রবিবার,৮ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং


‘ওমর ফারুক এতো পঁচে গেছে জানতাম না’-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৩.১১.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান অব্যাহতি পেয়েছেন এবং আগামীকাল সপ্তম কংগ্রেসের মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নতুন নেতৃত্বকে বরণ করে নেবে। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের রাজনৈতিক ইতিহাসে এরকম দুর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতি আগে কোনো চেয়ারম্যানকে বরণ করতে হয়নি। ওমর ফারুক চৌধুরীই প্রথম ব্যক্তি, যাকে কলংকের কালিমা মাথায় নিয়ে সরে যেতে হলো।

তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো রয়েছে তার মধ্যে প্রথম হলো- যারা দলের মধ্যে দুর্বৃত্ত, সন্ত্রাস এবং চাঁদাবাজি করতো, তাতে তিনিও ভাগ বসাতেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিশেষ করে ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার মতো নেতারা তার পৃষ্ঠপোষকতায়, তার মদদেই যথেচ্ছাচার করতো বলে অভিযোগ রয়েছে।

দ্বিতীয় অভিযোগ রয়েছে যে ক্যাসিনো বাণিজ্য বা বিভিন্ন অপকর্মগুলোর ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে অবহিত করা হলেও তিনি এসব ক্যাসিনো বাণিজ্যের হোতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হয়েছেন।

তৃতীয় অভিযোগ হলো, তিনি টাকার বিনিময়ে কমিটি দিতেন এবং টাকা ছাড়া কোনো কমিটি হতো না, এরকম অভিযোগও তার বিরুদ্ধে উঠেছে।

জানা গেছে যে, গত বুধবার বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সম্মেলনের প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক চয়ন ইসলাম এবং সদস্য সচিব হারুনুর রশীদ আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তারা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধানমন্ত্রীকে যুবলীগের সম্মেলনের দাওয়াতপত্র তুলে দেন। এসময় শেখ হাসিনা তাদের সঙ্গে যুবলীগের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুবলীগের অব্যাহতি প্রাপ্ত চেয়ারম্যান ওমর ফারুকের ‘অধঃপতনে’ অত্যন্ত ব্যথিত এবং দুঃখিত হয়েছেন। তিনি ওই দুই নেতাকে বলেছেন যে, ‘ওমর যে এতো পঁচে গেছে, জানতাম না। তোমরাও আমাকে বলোনি, কেন?’ প্রধানমন্ত্রী দুঃখ করে বলেন যে, আমার পীরগঞ্জের কমিটি করার জন্য ওমর টাকা চেয়েছে। পীরগঞ্জের লোকেরা টাকা দেবে কোত্থেকে?

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানাচ্ছে যে তিনি ওই ‍দুই যুবলীগ নেতাকে বলেন যে, ‘তোমরাও আমার কাছে আসোনি। এসব বিষয়গুলো নিয়ে আমাকে কিছু জানাওনি, কেন?’ এর উত্তরে যুবলীগের ওই দুই নেতার পক্ষ থেকে একজন বলেন যে, ‘আপা আমরা তো আপনার কাছে এসব নিয়ে আসতে ভয় পেতাম। কারণ আমরা মনে করতাম এর ফলে হয়ত আপনি রাগ করবেন, যুবলীগের মধ্যে কোন্দল হচ্ছে বলে আপনি মনে করবেন। সেজন্যই আমরা মুখ বুজে সহ্য করেছি।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী দুঃখ করে বলেন যে, ‘তোমাদের আপাকে তোমরা এই চিনলা!’

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, শেখ হাসিনা বলেন যে, ‘আমি বার বার ওমর ফারুককে সতর্ক করেছি, বার বার সন্তাসী চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেছি। কিন্তু ওমর এই ব্যবস্থাগুলো নেয়নি।’

এই দুইজন নেতার একজন বলেন, ওমর ফারুককে নষ্ট করেছে আনিস (যুবলীগের বহিস্কৃত দপ্তর সম্পাদক)। এ কথা শুনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কেউ কাউকে নষ্ট করতে পারে না। নিজে নষ্ট না হতে চাইলে আরেকজন তাকে নষ্ট করতে পারেনা।’



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি