রবিবার,৮ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং


আসামির মাথায় কেন এই আইএসের প্রতীকসংবলিত টুপি?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৮.১১.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বহুল আলোচিত হোলি আর্টিজান বেকারি হামলা মামলার রায় হয়েছে গতকাল। রায়ে সাতজনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। তবে রায়কে ছাড়িয়ে দেশী-বিদেশী গণমাধ্যমে আলোচনায় উঠে এসেছে দণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামির মাথায় থাকা আইএসের প্রতীকসংবলিত টুপি।

গতকাল ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে মামলার রায় ঘোষণা শেষে যখন আসামিদের প্রিজন ভ্যানের দিকে নেয়া হচ্ছিল, তখন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাত আসামির একজন রাকিবুল ইসলাম ওরফে রিগ্যানের মাথায় ছিল আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের প্রতীকসংবলিত একটি কালো টুপি। কঠোর নিরাপত্তার মধ্যেও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির কাছে কীভাবে এ টুপি এল, তা নিয়ে রীতিমতো বিস্ময় প্রকাশ করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও।

রায় ঘোষণার পর তাত্ক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে আসেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম। রিগ্যানের মাথার কালো টুপি নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, এটি আমরাও দেখেছি। বিস্মিত হয়েছি। কারাগার থেকে আনার সময় আসামিদের তল্লাশি করে তাদের সঙ্গে কী আছে তা দেখা হয়। এ ধরনের টুপি তাদের কাছে কীভাবে গেল, সেটি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হবে।

আদালত চত্বরে উপস্থিত আইনজীবী ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা জানান, সকালে আদালতে আনার সময় কারো মাথায় এমন টুপি ছিল না। বের হওয়ার সময় রাকিবুলের মাথায় এ টুপি দেখা যায়। কারাগার থেকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আনা এসব জঙ্গি আইএসের প্রতীকসংবলিত টুপি কোথায় পেলেন, তা নিয়ে উপস্থিত সবার মধ্যে বিস্ময় ও প্রশ্ন তৈরি হয়।

সচিবালয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সংবাদ সম্মেলনেও রায় ছাপিয়ে উঠে আসে টুপির প্রসঙ্গ। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে আইনমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি জেনেছি, এটি নিয়ে তদন্ত হওয়া উচিত। আমি এখনই তদন্তের জন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলব। মন্ত্রীর এমন মন্তব্যের পর পরই তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে কারা কর্তৃপক্ষ। এ কমিটি পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি