সোমবার,১৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং


মেসির অ্যাসিস্টের হ্যাটট্রিকে বার্সেলোনার জয়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১০.০২.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

গত মৌসুমে রিয়াল বেতিসের মাঠে এসে দারুণ এক হ্যাটট্রিক করেছিলেন লিওনেল মেসি। অনবদ্য শেষ গোলটির জন্য বেতিস–সমর্থকদের টুপিখোলা অভিনন্দনও পেয়েছিলেন। গত মৌসুমের পুনরাবৃত্তি এবার করতে পারেননি, গোলের দেখা পাননি একটিও। তবে গোল না পেলেও মেসির ‘হ্যাটট্রিক’ ঠিকই হয়েছে। অ্যাসিস্টের হ্যাটট্রিক করে বেতিসের মাঠে দুবার পিছিয়ে পড়া বার্সেলোনাকে জিতিয়েছেন ৩-২ গোলে।

বার্সার বর্তমান কোচ কিকে সেতিয়েন খেলতে এসেছিলেন তাঁরই সাবেক দলের মাঠে। দারুণ কোচিংয়ে দুই মৌসুম আগে বেতিসকে নিয়ে গিয়েছিলেন ইউরোপা লিগে। পুরোনো ক্লাবের মাঠ থেকে আর একটু হলে হতাশা নিয়েই ফিরতে হচ্ছিল সেতিয়েনকে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ৬ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল হজম করে বার্সা। ডি বক্সে ক্লেমেন্ত লংলের হাতে বল লাগায় ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির (ভার) সহায়তা নিয়ে বেতিসকে পেনাল্টি দেন রেফারি। সুযোগ কাজে লাগাতে ভুল করেননি সার্হিও ক্যানালেস।

তবে দলকে সমতায় ফেরাতে মেসির সময় লেগেছে মাত্র তিন মিনিট। বেতিস ডিফেন্ডারদের মাথার ওপর দিয়ে দারুণ এক বল বাড়ান ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংয়ের উদ্দেশে। বুক দিয়ে দারুণভাবে বল নামিয়ে ঠান্ডা মাথায় ফিনিশ করে বার্সার জার্সি গায়ে নিজের দ্বিতীয় গোলের দেখা পান ডি ইয়ং।

তবে এরপর প্রথমার্ধের প্রায় পুরোটা সময় বার্সাকে একপ্রকার নাচিয়ে ছেড়েছে বেতিস, স্পষ্ট করে বললে নাবিল ফেকির। বিশ্বকাপজয়ী এই ফ্রেঞ্চ ফুটবলার রীতিমতো আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন বার্সেলোনার ভঙ্গুর ডিফেন্সের সামনে। দারুণ খেলার পুরস্কারও তিনি পেয়েছেন। ২৬ মিনিটে মাঝমাঠে আর্তুরো ভিদালের দৃষ্টিকটু ভুল, বেতিসের দুই খেলোয়াড়ের পা ঘুরে বল গেল ফেকিরের পায়ে। মাটি কামড়ানো নিখুঁত শটে পরাস্ত হলেন টের স্টেগেন, আরও একবার ম্যাচে লিড বেতিসের। ওহ্‌ হ্যাঁ, ফেকিরের গোলের জোগানদাতা? কিছুদিন আগেই বার্সা থেকে ধারে বেতিসে আসা কার্লেস অ্যালেনা!

তবে ফেকিরের আগেই গোল পেতে পারতেন মেসি। ২৩ মিনিটে আতোঁয়া গ্রিজম্যানের দারুণ থ্রু বক্সের মধ্যে খুঁজে নিয়েছিল মেসিকে। কিন্তু গোলরক্ষককে একা পেয়েও জালে বল জড়াতে পারেননি তিনি। প্রথমার্ধের বাকি সময়েও পরিষ্কার কোনো গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেনি বার্সা। তবে প্রথমার্ধের বিরতিতে যাওয়ার ঠিক আগের মুহূর্তে আবারও মেসি ঝলক। ফ্রি কিক থেকে মাপা শট নিলেন বক্সে, বেতিস ডিফেন্ডারদের ফাঁকি দিয়ে ২-২ সমতা আনেন সার্জিও বুসকেটস।

বিরতি থেকে ফিরেই এগিয়ে যেতে পারত বার্সা। কিন্তু এদিন মেসি যেন ঠিক গোল করার ‘মুডে’ ছিলেন না। বাঁ পায়ে সুবিধাজনক জায়গায় বল পেয়েও মেরেছেন গোলকিপারের নাগালের মধ্যে। তবে গোলদাতা মেসি মুডে না থাকলেও অ্যাসিস্টদাতা মেসি ছিলেন আগুনে রূপে। ফলাফল, ৭২ মিনিটে লংলেকে দিয়ে করালেন আরও একটি গোল। আবারও ফ্রি কিক থেকে বক্সে মাপা বল ফেলেছেন, দারুণ হেডে প্রথমবারের মতো ম্যাচে দলকে এগিয়ে নেন লংলে।৭৯ মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছেড়েছেন বার্সা ডিফেন্ডার ক্লেমেন্ত লংলে। এর তিন মিনিট আগে লাল কার্ড দেখেন বেতিসের নাবিল ফেকিরও।

এরপর ম্যাচে বেশ একপ্রস্থ নাটকই হয়েছে। ৭৬ মিনিটে অযথাই ফাউল করে প্রথম হলুদ কার্ড দেখেন ম্যাচে বেতিসের সেরা খেলোয়াড় ফেকির। কিন্তু কার্ড মানতে না পেরে রেফারিকে কটু কথা বলে বসেন। রেফারিও সঙ্গে সঙ্গে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখিয়ে দেন ফেকিরকে। বার্সেলোনা কোথায় একজন বেশি নিয়ে খেলার ফায়দা তুলবে তা নয়, তিন মিনিট পর তারা নিজেরাও হয়ে গেল ১০ জনের দল! দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন লেংলে। এরপর বেশ চেষ্টা করেও আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি বেতিস।

অ্যাওয়ে ম্যাচ থেকে জয় নিয়ে ফিরলেও বার্সার পারফরম্যান্স নিশ্চিতভাবেই সেতিয়েনের কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ বাড়াবে। পুরো রক্ষণভাগের মধ্যে সমন্বয়হীনতা ছিল চোখে পড়ার মতো। চোটের কারণে ছিলেন না জেরার্ড পিকে, শুরুর একাদশে সেতিয়েন রাখেননি জর্ডি আলবাকেও। আলবার বদলে খেলা জুনিয়র ফিরপো মন ভরাতে পারেননি, উমতিতি-সেমেদোরাও বল ক্লিয়ার করা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগেছেন বেশ কয়েকবার। পুরো ম্যাচে বার্সার আরেক হতাশার নাম ছিলেন গ্রিজম্যান। মেসির জন্য একটি বল বানিয়ে দেওয়া ছাড়া পুরো ম্যাচে বলতে গেলে অদৃশ্যই ছিলেন তিনি।

এমন জয়েও অবশ্য শীর্ষে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে তিন পয়েন্ট পিছিয়েই থাকতে হচ্ছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সাকে। দিনের আরেক ম্যাচে ওসাসুনার মাঠ থেকে পিছিয়ে পড়ে জয় নিয়ে এসেছে জিনেদিন জিদানের দলও। ইসকো, রামোস, ভাসকেজ ও ইয়োভিচের গোলে রিয়ালের জয় ৪-১ গোলে। ২৩ ম্যাচ শেষে ৫২ পয়েন্ট লস ব্লাঙ্কোসদের, সমান ম্যাচে ৪৯ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়েই থাকল বার্সেলোনা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি