সোমবার,১৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং


লেখক আবদুর রহিম এর গল্প ভাবনা ও নির্মাণ শৈলী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৪.০২.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

“মনের বনে ফুল ফুটেছে”
এটি লেখকের প্রথম ‘গল্পগ্রন্থ’। অমর একুশে গ্রন্থ মেলা ২০২০ এ পাওয়া যাবে। সামাজিক দায়বদ্ধতা, অন্তরের অতৃপ্তি ও সৃষ্টির আকাক্সক্ষা থেকেই মানুষ লেখার জগতে প্রবেশ করে।

রবীন্দ্রনাত ঠাকুর পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন,-
“মানবের সুখে দুঃখে গাঁথিয়া সংগীত
যদি গো রচিতে পারি অমর আলয়।”
“তোমরা তুলিবে বলে সকাল বিকাল
নব নব সংগীতের কুসুম ফুটাই
হাসি মুখে নিয়ো ফুল, তার পরে হায়
ফেলে দিয়ো ফুল, যদি সে ফুল শুকায়।”

এ গ্রন্থে আটটি গল্প স্থান পেয়েছে।
প্রথম গল্প “ঢেউয়ের পর ঢেউ”। এটিকে গল্প বলা ততটা সমীচীন হবে না। গল্পে বাস্তব ও কল্পনার সংমিশ্রণ ঘটেছে। বর্তমান সময়ের সব থেকে আলোচিত ইস্যু রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের আগমনের করুন চিত্র প্রকাশিত হয়েছে। গল্পটি পড়তে পড়তে একসময় মনে হবে এ ঘটনাগুলির সাক্ষী লেখক নিজেই।

২য় গল্প
“মেয়েটি বলল আমি প্রেগন্যান্ট”
গল্পের নামকরণটা বেশ অদ্ভুত মনে হলেও শেষান্তে নামকরণের সার্থকতা খুঁজে পাওয়া যায়। গল্পটিতে প্রতিমুহূর্তেই টানটান উত্তেজনা বিরাজ করে। আশির দশকের চিত্রকল্পটি যেন শিল্পীর আঁকা রঙিন ছবি। গল্পে শিউলি নামের চরিত্রটাই প্রধান গল্পের শেষ অংশে শিউলির নাটকীয় পরিণতি পাঠককে তৃপ্তি দিবে নিঃসন্দেহে।
তৃতীয় গল্প
“মনের বনে ফুল ফুটেছে”
বোঝাই যাচ্ছে এই গল্পের সার্থকতার উপর নির্ভর করেই গ্রন্থের নামকরণ করেছেন।
এই গল্পের প্রেক্ষাপট নব্বই এর দশকে । লেখক টগবগে যুবক। হঠাৎ এক ভ্রমণে নূরজাহানের সাথে লেখকের পরিচয় ও আলাপচারিতা। নূরজাহানের মায়াভরা চাহনি হয়তো আজো লেখক ভুলতে পারেন না। তাতে কী!
“ট্রেন ছেড়ে দিয়েছে। মুহূর্তের মধ্যে সেই গজ দাঁতের সুহাসিনী অদৃশ্য হয়ে গেল। কিন্তু মনের বনে যে ফুল ফুটেছে।

চতুর্থ গল্প
ভালোবাসার স্বর্গ
গল্পের এক পর্যায়ে এসে সত্যিই মনে হবে এটি ভালোবাসার স্বর্গ। গল্পের কেন্দ্রীয় চরিত্র আমেনা। আমেনা কে ঘিরেই গল্পের আবহ। এই গল্পের বিশেষ মহত্ব হলো মানবিকতা। এই গল্পের সার্থকর্তা লেখকেরই পুরো কৃতিত্ত্ব। সর্বোপরি এটি মৌলিক গল্প।

পঞ্চম গল্পঃ
“আমি আপনাকে ভালোবাসি”
এটিকে আমি গল্প বলবো না। পাঠক যখন ঐটি পড়বে তখন বুঝতেই পারবে ঐটিতে লেখকের পাণ্ডিত্য, বুদ্ধি ও জ্ঞানের পরিচয়ই মুখ্য হয়ে উঠেছে। ঐটি মন্ময় প্রবন্ধের পর্যায়ে পড়ে বা এটাকে রম্য লিখাও বলা যায়।

ষষ্ঠ গল্প
আমার অন্য জীবন
এই গল্পের দুটি খণ্ড
১. আমি যখন ভিলেন
২. আমার প্রথম ও শেষ শাড়ি পরা
প্রথম অংশে লেখক পাঠককে সরাসরি প্রভাবিত করবে এবং লেখকের সৃজনশীল কাজের চিত্রপট ভেসে উঠবে। এই গল্পে লেখকের বন্ধু শফিউল্লার অভিনয় পাঠককে আনন্দ দেবে।
২য় অংশেঃ “আমার প্রথম ও শেষ শাড়ি পরা” এখানে পাঠক জানতে পারবে ” প্রথম শাড়ি পরার কারণ আর জানতে পারবে না- কেন শাড়ি পরা ছেড়ে দেয়া হয়েছিল।

সপ্তম গল্পঃ
“যে কান্না আজো আমাকে হাসায়”
এই গল্পটি খুবই চমৎকার। নামকরনটা অসাধারণ এই গল্পটা শিক্ষক, শিক্ষার্থীর জন্য একটা বাস্তবভিত্তিক জ্ঞান আহরণ করার একটি পদ্ধতিও বটে। বিশেষ করে শিক্ষা সফরের আনন্দদায়ক মুহূর্তগুলোকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের প্রশ্নোত্তর পর্বটি অসাধারণ ছিল। গল্পের নামকরণ নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। এজন্য পাঠককে পুরো গল্পটি পড়তে হবে।

অষ্টম ও শেষ গল্পঃ
“নানা রঙের দিনগুলি”
এটি মূলত স্মৃতিচারণমূলক লেখা। লেখকের স্কুল জীবনের স্মরণীয় মুহূর্তগুলো প্রকাশিত হয়েছে রোমান্টিক আবহে।
লেখকের সহপাঠী হামিদাকে নিয়ে একটি লেখা ছিল এমন-
“সে ছিল দীর্ঘদেহী ও অপূর্ব সুন্দরী, ওর বাইরের সৌন্দর্যের সাথে ভেতরের স্বচ্ছতা মিলে সে কি অপূর্ব গাম্ভীর্য সৃষ্টি করেছিল সত্যিই অসাধারণ”।
গল্পের শেষ অংশ দিয়েই শেষ করতে চাই-
“দিনগুলো মোর সোনার খাঁচায় রইল না
সে যে আমার নানা রঙের দিনগুলি

সর্বোপরি
এ গ্রন্থে, শিক্ষা, ভালোবাসা, মমতা, স্নেহ, দুঃখ কষ্ট, বেদনার এক রাজ্য লেখক ফুটিয়ে তুলেছেন সার্থকভাবে।

লেখকঃ মোঃ নিজাম উদ্দিন
সহকারী শিক্ষক (বাংলা)
সাবেরা সোবহান সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
ব্রাহ্মণবাড়িয়া।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি