সোমবার,২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং


কুমিল্লার বুড়িচংয়ের আয়েশা : অহন আর আমি সংসার চাই না , প্রতারক স্বামীর শাস্তি চােই


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৬.০৯.২০১৯

স্টাফ রিপোর্টারঃ

চাঁনদের মতন দুই ছেলে সহ তিন বছর ধরে আমার স্বামী আমার কোনো খোঁজ-খবর নেয় না। দুই পোলারে লইয়া আমি কই যাই! কী খাই! আরো ও দুই বিয়া কইরা সংসার করতাছে, আমারে জানায় নাই ।গ্রামের সাহেব সরদার নিয়ে কয়েক বার দেন দরবার করে ও কোন ফল পাই নাই আমি ও আমার পরিবারের সবাই চেয়েছি সংসার করতে কিন্তু আমার স্বামী ও তার পরিবারের কেউ আমার সংগ দেয় নাই এহন আর আমি হের সাথে সংসার চাই না। হের শাস্তি চাই।’

৪ বছরের ছেলে মোঃ সাইফুদ্দিন ইসলাম (সাহেম) ও ১৮ মাসের মোঃ আরিফুল ইসলাম (সোহান) কে বুকে নিয়ে কথাগুলো বলছিলেন আয়শা আক্তার।

রবিবার (১৮ আগস্ট ) কুমিল্লা ইপিজেডে কর্মরত স্বামী,
ইকবালের খুজ পেয়ে তার বাসায় খুজ নিতে এসে দেখে স্বামী ইকবাল হোসেন – ৪র্থতম স্ত্রী কে নিয়ে সংসার করছেন,

স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করে সাংবাদিকের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলছিলেন তিনি।

২০১৪ সালে কুমিল্লা বুড়িচং থানার পাহাড়পুর গ্রামের মো. ইকবাল হোসেনের সঙ্গে বিয়ে হয় আয়শা আক্তারের। দেরভড়ি
বিয়ের একবছরে মাথায় প্রথম পুত্র সন্তান সাইফুদ্দিনের জম্ম হয়।

আয়শা আরও জানান, এর দের বছর পর দ্বিতীয় সন্তান খবরে পেয়ে স্বামী ইকবাল হোসেন তার স্ত্রীর খুজ খবর নেওয়া বন্ধ করে দেয়, তিন মাসের মাথায় খবর পান স্বামী ইকবাল হোসেন দিনাজপুর দ্বিতীয় বিয়ে করে তার স্ত্রী নিয়ে সংসার করতেনছেন দ্বিতীয় স্ত্রী তার প্রথম বিয়ের কথা শুনে তার কাছ থেকে তালাক নিয়ে চলে যান । আয়শা আক্তার তখন ও দ্বিতীয় তম সন্তানের গর্ভবতী। এরপর থেকে স্ত্রী আশায়র সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ করেননি তিনি।

দ্বিতীয় সন্তানের মুখ দেখার জন্যও কাছে আসেননি নিষ্ঠুর স্বামী।

শ্বশুড়বাড়িতে শ্বশুড় শ্বাশুড়ির ও ছেলের ফুফুর অত্যাচারে ও ফুফুর ঘরের সব কাজ করতে হতো জানিয়ে আশায় বলেন, হেরা আমারে একবেলা খাওন দিত। দুই বেলা না খাইয়া থাকতাম। খরচ পাতির টেহাও দিত না। নিজেগো পরনের পুরান কাপড় পরতে দিত। স্বামীর সঙ্গে কথা কইতে চাইলে আমার কাছ থাইকা মোবাইল কাইড়া লইত। আয়শা বলেন বিয়ের সময় আমার গরিব বাবা দেরভরি স্বর্ণ দিয়েছিল সেই স্বর্ণ বেচে ও আমার বাবার কাছ থেকে আরও ৫০ হাজার টাকা যৌতুক নেয় ,তার পর যৌতুকের জন্য চাপদিলে কিস্তিতে টাকা এনে ইস্টিলের আলমারি কিনে দেয় শুধুমাত্র মেয়ের সুখের জন্য,

ইকবাল দূরে থাকায় শ্বশুর শ্বাশুড়ির তারকাছে ফোন করে তার নামে নানান বদনাম করতেন বলে অভিযোগ করেন আয়শা । শ্বশুড় শ্বাশুড়ি ও ফুফু বলতেন পুরুষ মানুষ তিন চার টা বিয়ে করে , ইকবালের ফুফুতো আমারে প্রায়ই কইত, ইকবাল তোরে ছাইরা না দিলেও আমরা তোরে এই ঘরে থাকতে দিমু না। তাই করলো। দ্বিতীয় বাচ্চা হওনের পর হেরা আমারে বাড়িতথন বাইর কইরা দিল। কইল বাপের বাড়ি গিয়া থাক। ইকবাল বাড়ি আইলে তোরে খবর দিমু। তহন আহিস।

শ্বশুড়বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি আসার পর তারা আর কোনো খবর রাখেনি আয়শার । আয়শার পাঁচ বোন। বাবা গরিব কৃষক, কৃষি কাজ করে সংসার চলে আয়শার পরিবারের । কিন্তু আয়শা ও তার ছেলেরা যোগ হওয়াতেই আরও টানাটানিতে পরে যায় সংসারটিতে।
আয়শা আরও বলেন,
দুইটা বাচ্ছা সিজারের খরচ হয় ৫০ হাজার টাকা
আমার ছেলেদের ওষুধের খরচ সহ সবকিছু আমার গরিব কৃষক বাবা কিস্তি এনে চালিয়েছে,

দ্বিতীয় সন্তানের জম্মের পরে ২০১৮ সালে স্বামীর খোঁজ নিতে শ্বশুড়বাড়িতে গেলে বাড়িতে শ্বশুর শ্বাশুড়ি স্বামী ইকবাল মিলে মেরে বাড়ি থেকে বের করে দেন আয়শাকে । প্রতিবেশীদের জিজ্ঞেস করলে তারা জানান, ইকবাল আরেকটা বিয়ে করেছেন । বর্তমানে তৃতীয় স্ত্রী নিয়ে তিনি সংসার করছেন।

সরজমিনে খুজনিয়ে জানা গেছে ২০১৮ সালে আগস্ট মাসে ২ নং বাকশীমূল ইউনিয়নের মেম্বার, পাহাড়পুর ও কালিকাপুরের সাহেব সরদাররা মিলে দেনদরবার করে মিলমিশ করে দেন।

তার কিছুদিন পরে পাশের গ্রাম আনন্দপুরে একটা মেয়ে কে বিয়ে করেন তারবাড়িতে আয়শা স্বামীর খোঁজে গেলে ইকবালের স্ত্রী তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। আর স্বামী ইকবাল ফোন করে তাকে হুমকি দিতে থাকেন।

আয়শা বলেন, হেই (স্বামী ইকবাল ) আমারে কয়, তোরে আমি তালাক দিয়া দিছি। দেহস না আরেকটা বিয়া করছি। তুই যদি আবার আমার কাছে আহস তাইলে ভালো হইবো না।

আয়শা বলেন, শ্বশুর, শ্বাশুড়ি ও ছেলের ফুফু, ফুফাতো বোন আমারে তাড়ায়া দিয়া কয়, হেই নাকি আমারে তালাকের কাগজ পৌঁছাইয়া দিব। আমি না হয় চইলা গেলাম, আমার পোলারা কই যাইব! হেরা আমগো লগে এত বড় প্রতারণা করলো, তাগোর বিচার কী হইব না?

জানালেন, স্বামী ফিরে এলেও এমন প্রতারক স্বামীকে মেনে নিতে পারবেন না তিনি। প্রতিবাদের সুরে দৃঢ়তার সঙ্গে বললেন, অহন আর আমি সংসার চাই না। ইকবালের ও তার পরিবারের সকলের শাস্তি চাই।

সরজমিনে খুজনিয়ে জানা যায় ২০১৪ সালে, ২ নং বাকশীমূল ইউনিয়নের কালিকাপুরে, জজু মিয়ার মেয়ে মোসাম্মৎ আয়শা আক্তারের বিয়ে হয়,
একেই ইউনিয়নের পাহাড়পুর গ্রামের, মোঃ জাকির হোসেনের ছেলে, মোঃ ইকবাল হোসেনর সাথে, তিন লক্ষ টাকা দেনমোহরে বিয়ে হয়,

আরও জানা যায় বর্তমানে ইউনিয়নের গ্রাম আদালতে মামলা বিচারাধীন রয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি