মঙ্গলবার,৪ঠা আগস্ট, ২০২০ ইং


পরিবেশ রক্ষায় ২৬ দেশ ঘুরে গ্রেগরি এখন বাংলাদেশে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০২.০২.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

সোলার নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে বাইসাইকেল চালিয়ে ৩২ হাজার কিলোমিটার পাড়ি দিয়েছেন বেলজিয়ামের নাগরিক গ্রেগরি লিইউলি।

৪৮ বছরের বেলজিয়ামের নাগরিক গ্রেগরি লিইউলি। পরিবেশ রক্ষায় সচেতনতার লক্ষ্যে বাঁশের তৈরি একটি বাইক নিয়ে চষে বেড়াচ্ছেন পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত। বাইকটিতে রয়েছে সোলার সিস্টেম, যা বাইকটিকে মোটরবাইকে রূপান্তরিত করেছে।

ব্রাসেলস ইউনিভার্সিটি থেকে টেলিভিশন সাংবাদিকতায় মাস্টার্স শেষ করে বর্তমানে বেলজিয়ামের একটি স্কুলে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ের শিক্ষকতা করছেন তিনি। বিশ্বব্যাপী পরিবেশ রক্ষায় সোলার প্যানেল ব্যবহারে মানুষকে উৎসাহী করতে ২৭ দেশে ৩২ হাজার কিলোমিটার বাইক চালিয়ে তিনি বর্তমানে মৌলভীবাজারে অবস্থান করছেন। ৩/৪ দিন মৌলভীবাজারে থেকে বাংলাদেশ ঘুরবেন পুরো ফেব্রুয়ারি মাস। ৬ মার্চ বাংলাদেশ ছেড়ে চলে যাবেন ভুটান, তবে সেখানে যাওয়ার আগে তার বিশেষ বাইকটি জাহাজে করে বেলজিয়ামে পাঠিয়ে দেবেন তিনি।

২৯ জানুয়ারি বিকেলে মৌলভীবাজার সার্কিট হাউজ এলাকায় গ্রেগরির সঙ্গে আলাপ হয় দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড প্রতিনিধির। সেখানে তিনি তার ভ্রমণ সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য দেন।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী প্রতিদিন পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। এতে হুমকির মুখে পড়ছে পৃথিবী। মানুষসহ প্রতিটি প্রাণ বাঁচাতে পরিবেশ রক্ষা করা প্রয়োজন। পরিবেশের জন্য বড় একটি হুমকি বিদ্যুৎ। বিদ্যুৎ উৎপাদন সরাসরি পরিবেশের উপর আঘাত করে, যা জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী। তবে সভ্যতার প্রয়োজনে বিদ্যুৎ দরকার। আর এর সমাধান হচ্ছে সোলার প্যানেল।

তিনি আরও বলেন, সোলার প্যানেল বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় হলে বিদ্যুতের কারণে পরিবেশের যে দূষণ হয় তা কমে আসবে। বিশ্বব্যাপী সচেতনতার লক্ষ্যে তৃতীয় ধাপে ২০১৮ সালের ৩ জুন বেলজিয়াম থেকে শুরু করে ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ড, জার্মানি, হল্যান্ড, রাশিয়া, কাজাখস্তান, চীন, লাওস, ভারত এবং সর্বশেষ বাংলাদেশসহ ২৭টি দেশ বাইকে করে ভ্রমণ করেছেন। বাঁশের তৈরি বাইক নিয়ে ২৭টি দেশ ঘুরতে ৩২ হাজার কিলোমিটার পথ তাকে পাড়ি দিতে হয়েছে।

চলতি মাসের ১৮ তারিখ তিনি সিলেটের ডাউকি বর্ডার দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছেন। মাঝখানে ডান কাঁধের ব্যথা পেয়ে ৮ দিন বিশ্রামে ছিলেন। ২৯ জানুয়ারি রাতে মৌলভীবাজার থেকে বৃহস্পতিবার চলে যাবেন শ্রীমঙ্গল। সেখান থেকে যাবেন ঢাকা। এরই মধ্যে ঘুরাঘুরি শেষ করে ৬ মার্চের ভেতর চট্টগ্রাম থেকে জাহাজে বাইকটি পাঠাবেন নিজ দেশ বেলজিয়ামে। বাইকে ব্যাটারি থাকার কারণে তা বিমান বহন করবে না, তাই জাহাজে পাঠাতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এর পর দুই সপ্তাহ বাইক ছাড়া ভুটান ঘুরে চলে যাবেন নিজ দেশে।

তার বাহনটি মূলত বাইসাইকেল হলেও এর সঙ্গে সোলার প্যানেল রয়েছে। যা মটর সাইকেলের ইি নের মতো কাজ করে। তবে চার্জ শেষ হয়ে গেলে বা ব্যাটারির সংযোগ আলাদা করে বাইসাইকেলের মতো চালানো যায়।
সাইক্লিস্টদের সঙ্গে গ্রেগরি লিইউলি

বিশেষ এই বাইক তৈরিতে তিনি ব্যবহার করেছেন বাঁশ। প্রযুক্তিটি সম্পূর্ণ তার নিজের। বেলজিয়ামে বাঁশ না থাকায় উগান্ডা থেকে বাঁশ আনিয়েছেন। ৪.২০ মিটার লম্বা এই বাইকের পেছনের দিক অনেকটা ঠেলা গাড়ির মতো। যার প্রস্ত এক মিটার। মূলত: পেছনের এই অংশে রয়েছে দুইটি সোলার প্যানেল, যা থেকে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয় আর এর সাহায্যেই চলে বাইকটি।

এবারের রাইডটি তৃতীয় ধাপের জানিয়ে তিনি বলেন, সোলারের প্রতি সচেতনতা বাড়াতে তিনি এর আগে ২০০৬ থেকে ২০০৯ সাল এবং ২০১৩ থেকে ২০১৪ সালে দুইবার সাধারণ বাইসাইকেল নিয়ে ভ্রমণ করেছেন। এই দুইবারে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, চিলি বুলগেরিয়া, পেরু, ইকুয়েডর, খাজাকিস্তান, চায়নাসহ বেশ কিছু দেশ ভ্রমণ করেছেন। আগের দুটি রাইড সাধারণ বাইসাইকেলে হলেও ২০১৮ সালের ৩ জুন থেকে সোলার চালিত বাঁশের তৈরি বাইকটি নিয়ে বের হয়েছেন। দেশে ফিরে গিয়ে আবারও নতুন সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

দীর্ঘ এই পথে অনেক বন্ধু স্বজন পেয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতিটি দেশে নতুন নতুন পরিবেশ এবং নতুন নতুন মানুষ, সংস্কৃতি আমাকে আনন্দ দেয়। এই আনন্দই ভ্রমণের সব থেকে বড় পাওয়া। যেখানেই গিয়েছি সাধারণ মানুষ আমাকে আপন করে নিয়েছে।

তিনি আহ্বান জানিয়ে বলেন, প্রতিটি মানুষ যেন মানুষের অস্তিত্বের জন্য, প্রতিটি প্রাণের জন্য পরিবেশ রক্ষায় এগিয়ে আসে।

গ্রেগরির সঙ্গে আলাপকালে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার সাইক্লিং কমিউনিটির মডারেটর ইমন আহমদ ও সৈয়দ রাফিউল ইসলাম। তারা জানান, আমরা আমাদের কমিউনিটির পক্ষ থেকে তাকে স্বাগত জানিয়েছি। দুই দিন ধরে তার সঙ্গে আছি। সবসময়ই যে কেউ আসলে আমরা স্বাগত জানাই। প্রয়োজনীয় সাহায্য করি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাইসাইকেল নিয়ে ৬৪ জেলা ভ্রমণে বের হওয়া খাগড়াছড়ির সাইক্লিষ্ট আতিকুর রহমানের সঙ্গে। তিনি জানান, কিছু সময় ধরে আমি গ্রেগরির সঙ্গে মিশেছি। তার সঙ্গে কথা বলেছি। তার এই ভ্রমণের কারণে সাধারণ মানুষ পরিবেশের প্রতি সচেতন হবে বলে আমার বিশ্বাস।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি