বৃহস্পতিবার,১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং


গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য ঢেঁকি এখন বিলুপ্তির পথে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৭.১১.২০১৯

সাকিব আল হেলাল:

গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকির কদর আগের মতো আর নেই। বিদ্যুৎচালিত যান্ত্রিক যাঁতাকলে পিষ্ট হয়ে অতল গহবরে হারিয়ে যাচ্ছে এই ঢেঁকি। তবে এক সময় এই ঢেঁকি দিয়ে চাল, আটা, ডাল ভাঙ্গা, সিদল (ছোট মাছ আর কচুর ডেরা সমন্বয়ে) তৈরি করা হতো।

কিন্তু আজ ধানকল, আটাকলের ব্যাপক প্রসারের ফলে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে ঢেঁকি। এখন আগের মতো গ্রামাঞ্চলে ঢেঁকি চোখে পড়ছে না। শোনা যায় না ঢেঁকির ঢক-ঢক শব্দ। আগে গ্রামের বধূরা ধান ভানিয়ে চাল তৈরি করে নানা রকম সুস্বাদু পিঠা তৈরি করতো। এ সময় বধূরা নানা রকম কিচ্ছা-কাহিনী, খোশ-গল্প, গীত করতো, বিশেষ করে বিয়ের হলদি ভানার সময় এলাকার ‘‘হলদি ভানি মাখোরে মোর সখির গায় ’’ করে কোলাহল করতো।

কিন্তু আজ সেই ঢেঁকি গল্প মাত্র। ফলে নতুন প্রজন্ম ঢেঁকি শব্দটি ভুলতে বসেছে। তারা জানে না ঢেঁকির নেই গৌরবময় অতীতের কথা। লক্ষণীয় বিষয় এটাই যে, গ্রামাঞ্চলে এখন ধান, আটা, হলুদ, মরিচ, ডাল ভানা হয় যন্ত্র চালিত কলে। তাই ঢেঁকি পাওয়া এখন দুষ্কর। কালে ভদ্রে যদিও ঢেঁকি চোখে পড়ে তাও পিঠা ব্যবসায়ীদের ঘরে।

কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলার মধ্যে দু-চারটি বাড়িতেই এই ঐতিহ্যকে ধরে রেখেছেন।কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ৩নং উঃ খোশবাস ইউনিয়নের বগাবাড়িয়া গ্রামের আব্দুর রশিদ জানান, ঢেঁকির তৈরি আটার পিঠার স্বাদ খুব ভাল। কলের যন্ত্রে যে আটা বানানো হয় এসব পিঠা স্বাদতো দূরের কথা গন্ধ আসে। কিন্তু কি আর করার তার পরেও মানুষ শীত মওসুমে বাজারের পিঠা খেয়ে শীত পিঠার স্বাদ গ্রহণ করে।শুধু ঢেকি কেন, ধীরে ধীরে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ি ঘানি শিল্প, ধুপ শিল্প, খয়ের শিল্প হারিয়ে যাচ্ছে। যা এক সময় গ্রাম-বাংলার মানুষের ঘরে ঘরে ছিল” ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি