বুধবার,২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং
  • প্রচ্ছদ » কুমিল্লা নিউজ » কুমিল্লার মুরাদনগরে জন্ম নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতিকারীকে ভ্রাম্যমান আদালতের ৪ মাসের কারাদণ্ড


কুমিল্লার মুরাদনগরে জন্ম নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতিকারীকে ভ্রাম্যমান আদালতের ৪ মাসের কারাদণ্ড


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৫.০৯.২০১৯

ডেস্ক রির্পোটঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় জালিয়াতির মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানকারী একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে মূলহোতা আবু মুছাকে (২৪) ৪ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিষেক দাশের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত। মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার দারোরা ইউনিয়নের বোড়ারচর বাজারের মা গ্রাফিক্স এন্ড ইন্টারনেট সেন্টারে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। সাজাপ্রাপ্ত জালিয়াতকারী আবু মুছা উপজেলার দারোরা ইউনিয়নের পুটিয়াজুড়ি গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

দারোরা ইউনিয়ন পরিষদের সচিব নাইম সরকার জানান, ২২-২৪শে সেপ্টেম্বর দারোরা ইউনিয়নের ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম চলছিলো, ভোটার হতে আসা অনেকের জন্ম নিবন্ধনের কপি হুবহু অনলাইন নিবন্ধনের মত দেখতে হলেও এগুলোর নাম্বার এলোমেলো হওয়ায় আমাদের সন্দেহ হয়, পরে আমরা অনলাইনে চেক করলে এসব নিবন্ধন অনলাইনে পাওয়া যায়নি। এসব নিবন্ধন জাল হিসেবে প্রমাণ হয়। এসব জাল নিবন্ধনের ব্যাপারে জানতে চাইলে ভুক্তভোগীরা বোড়ারচর বাজারের মা গ্রাফিক্স এন্ড ইন্টারনেট সেন্টার থেকে করেছে বলে জানায়। পরে ইউপি চেয়ারম্যান ও ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট অভিষেক দাশের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত সেখানে অভিযান চালিয়ে ফটোশপের মাধ্যমে এডিটিং করে বিভিন্ন জাল সনদ ও নিবন্ধন তৈরি করার আলামত পান। দোকানের মালিক আবু মুছাকে ৪ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন এবং জাল সনদ তৈরিতে ব্যবহৃত দুটি কম্পিউটার জব্দ করেন।

এসময় অন্যান্যের মাঝে আরো উপস্থিত ছিলেন, ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান বিএসসি, মুরাদনগর থানার এসআই আবদুল গোফরান, ইউপি সচিব নাইম সরকার প্রমুখ।

জানা যায়, আবু মুছা দীর্ঘদিন যাবত চেয়ারম্যান ও সচিবদের স্বাক্ষর স্ক্যান করে উপজেলার দারোরা, জাহাপুর, ছালিয়াকান্দি, ও পার্শ্ববর্তী তিতাস উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের জনসাধারণকে জন্ম নিবন্ধন, জাতীয় পরিচয়পত্র, ওয়ারিশ সনদ, চারিত্রিক সনদ, নাগ‌রিক সনদ জা‌লিয়া‌তি ক‌রে তিনশ থেকে পাচঁশ টাকার বিনিম‌য়ে ভুয়া সনদ প্রদান ক‌রে আস‌ছিলেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট অভিষেক দাশ, জন্ম নিবন্ধনসহ সকল প্রকার সনদের ব্যাপারে সকলকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, কারো মাধ্যমে সংগ্রহ করা থেকে বিরত থেকে যে কোনো সনদ প্রয়োজন হলে সরাসরি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সংগ্রহ করতে হবে। সনদ সংক্রান্ত ব্যাপারে কারো কোনো অভিযোগ থাকলে উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করলে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি