বুধবার,১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং


থামছে না সুন্দরবনের হরিণ শিকার!


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.১০.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ

৩ বছরে ১ হাজার ৬৩ কেজি হরিণের মাংস উদ্ধার হয়েছে।
মাছ ধরার পাশ-পারমিট নিয়ে হরিণ শিকারে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে শিকারীরা।
শিকারই নয় সুন্দরবন থেকে গাছ পাচারও করা হচ্ছে।

উপকূলীয় এলাকা বন দেখার জন্য ১২০ জন লাগলেও জনবল আছে মাত্র ২৪ জন।
চলতি মৌসুমে সুন্দরবনে আবারও বেড়েছে হরিণসহ বন্যপ্রাণী শিকারীদের তৎপরতা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নজরদারি সত্ত্বেও থেমে নেই হরিণ শিকার। সুন্দরবন এলাকা থেকে প্রায়ই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হচ্ছে হরিণের মাংসসহ শিকারীরা। এ শিকার যেন কোনোভাবেই রোধ করা যাচ্ছে না।

সম্প্রতি গত ৬ অক্টোবর কোস্টগার্ড ও বন বিভাগের যৌথ অভিযানে উপজেলার রুহিতা মাজের চর এলাকা থেকে একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকাসহ ৭৫০ কেজি হরিণের মাংস উদ্ধার করা হয়। এসময় এক জন শিকারীকে আটক করা হলেও বাকিরা পালিয়ে যায়।

গত কয়েক বছর বন-রক্ষী অথবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ অভিযানে সুন্দর বন সংলগ্ন বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার হরিণঘাটা, পদ্মা, রুইতা মাজের চরসহ বনের বিভিন্ন জায়গা থেকে হরিণের মাংস, চামড়া, হরিণ ধরার ফাঁদসহ হরিণ শিকারী আটক করা হয়েছে। তবে আটক হলেও আইনের ফাঁক-ফোঁকড় গলে কিছু দিনের মধ্যে মুক্ত হয়ে আবারও তারা স্বদর্পে ফিরে আসছে পুরানো পেশায়। তবে সবসময়ই ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থেকে যায় মূল হোতারা।

বন বিভাগের তথ্যমতে, সুন্দরবন সংলগ্ন পাথরঘাটার বিভিন্ন এলাকা থেকে গত ৩ বছরে অভিযান চালিয়ে ১হাজার ৬৩ কেজি হরিণের মাংস, ১০ টি হরিণের চামড়া, ৮ টি মাথা, ১৫ টি পা উদ্ধার করা হয়। এতে পৃথক-পৃথক ৬টি মামলায় ৩০ জনকে আসামি করা হয়।

সূত্রে জানা গেছে, সংঘবদ্ধ শিকারীর চক্র সুন্দরবন এলাকায় মাছ ধরার পাশ-পারমিট নিয়ে হরিণ শিকারে বেপরোয়া হয়ে উঠে। শুধু হরিণ শিকারই নয় সুন্দরবন থেকে গাছ পাচারও করছে এসব চোরা-কারবারিরা।

উপকূলীয় এলাকা পাথরঘাটায় ৬ হাজার হেক্টর জুড়ে ৪টি সংরক্ষিত বণাঞ্চল রয়েছে। এর মধ্য হরিণঘাটা, রুহিতা মাজের চর, বাইনচুটকি মাজের চর এলাকায় রয়েছে হরিণের অবয়াশ্রম। এদের দেখার জন্য বন অধিদপ্তরের একটি রেঞ্জ রয়েছে। এ রেঞ্জের অধীনে ১২০ জন জনবল থাকার কথা থাকলেও সেখানে রয়েছে মাত্র ২৪ জন। আর এ জনবল সংকটকেই দায়ী করেছেন পাথরঘাটা বনবিভাগ।

বনবিভাগের পাথরঘাটা রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান বলেন, বন বিভাগের নিয়মিত অভিযান চলছে। এছাড়াও অভিযান জোরদার করতে পুলিশ, কোস্টগার্ড ও বন বিভাগের যৌথ অভিযানের পরিকল্পনা চলছে। আশা করি অচিরেই এ এলাকা থেকে হরিণ পাচার বন্ধ হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি