সোমবার,২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং


ধীরে ধীরে কমছে কুমিল্লা ময়নামতি শালবন বিহারের দর্শনার্থী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৫.০৯.২০১৯

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা লালমাই-ময়নামতি পাহাড়ে আবিস্কৃত প্রত্নতত্ত্ব সম্পদের মাঝে সবচেয়ে বড় নিদর্শন শালবন বিহার। কেউবা বলে শালবন বৌদ্ব বিহার আবার কেউ বলে শালবন মুড়া। কোটবাড়ি বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (বার্ড) থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দক্ষিনে শালমানপুর এলাকায় বিহারটি অবস্থিত। এর পাশে রয়েছে প্রাকৃতিক শালবন।

জনশ্রুতি আছে শালমানপুর থেকে এটি শালবন বিহার হিসেবে পরিচিতি পায়। পাক-ভারত বিভক্তির পর বিগত শতাব্দির ৫০ এর দশকের মাঝামাঝি শালবন বিহারে প্রত্নৎখনন কাজ শুরু হয়। এরপর কিছুটা সময় বন্ধ থাকলেও ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত বিহারের বিশাল এলাকাজুড়ে চলে এই খনন কাজ।

এসময় ৬ টি বসতি আমলের চিহ্নসহ একটি ১৬৭.৬ মি. বর্গাকার বিহারের ধ্বংসাবশেষ বেরিয়ে আসে। বিহারের চারটি বাহুতে সারিবদ্ধ ভিক্ষুকোঠা এবং এর সামনে একটা টানা বারান্দা রয়েছে। বাহুগুলো একটি বর্গাকার চত্বর ঘিরে রেখেছে। আর বিহারের ভিতর প্রবেশের জন্য উত্তর বাহুর মাঝখানে একটি তোরন আছে। খোলা চত্ত্বরটির কেন্দ্রজুড়ে আছে একটি মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ। বিহারের বাহুগুলোর পিছনের দেয়াল ৫ মিটার চওড়া।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি