বৃহস্পতিবার,১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং
  • প্রচ্ছদ » কুমিল্লা নিউজ » হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ অমান্য : সিন্ডিকেটের বালু উত্তোলন অব্যাহত মেঘনার ভাঙ্গন আতঙ্কে ১০ গ্রামের মানুষ


হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ অমান্য : সিন্ডিকেটের বালু উত্তোলন অব্যাহত মেঘনার ভাঙ্গন আতঙ্কে ১০ গ্রামের মানুষ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৪.১১.২০১৯


স্টাফ রিপোর্টার

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার আওতাধীন মেঘনা নদীর ১ নং সাতমারা চরেরগাও, ২ নং ভাষানিয়া দড়িচর, ৬ নং সেনেরচর ও চালিভাঙ্গা মৌজার অভ্যন্তরে বালু উত্তোলন না করার জন্য মহামান্য হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকা সত্ত্বেও কয়েকটি প্রভাবশালী ”বালুদস্যু সিন্ডিকেট” স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আর্থিক রফার মাধ্যমে দীর্ঘদিন যাবৎ বালু উত্তোলন অব্যাহতভাবে চালিয়ে যাচ্ছে বলে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে অভিযোগ উঠেছে।

ফলে উপজেলার রামপ্রসাদেরচর, মহিশারচর, নলচর, ফরাজিকান্দি, সোনাকান্দা, চালিভাঙ্গাসহ ১০টি গ্রামের মানুষ নদী ভাঙ্গনের আতঙ্কে দিনযাপন করছে। মেঘনা নদী ভাঙ্গনের কবলে পরে বসতভিটে হারিয়ে বহু পরিবার নিঃস্ব হয়েছে। এই অঞ্চল থেকে বালু উত্তোলনের ফলে উক্ত গ্রামের শত শত পরিবার নদী ভাঙ্গনের যন্ত্রনা সইতে হচ্ছে। ফলে নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষার্থে বালুদস্যুদের বিরুদ্ধে স্থানীয় লোকজন দফায় দফায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাবরে আবেদন-নিবেদন করে আসছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ নদী ভঙ্গন বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে কয়েকবার বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ জারি করলেও স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে বালুদস্যু সিন্ডিকেট বালু উত্তোলন অব্যাহত রেখে চলেছে।

সরেজমিন নদী ভাঙ্গন কবলিত কয়েকটি গ্রামের গেলে এসব তথ্য চিত্র ফুটে উঠে। এলাকার লোকজন জানায়, রামপ্রসাদচর গ্রামের জনৈক মহসীন নামে এক ব্যক্তি ২০১৭ সালের ৯ এপ্রিল নদী ভাঙ্গনের কবল থেকে উক্ত গ্রামগুলোকে রক্ষা করতে হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন। পরে ওই মাসের ১১ এপ্রিল এক শোনানীতে মাননীয় হাইকোর্ট বালু উত্তোলন না করার জন্য সরকারকে ও স্থানীয় প্রশসনকে নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু ওই বালুদস্যু সিন্ডিকেট হাইকোর্টের নির্দেশের তোয়াক্কা না করে বালু উত্তোলন অব্যাহত চালিয়ে যাচ্ছে। বাড়ি-ঘর ও ফসলি জমি নদীগর্ভে তলিয়ে যাওয়া শত শত পরিবার উপায়ন্তর না দেখে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে আবারও হোসাইন মোহাম্মদ মহসীন হাইকোর্টে রিট পিটিশন দাখিল করেন। মাননীয় হাইকোর্ট গত ১৭ সেপ্টেম্বর ২টি ইজারা বাতিলসহ আশপাশের এলকায় বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ দেন।

কিন্তু এ নির্দেশনা পাওয়ার পর বালুদস্যুরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠে এবং ভিন্ন কৌশলে রাতের অন্ধকারে বালু উত্তোলন অব্যাহত রাখে বালুদস্যু সিন্ডেকেটের জনৈক ওয়াশীম ও আবদুল লতিফ সরকার গংরা। বালুদস্যু সিন্ডিকেট এতোই ভয়ঙ্কর যে, সাংবাদিকরা ঘটনাস্থল সন্ত্রাসীদের অস্ত্রের মুখে তাড়া খেয়ে পালিয়ে আসতে হচ্ছে।

উপজেলা আ’লীগের সেক্রেটারী ও মেঘনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রতন সিকদার দেশ রূপান্তর কে জানান, বালু সিন্ডিকেটের দল সরকারের আদেশ-নির্দেশকে তোয়াক্কা করছে না। তারা চোরাপথে রাতে বালু উত্তোলন করছে আর স্থানীয় প্রশাসন নিরব ভ’মিকায় !
রিট আবেদনকারী মোহাম্মদ মহসীন সাংবাদিকদের বলেছেন, বালুদস্যুরা খুবই ভয়ঙ্কর যে, মহামান্য হাইকোর্টের আদেশ মানছে না। তিনি বলেন, বালু উত্তেলনের ফলে এই অঞ্চলের শত শত পরিবার নদী ভাঙ্গন আতঙ্কে দিনযাপন করছে।

মেঘনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোসাঃ আফরোজা পারভীন বলেন, এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাতে আমরা কয়েকবার অভিযান চালিয়েছি। নৌপুলিশ টহলে থাকায় এখন বালু কাটা বন্ধ রয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি