সোমবার,২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং
  • প্রচ্ছদ » ধর্মীয় » আশুরার সিয়ামের ফযীলত! এ’দিন সিয়াম রাখার ফযীলত সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (সা:) যা বলেছেন


আশুরার সিয়ামের ফযীলত! এ’দিন সিয়াম রাখার ফযীলত সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (সা:) যা বলেছেন


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৮.০৯.২০১৯

ডেক্স রিপোর্টঃ

দশই মুহাররম অনেক ফযীলতপূর্ণ দিন। এ’দিন সিয়াম রাখার ফযীলত সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (সা:) বলেছেন,

أفضل الصيام بعد رمضان شهر الله المحرم

রমযানের পর সর্বোওম সিয়াম হলো মুহাররম মাসের সিয়াম।[1]

নবী (সা:) আরো বলেন,

صيام يؤم عاشراء ا حتسب على الله ان يكفر اسنته اللتى قبله

আমি আল্লাহর নিকট আশা রাখি যে, আশুরার সিয়াম বিগত একবছরের গুনাহের কাফফারা হয়ে যাবে।[2]
আশুরার সিয়াম আগে বা পরে একদিন মিলিয়ে মোট দু্’টি সিয়াম রাখা উওম।

“আবু কাতাদাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, আল্লার রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম) আশূরার দিন রোযা রাখা প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসিত হলে তিনি বললেন, ‘‘আমি আশা করি যে, (উক্ত রোযা) বিগত এক বছরের পাপরাশি মোচন করে দেবে।’’[3]

এক বর্ণনায় আছে, এই রোযা এক বছরের রোযার সমান।[4]

অবশ্য যে ব্যক্তি আশূরার রোযা রাখবে তার জন্য তার একদিন আগে (৯ তারীখে)ও একটি রোযা রাখা সুন্নত। যেহেতু ইবনে আববাস (রাঃ) বলেন, আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম) যখন আশূরার রোযা রাখলেন এবং সকলকে রাখার আদেশ দিলেন, তখন লোকেরা বলল, ‘হে আল্লাহর রসূল!

এ দিনটিকে তো ইয়াহুদ ও নাসারারা তা’যীম করে থাকে।’ তিনি বললেন, ‘‘তাহলে আমরা আগামী বছরে ৯ তারীখেও রোযা রাখব ইনশাআল্লাহ।’’ কিন্তু আগামী বছর আসার আগেই আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম)-এর ইন্তিকাল হয়ে গেল।[5]

ইবনে আববাস (রাঃ) বলেন, ‘তোমরা ৯ ও ১০ তারীখে রোযা রাখ।’[6]

পক্ষান্তরে ‘‘তোমরা এর একদিন আগে বা একদিন পরে একটি রোযা রাখ’’ -এই হাদীস সহীহ নয়।[7] তদনুরূপ সহীহ নয় ‘‘তোমরা এর একদিন আগে একটি এবং একদিন পরেও একটি রোযা রাখ’’ -এই হাদীস।[8]

বলা বাহুল্য, ৯ ও ১০ তারীখেই রোযা রাখা সুন্নত। পক্ষান্তরে কেবল ১০ তারীখে রোযা রাখা মকরূহ।[9]
যেহেতু তাতে ইয়াহুদীদের সাদৃশ্য সাধন হয় এবং তা মহানবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম)-এর আশার প্রতিকূল। অবশ্য কেউ কেউ বলেন, ‘মকরূহ নয়। তবে কেউ একদিন (কেবল আশূরার দিন) রোযা রাখলে পূর্ণ সওয়াবের অধিকারী হবে না।’

জ্ঞাতব্য যে, হুসাইন (রাঃ)-এর এই দিনে শহীদ হওয়ার সাথে এ রোযার কোন নিকট অথবা দূরতম কোন সম্পর্ক নেই। কারণ, তার পূর্বে মহানবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম); বরং তাঁর পূর্বে মূসা নবী  এই দিনে রোযা রেখে গেছেন। আর এই দিনে শিয়া সম্প্রদায় যে মাতম ও শোক পালন, মুখ ও বুক চিরে, গালে থাপর মেরে, চুল-জামা ছিঁড়ে, পিঠে চাবুক মেরে আত্মপ্রহার ইত্যাদি করে থাকে, তা জঘন্যতম বিদআত। সুন্নাহতে এ সবের কোন ভিত্তি নেই।

তদনুরূপ এই দিনে নিজ পরিবার-পরিজনের উপর খরচ বৃদ্ধি করা, বিশেষ কোন নামায পড়া, দান-খয়রাত করা, বিশেষ করে শরবত-পানি দান করা, কলফ ব্যবহার করা, তেল মাখা, সুরমা ব্যবহার করা প্রভৃতি বিদআত। এ সকল বিদআত হুসাইন (রাঃ)-এর খুনীরাই আবিষ্কার করে গেছে।[10]



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি