি বিষয় চলছে। এটি আধুনিক চিকিৎসা। আমরা নানা ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থেরাপি দিই। ত্বক উজ্জ্বল করি, সেখানে মেলাজমাকে প্রশমন করে সে ধরনের কিছু অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দিই। সেখানে আলফালেকয়েড এসিড, ভিটামিন সি, গ্লুটাথায়ন ও কো এনজাইম টেন ইত্যাদি আমরা দিয়ে থাকি। এখন কিন্তু অনেকে ওভার দ্য কাউন্টারে, এমনকি পার্লারেও এগুলো ব্যবহার করছে। আমার দর্শকদের কাছে অনুরোধ থাকবে, এ ধরনের চিকিৎসায় আপনারা একজন ত্বক বিশেষজ্ঞের কাছে যান। তিনি আপনার ত্বকের অবস্থা থেকে উপযুক্ত চিকিৎসাটি দিতে পারবেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি