রবিবার,৮ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং


নগর ভবনের ‘ত্রিরত্ন’ সবুজ বিপ্লব রতন আত্মগোপনে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৬.১০.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ

রাজধানীর উন্নয়নের জন্য নগর ভবনের টেন্ডারসহ সব কাজের নিয়ন্ত্রক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতন, জসিম উদ্দিন সবুজ ও আমিনুল হক বিপ্লব। তাদের কথা ছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) কোনো ফাইল নড়ে না। এই ‘ত্রিরত্ন’ সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ডিএসসিসিতে অবস্থান করেন। তাদের প্রভাব এবং হুমকি-ধমকিতে তটস্থ থাকেন কর্মকর্তা-কর্মচারী। তবে প্রধানমন্ত্রীর নিজ ঘর থেকে শুদ্ধি অভিযান শুরুর পর যুবলীগের বেশ কয়েকজন নেতা ও ক্যাসিনো ডন গ্রেফতার হলে এ ত্রিরত্ন আত্মগোপনে চলে যান। এদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধেই টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, দখলবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত থাকার তথ্য গোয়েন্দা প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে। আইন-শৃংখলা বাহিনী তাদের খুঁজছে।

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকনের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ক্যাসিনো অভিযান ও অপকর্মে জড়িতদের গ্রেফতার অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে সংশ্লিষ্টদের নগর ভবনে দেখা যাচ্ছে না। তাদের সঙ্গী ক্যাডাররাও লাপাত্তা হয়ে গেছে। এ কারণে অফিসের অস্থিরতা কিছুটা হলেও কমেছে।

অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৫ সালের মাঝামাঝি ডিএসসিসি নির্বাচনের পরপরই সব ধরনের উন্নয়ন কাজ ও ক্রয়সংক্রান্ত বিষয়ের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নিতে থাকেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জসিমউদ্দিন সবুজ, যুবলীগ নেতা আমিনুল হক বিপ্লব এবং যুবলীগ নেতা ও ২০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদউদ্দিন আহমেদ রতন। নির্বাচনের বছর পেরিয়ে গেলে শক্ত অবস্থান তৈরি হয় তাদের। ধীরে ধীরে দরপত্র নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু করে ভাণ্ডারের ক্রয়সংক্রান্ত সব কাজই চলে যায় তাদের নিয়ন্ত্রণে। তবে তারা ঠিকাদারি কাজের ক্ষেত্রে কৌশলের অংশ হিসেবে নিজেদের নাম ব্যবহার না করে বেনামে কাজ বাগিয়ে নেন। তবে এসব অভিযোগ তারা তিনজনই অস্বীকার করেছেন।

জানা গেছে, জসিমউদ্দিন সবুজ মূলত কাজ করেন স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা মুকিতের লাইসেন্স দিয়ে। ২০১৫ সাল থেকে নগর ভবনে সবচেয়ে বেশি প্রভাবশালী হিসেবে পরিচিত তিনি। ডিএসসিসির বেশিরভাগ খেলার মাঠ, পার্ক, যাত্রী ছাউনি, নতুনভাবে যুক্ত হওয়া ওয়ার্ড ও কেইস প্রকল্পে তিনি কমপক্ষে ১৫০ কোটি টাকার কাজ করছেন।

ডিএসসিসির কর্মকর্তারা জানান, সবুজ ২০১৫ সালের মে মাসে নির্বাচনের পর থেকে ঠিকাদারদের জন্য অর্থ ছাড় থেকে শুরু করে কর্মকর্তাদের বদলিতেও ভূমিকা রাখছেন। সকাল-সন্ধ্যা নগর ভবনে অফিস করেন তিনি। একদল যুবক নিয়ে মাঝে-মধ্যেই বিভাগীয় প্রধানদের কক্ষে ঢুকে ফাইলে স্বাক্ষর করিয়ে নেন হাতে হাতে। সম্প্রতি কামরাঙ্গীরচর এলাকার ৫৫ ও ৫৬ নম্বর ওয়ার্ডে সড়ক মেরামতের জন্য ২৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকার কাজটি তিনি মুকিত ও স্থানীয় বিএনপি নেতা পারভেজের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করেন। ২০১৫ সালের নভেম্বরে প্রায় ৫১ কোটি টাকার চারটি কার্যাদেশ দেয়া হয় মুন্সীগঞ্জের এক বিএনপি নেতার মেসার্স সোহেল ইঞ্জিনিয়ারিং প্রতিষ্ঠানটির নামে। ওই সময়ে ৮৪ কোটি টাকার আরেকটি কাজ দেয়া হয় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে। অভিযোগ রয়েছে, এ দুই কাজেই সংশ্লিষ্ট একজন প্রকৌশলী ও সবুজের অংশীদারিত্ব রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, কাজের বিল আদায় করে সেখান থেকে পার্সেন্টেজ নেয়া সবুজের আরেকটি বাণিজ্য। তার সঙ্গে যোগাযোগ করে চুক্তি না করলে ঠিকাদাররা বিল পান না।

অভিযোগের বিষয়ে জসিমউদ্দিন সবুজ বলেন, আমি আসলে ছোটখাটো কাজ করি। নুরু ভূঁইয়ার (বিএনপিপন্থি ঠিকাদার ভূঁইয়া এন্টারপ্রাইজের মালিক নুরু ভূইয়া) সঙ্গে দুটি কাজ করেছি। আর মুকিতের সঙ্গে একটি কাজ করেছি। টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ বা প্রভাব বিস্তারের মতো কোনো ঘটনায় আমি জড়িত থাকি না।

২০১৫ সালে মাঝামাঝি নগর ভবনে আবির্ভাব ঘটে আমিনুল হক বিপ্লবের। পুরান ঢাকার বাসিন্দা বিপ্লব বর্তমানে ধানমণ্ডিতে বসবাস করেন। ২০১৫ সালে নগর ভবনে একটি মোটরসাইকেল করে যাতায়াত করলেও বর্তমানে তিনি কোটি টাকার গাড়িতে চড়েন। লাইসেন্স করা অস্ত্রও রাখেন সব সময়। মেয়র সেল থেকে শুরু করে সব দপ্তরে বিপ্লবের দাপট চোখে পড়ার মতো। ভাণ্ডার ও ক্রয় বিভাগে অল্প টাকার মালামাল সরবরাহ করা বিপ্লব এখন কমপক্ষে ১৫০ কোটি টাকার কাজ করছেন।

উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ঠিকাদার হিসেবে পরিচিত বিএনপিপন্থি পারভেজের লাইসেন্স দিয়ে মূলত কাজ করেন বিপ্লব। ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে ডিএসসিসির ৩৬ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের অফিসের জন্য আসবাবপত্র কেনাকাটা নিয়ে হট্টগোলে আলোচনায় আসেন তিনি। এরপর পেশিশক্তি দেখিয়ে ২০১৬ সালে অক্টোবরে মহানগর ফিলিং স্টেশনের দখল নেন। সেখানে ডিএসসিসির যানবাহনে জ্বালানি সরবরাহের নামে বিপ্লব প্রতি মাসে নেন প্রায় ৩ কোটি টাকা। বর্তমানে তিনি চারটি খেলার মাঠ ও পার্কের উন্নয়ন কাজসহ নতুন ওয়ার্ডে কোটি কোটি টাকার কাজ করছেন।

এ বিষয়ে আমিনুল হক বিপ্লব বলেন, চারটি পার্ক ও খেলার মাঠ উন্নয়নের কাজ আমি নিয়ম মেনেই পেয়েছি। কোনো ধরনের প্রভাব বিস্তারের বিষয়টি সঠিক নয়। মহানগর ফিলিং স্টেশনের কাজটি আমাদের তত্ত্বাবধানে চলে। সেটিও দাপ্তরিক নিয়মনীতি মেনে আমরা পেয়েছি।

২০১৫ সালে ডিএসসিসির নির্বাচন হওয়ার পর নগর ভবনে দরপত্রে খুব একটা সুবিধা করতে পারছিলেন না ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফরিদউদ্দিন রতন। একপর্যায়ে নগর ভবনের পাশে টেলিফোন ভবন চত্বরে একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে এ কাউন্সিলর নিজের শক্তির জানান দিতে ডিএসসিসির দুই কর্মকর্তাকে মারধর করেন। এ ঘটনার পর ধীরে ধীরে নিজের অবস্থান পাকাপোক্ত করে নেন তিনি। দুয়েকদিন পরপর নগর ভবনে একাধিক দেহরক্ষী সঙ্গে নিয়ে মহড়া দেন। নিজ জেলার বাসিন্দা ও ঘনিষ্ঠ বন্ধু দি বিল্ডার্স লিমিটেডের মালিক স্বপনের প্রতিষ্ঠানের নামে একে একে ঠিকাদারি কাজ শুরু করেন রতন। বর্তমানে আনুমানিক ২০০ কোটি টাকার কাজ চলছে তার। চার ইউনিয়ন প্রকল্পে চারটি সেতুর কাজ করছেন তিনি। সেগুনবাগিচায় ডিএসসিসির একটি পাঁচতলা ভবনের তিনটি ফ্লোর দখলে রাখার অভিযোগ রয়েছে এ কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে।

ডিএসসিসির কর্মকর্তারা জানান, রতন চাঁনখারপুল মোড়ে ডিএসসিসির একটি মার্কেট নির্মাণে বেনামে কাজ নেন ২০১৭ সালের ২ অক্টোবর। দুই বছর মেয়াদে এ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৯ সালের ১ অক্টোবরে। কিন্তু এ কাজের বিপরীতে শুধু পাইলিং আর কয়েকটি পিলারের রড বেঁধে প্রায় ৮ কোটি টাকা বিল তুলে নিয়েছেন রতন। এদিকে ওই মার্কেটের দোকান বরাদ্দের নামে ডিএসসিসি শত শত মানুষের টাকা নিয়েছে। মার্কেট নির্মাণ কবে শেষ হবে তা জানা যায়নি। একই অবস্থা ওসমানী উদ্যানের গোস্বা নিবারণী পার্কের। পুরান ঢাকার ফুসফুসখ্যাত এ পার্কটি গত দুই বছর ধরে উন্নয়নের নামে টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে। কয়েক দফা ব্যয় বাড়িয়ে এ প্রকল্পের খরচ এখন ধরা হয়েছে শতকোটি টাকার ওপরে। এ পার্কের কাজটিও দি বিল্ডার্সের নামে নিয়েছেন কাউন্সিলর রতন। তিনি তার নিজ এলাকায় ফুটপাতের ওপর একটি পাকা স্থাপনা নির্মাণ করে বেশ সমালোচনায় পড়েন। এছাড়া সেগুনবাগিচায় আগোরা সুপার শপের উল্টো পাশে ফুটপাত দখল করে বর্তমানে একটি গ্যারেজ ও মনোহারি দোকান রয়েছে।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ফরিদউদ্দিন রতন বলেন, আইনগতভাবেই আমি কাউন্সিলর হিসেবে সিটি করপোরেশনে কাজ করতে পারি না। স্বপনকে ব্যক্তিগতভাবে চিনি। তবে তার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আমার কাজ করার বিষয়টি সঠিক নয়। আমি বিদ্যুতের হাজার হাজার কোটি টাকার কাজ করি। নগর ভবনে কোনো সময় দেহরক্ষী নিয়ে যাইনি। তবে একাধিক দেহরক্ষী নিয়ে নগর ভবনে কর্মকর্তাদের রুমে গিয়ে কর্মকর্তাদের হুমকি-ধমকি দেয়ার বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

এই ত্রিরতেœর পাশাপাশি দক্ষিণ নগর ভবনে বিএনপিপন্থি ঠিকাদার জি কে এন্টারপ্রাইজের মালিক গোফরান, ভূঁইয়া এন্টারপ্রাইজের মালিক নুরু ভূঁইয়া, নগর ভবনের শীর্ষ কর্তা ব্যক্তির নিকটাত্মীয় অপু, সাদেক হোসেন খোকার ব্যবসায়িক অংশীদার হিসেবে পরিচিত আবুল অ্যান্ড ব্রাদার্সের আবুল হোসেন, গ্রেফতার যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তফা সরকার, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা তাপস কুণ্ড, ইউনাইটেড কমার্শিয়ালের মালিক খসরু এবং ভাণ্ডার ও ক্রয় বিভাগের মো. হালিমের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজির অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া মহসিন আলী মাখন নামে এক ঠিকাদারও নগর ভবনে দাপটের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন। এদের প্রভাবের কারণে দক্ষিণ নগর ভবনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা থাকেন তটস্থ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি