সোমবার,১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং


কুমিল্লা মহাসড়কজুড়ে নিয়ন্ত্রণহীন সড়ক দুর্ঘটনা, বাড়ছে লাশের মিছিল


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৫.০৯.২০১৯

সেলিম সজীবঃ

কুমিল্লায় বেড়েছে মৃত্যুর মিছিল। প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। এতে অকালে ঝরছে প্রাণ। আহত হয়ে পঙ্গুত্ব জীবনযাপন করেছেন অসংখ্য মানুষ। তবু কোনোভাবে কমানো যাচ্ছে না সড়ক দুর্ঘটনার মাত্রা। বরং দিন দিন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনা। তার জন্য যেমন নেই কোনো কার্যকর উদ্যোগ, তেমনি নেই সচেতনতা। চলতি সেপ্টেম্বরে শুরুতে সড়ক দুর্ঘটনায় কুমিল্লায় প্রাণ হারিয়েছে অন্তত ৪ জন। আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক। সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ বেপরোয়া গাড়ি চালানো।

এছাড়া রয়েছে অদক্ষ ও অশিক্ষিত চালক, ফিটনেসবিহীন গাড়ি, চালকদের প্রশিক্ষণের অভাব, যাত্রী ও পথচারীদের অসচেতনতা, দুর্নীতি, চালকের মোবাইল ফোন ব্যবহার, অপরিকল্পিত ও ভঙ্গুর সড়ক, ওভারটেকিং, অতিরিক্ত গতি, ওভারব্রিজের স্বল্পতা, ট্রাফিক আইন অমান্য, ট্রাফিক পুলিশের গাফিলতি, লাইসেন্সবিহীন গাড়ি ও চালক, বেপরোয়া গাড়ি চালানো এবং যথাযথ আইন ও আইনের প্রয়োগের অভাবসহ বিবিধ।

বিভিন্ন তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে কুমিল্লায় সড়কে দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে প্রায় ১৪ জন। আহত হয়েছে দুই শতাধিক। আগস্ট ও সেপ্টেম্বরের শুরুতে ঘটে যাওয়া কয়েকটি ভয়াবহ দুর্ঘনা তুলে ধরা হলো:

১৮ আগস্ট কুমিল্লার লালমাই উপজেলায় বাস ও সিনএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে সাতজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন আরও দুই ব্যক্তি। দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার জামতলি এলাকায় কুমিল্লা-লাকসাম সড়কে অটোরিকশাটির সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই চালকসহ অটোরিকশার পাঁচ যাত্রী নিহত হন।

২০ আগস্ট কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুরছাপ এলাকায় একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে অপর একটি গাড়ির সংঘর্ষে দুই জন নিহত হয়েছেন। সকালের দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- ফেনীর পরশুরাম উপজেলার অলকা মাস্টারবাড়ির মৃত তোফায়েল আহমদের ছেলে আব্দুল মালেক (৬০) ও সালেহ আহমেদ (৭০)। এ ঘটনায় আরও তিন জন আহত হয়েছেন।

২ সেপ্টেম্বর কুমিল্লা চৌদ্দগ্রামের বাবুর্চি বাজার এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় হাইওয়ে পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আক্তার হোসেনসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ৪ জন। নিহতরা হলেন, মিয়াবাজার হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আক্তার হোসেন(৪২)। আক্তার হোসেন কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার উত্তর শিলমুড়ি ইউনিয়নের ছোটবাটুয়া গ্রামের দুলা মিয়ার ছেলে । নিহত অন্য দুইজন হলেন লক্ষ্মীপুর জেলার চন্দ্রগঞ্জ উপজেলার নন্দীগ্রামের বাবুলের ছেলে কাভার্ড ভ্যান হেলপার সুমন (২৬)ও নোয়াখালী জেলার সেনবাগ উপজেলার সেনবাগ গ্রামের সালেহ আহমেদ এর ছেলে ফাহাদ (২৬)।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, চালকদের শাস্তি না পাওয়া, বিআরটিএ’র দুর্নীতি সড়ক দুর্ঘটনার মাত্রা বাড়িয়ে তুলেছে। ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চালকদের বেপরোয়া মনোভাবের কারণেই দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। তারা আইন-কানুন মানছেন না বলে দিন দিন দুর্ঘটনা বাড়ছে। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে দেশে আইন আছে, রয়েছে শাস্তির বিধান। কিন্তু আইনের প্রয়োগ সন্তোষজনক নয়। সড়ক দুর্ঘটনায় অভিযুক্ত চালকদের সাজা ভোগের নজিরও দেখা যায় না। আইনের নানা ফাঁক-ফোকর আর পুলিশের মামলা জটিলতায় দুর্ঘটনার জন্য দায়ী চালকদের তেমন ‘কিছুই হয় না’।

সম্প্রতি কুমিল্লায় দুর্ঘটনা বেড়ে যাওয়ার জন্য বিশেষজ্ঞরা দায়ী করছেন যানবাহনের বেপরোয়া গতিকে। আর তা ঠেকাতে আইনের কঠোর প্রয়োগের কথা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি