সোমবার,১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং


অপরিকল্পিত উন্নয়নের বলি কুবি, হারিয়ে যাচ্ছে লাল পাহাড়ের ক্যাম্পাস


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৫.০৯.২০১৯

শাহাদাত বিপ্লব, কুবি:
‘লাল পাহাড়ের ক্যাম্পাস’ খ্যাত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) পাহাড় কেটে ভবন নির্মাণ এবং নিচু স্থান ভরাটের কাজ চলছে। এক্ষেত্রে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেওয়ার বিধান থাকলেও সেদিকে খেয়াল নেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। এতে করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য যেমন নষ্ট হচ্ছে তেমনিভাবে হুমকিতে পড়ছে পরিবেশের ভারসাম্য। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অপরিকল্পিত উন্নয়নের বলি হচ্ছে এসব পাহাড়। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও বিশিষ্টজনরা। তাদের অভিযোগ, ভবন নিমার্ণের সময় কর্তৃপক্ষ যথাযথভাবে পরিকল্পনা করলে পাহাড় না কেটেই উন্নয়ন করা সম্ভব ছিল।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের পশ্চিম পার্শ্বের পাহাড়ের একটি অংশ এক্সকাভেটর মেশিনের সাহায্যে কেটে সেই মাটি দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে নির্মাণাধীন সড়কদ্বীপ এবং ডরমেটরির নিচু স্থান ভরাট করা হচ্ছে। এতে করে যেকোন সময় পাহাড়টির অপরাংশ ধসে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে গত দুই বছরে শিক্ষকদের ক্লাব কাম গেস্ট হাউজ নির্মাণ এবং কেন্দ্রীয় মাঠ সম্প্রসারণের জন্য দুইটি পাহাড় আংশিক কাটতে দেখা যায়। এত করে বাকী অংশও ধীরে ধীরে ধসে পড়ছে।

বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ (সংশোধন) আইন ২০১০ এর ৬ এর ‘খ’ ধারা অনুযায়ী বলা হয়েছে ‘কোন পাহাড় বা টিলা কর্তন বা মোচন করা যাইবে না তবে অপরিহার্য জাতীয় স্বার্থের প্রয়োজন পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র গ্রহণ ক্রমে পাহাড় কর্তন করা যাবে।’ তবে ছাড়পত্রের বিধান থাকলেও পাহাড় কাটার বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পরিবেশ অধিদপ্তরের কুমিল্লা কার্যালয়ের উপ পরিচালক মো: কামরুজ্জামান সরকার বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যদি পাহাড় কর্তন করে থাকে তবে তারা পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন অনুমতি না নিয়ে এ কাজটি করছে। আমাদের দপ্তর থেকে রাষ্ট্রীয় নির্দেশনা ব্যতীত পাহাড় কর্তনের ব্যাপারে কোন অনুমতি দেওয়া হয় না। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমরা এসে তদন্ত করবো পাহাড়টি কিভাবে কাটা হয়েছে। এ ব্যাপারে আপনারা সহযোগীতা করবেন।’

পাহাড় কাটার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী এস. এম. শহিদুল হাসান জানান, ‘পাহাড়টি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল লাগোয়া হওয়ায় এটি ধসে পড়লে হলের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং হলের স্যানিটারী ব্যবস্থা ও ড্রেইন নির্মাণের জন্য পাহাড়টি কিছুটা কাটা হচ্ছে । তবে পাহাড়টি পরবর্তীতে সংরক্ষণ করা হবে।’

তবে বিশ্ববিদ্যালয়টির বেশ কয়েকজন শিক্ষক-শিক্ষার্থীর দাবি হল নিমার্ণের পূর্বেই যদি পাহাড়টিকে সংরক্ষণ করে হল নিমার্ণের পরিকল্পনা করা হত তাহলে পাহাড়টি এভাবে কাটতে হতো না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিশ^বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক বলেন, ‘প্রশাসনের এমন অপরিকল্পিত কাজের কারণেই পাহাড়টি কেটে তার মাশুল দিতে হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যদি হলটি পাহাড় থেকে কয়েক ফিট দূরে সরিয়ে নির্মাণ করতো তাহলে আজতে এভাবে পাহাড়টি কাটা পড়তো না।’

এভাবে পাহাড় কাটার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত পাঁচজন শিক্ষার্থীর সাথে কথা বললে তারা বলেন, ‘এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম সৌন্দর্য্য হচ্ছে এর পাহাড়গুলো। এসব পাহাড় এভাবে কেটে ফেলা পরিবেশের জন্য হুমকি স্বরূপ। এ পাহাড় কাটার ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক সৌর্ন্দয্য নষ্ট হবে এবং পরিবেশ বিপর্যয় হবে। ’

নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী সজীব বণিক বলেন, ‘পাহাড় কেটে প্রশাসন কি বার্তা দিতে যাচ্ছে তা আমার জানা নেই। তবে প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্ট করতে পাহাড় কেটে সমতল করা প্রশাসনের জন্য গর্হিত একটি কাজ। লাল পাহাড় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য। এগুলোকে রক্ষা করতে হবে।’
পাহাড় কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো: আবু তাহের বলেন, ‘ পাহাড়টি বঙ্গবন্ধু হলের সাথেই হওয়ায় পাহাড়ের কারণে হলের তৃতীয় তলা পর্যন্ত ঢেকে থাকে যার ফলে হলটিতে সঠিকভাবে আলো বাতাস প্রবেশ করবে না এবং পাহাড়টি যেকোন সময়ে হলের উপরে ধসে পড়তে পারে এজন্য পাহাড়টিকে কিছুটা কাটা হচ্ছে। তবে পাহাড়টি পুরোপুরি কাটা হবে না, এটি গার্ড ওয়াল দিয়ে সংরক্ষণ করা হবে।’

এভাবে নির্বিচারে পাহাড় কাটা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর দাবি করে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক মো: আব্দুল মতিন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত পাহাড়কে সংরক্ষণ করে স্থাপনা নির্মাণ কার্যক্রম পরিচালনা করা।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এমরান কবির চৌধুরী বলেন,‘বিষয়টি আমি জানার পর সরেজমিনে গিয়ে পরিদর্শন করেছি এবং পাহাড়টি সংরক্ষণ করে পরিবেশ সম্মতভাবে কাজ করার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নির্দেশনা প্রদান করেছি।’



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি