শনিবার,২৮শে মার্চ, ২০২০ ইং


দেশব্যাপী মানব পাচারকারীর তালিকায় কুমিল্লার ৪ জন !


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৫.০২.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দেশব্যাপী বিস্তৃত মানব পাচারের নেটওয়ার্কে চট্টগ্রাম ও পার্বত্য এলাকায় একাধিক সিভিল এভিয়েশন কর্মী এবং পুলিশ সদস্যও রয়েছেন। সরকারি চাকরি করলেও তাদের নাম উঠেছে মানব পাচারকারীর তালিকায়।

সম্প্রতি একটি গোয়েন্দা সংস্থা মানব পাচারকারীদের ওই তালিকা তৈরি করে। ৪৭০ জনের ওই তালিকায় চট্টগ্রাম এলাকায় মানব পাচারকারী হিসেবে সরকারি পদাধিকারী কয়েকজনের নাম পাওয়া গেছে। তালিকায় আছেন জনপ্রতিনিধিও। ট্রাভেল এজেন্সির একাধিক কর্মীও এ নেটওয়ার্কে সম্পৃক্ত। মানব পাচারকারী হিসেবে চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় মোট অভিযুক্ত ৯০ জন।

গোয়েন্দা সংস্থার তালিকায় বলা হয়, বান্দরবান জেলায় মানব পাচারের পৃষ্ঠপোষক ও মূল হোতা তিনজন। তাদের মধ্যে একজন এই জেলারই একটি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত)। অন্য দু’জন হলেন- নাইক্ষ্যংছড়ির ব্যবসায়ীপাড়ার নুরুল কবিরের ছেলে মো. ইকবাল ও আদর্শগ্রাম এলাকার মৃত মো. সিরাজ মিয়ার ছেলে মৌলভী নুরুল ইসলাম। চট্টগ্রাম সিভিল এভিয়েশনের সুপারভাইজার হানিফের নামও রয়েছে মানব পাচারকারীদের তালিকায়। চট্টগ্রামের পুলিশ কমিশনার মাহবুবুর রহমান  বলেন, মানব পাচারের যে কোনো অভিযোগ পেলেই তা গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয়। তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয় পুলিশ।

মানব পাচারকারীর তালিকাভুক্ত সিভিল এভিয়েশনের সাবেক নিরাপত্তাকর্মী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, তার এক ভাতিজা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তার নাম মানব পাচারকারীদের তালিকায় ঢুকিয়েছে। এতে তার অনেক ক্ষতি হয়েছে। সিভিল এভিয়েশন থেকে তার চাকরি গেছে। অভিযোগ ‘মিথ্যা’ হলেও এ নিয়ে প্রতিনিয়ত অনেক প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয় তাকে। এখন কক্সবাজারে মাছের প্রজেক্টে কাজ করেন তিনি। মানব পাচারে জড়িত ব্যক্তিদের নানাভাবে সহায়তা করে অসাধু পুলিশ ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের একশ্রেণির লোকজন।

পাচারকারীরা এদের সঙ্গে সমঝোতার ভিত্তিতেই ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে পাসপোর্ট তৈরি করে। পাচারকারীরা টার্গেট করা রোহিঙ্গাদের প্রথমে কক্সবাজার থেকে ঢাকায় নিয়ে আসে। এরপর প্রত্যেক রোহিঙ্গা নারী-পুরুষকে দেশের একেকটি এলাকার ভুয়া ঠিকানা সংবলিত কাগজপত্র সরবরাহ করা হয়। কাগজপত্রে বর্ণিত তথ্য তাদের মুখস্থ করানো হয়। এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর মানব পাচারকারী দালালরা পাসপোর্ট অফিসের দালালের সঙ্গে যোগাযোগ করে। এরই মধ্যে টার্গেট রোহিঙ্গাদের কোনো একটি এলাকায় নিয়ে সেখানে তাদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট নেওয়া হয় এবং জাতীয় পরিচয়পত্র ও জন্ম সনদের ব্যবস্থাও করা হয়। সম্প্রতি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল রাজধানীর গুলবাগে মানব পাচারকারী চক্রের হোতা ইব্রাহীম খলিলের বাসায় অভিযান চালিয়ে ৪৯টি পাসপোর্ট জব্দ করে। এতে নিশ্চিত হওয়া যায়, মানব পাচারকারীরা অর্থের বিনিময়ে ভুয়া তথ্য ব্যবহার করে হরহামেশা পাসপোর্ট বানাচ্ছে।

চট্টগ্রামে মানব পাচারকারী ও সহায়তাকারী যারা : চট্টগ্রামের মানব পাচারকারীদের তালিকায় রয়েছেন- ডবলমুরিংয়ের শাহ আলম, কোতোয়ালি এলাকার তুষ্টি ইন্টারন্যাশনালের উত্তম বাবু, ষোলশহরের এয়ার ফ্লাই ইন্টারন্যাশনালের আরিফ, রিয়াজ উদ্দিন বাজারের ওয়ান স্টার ট্রাভেলসের ওসমান গণি, নিউমার্কেট এলাকার রেক্স ইন্টারন্যাশনালের আলী, আগ্রাবাদের আল মামুন ট্রাভেলসের মামুন, সিভিল এভিয়েশন থেকে চাকরিচ্যুত হাটহাজারী এলাকার নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, সিভিল এভিয়েশনের সুপারভাইজার হানিফ, সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তাকর্মী ও বর্তমানে ঢাকায় কর্মরত হাসান, সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তাকর্মী রাশেদ, দীপঙ্কর ও শাহ আমানত বিমানবন্দরে ওমান এয়ারের স্টেশন সুপারভাইজার নূরে আলম।

পৃষ্ঠপোষকতা করছেন যারা : মানব পাচারকারীদের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে চট্টগ্রামে তালিকার এক নম্বরে রয়েছেন চাক্তাইয়ের বাস্তুহারা কলোনি এলাকার আব্দুল মমিন। তালিকায় আরও রয়েছেন একই এলাকার কোরবান আলী, মো. সেলিম, মোহাম্মদ আলী, হেলাল উদ্দিন রানা, বাঁশখালীর বদিউল আলম, ইউসুফ সওদাগর, দীনেশ চন্দ্র জলদাশ, আবদুল গফুর প্রকাশ নাগু, হযরত আলী, মো. আমিন, নূর হাসেম, কোরবান আলী, চাক্তাইয়ের খালেদা বেগম, মো. হাছান, আনোয়ারার আমিন শরিফ, জসিম উদ্দিন, মো. আক্তার, বাঁশখালীর জাহাঙ্গীর আলম, মো. মনছুর, হাবিব উল্লাহ, মো. ইদ্রিস, মো. শফি, ইসমাইল, নবী হোসেন, নেজাম, আনোয়ার ও সরওয়ার। এ ছাড়া মানব পাচারকারীদের মূল হোতাদের তালিকায় রয়েছেন বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল হক, বাঁশখালীর ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. ফরিদ, মো. সেলিম, নুরুন্নবী ও আব্দুস ছালাম।

মানব পাচারে সম্পৃক্ত ট্রাভেল এজেন্সি :মানব পাচারে জড়িত রয়েছে সাতটি ট্রাভেল এজেন্সি। এগুলো হলো- গালফ ট্রাভেলস, তুষ্টি ইন্টারন্যাশনাল, এয়ার ফ্লাই ইন্টারন্যাশনাল, ওয়ান স্টার ট্রাভেলস, রেক্স ইন্টারন্যাশনাল, আল মামুন ট্রাভেলস ও থ্রি স্টার ট্রাভেলস।

কুমিল্লার তালিকায় ৪ জন : কুমিল্লার মানব পাচারকারীদের তালিকায় রয়েছেন দেবীদ্বারের লক্ষ্মীপুরের মৃত আব্দুল করিমের ছেলে মো. মিজান মিয়া, বুড়িচংয়ের আবু তাহেরের ছেলে খোকন মিয়া, শহিদ মিয়ার ছেলে ছেন্টু মিয়া ও নাঙ্গলকোটের পতিপুরের জালাল উদ্দিনের ছেলে মো. জসীম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আটজনের নামের শেষে ‘মিয়া’ : মানব পাচারকারীদের তালিকায় রয়েছেন ব্রাক্ষণবাড়িয়ার এক নারীসহ নয়জন। এরা হচ্ছেন- কসবার আজিজ মিয়া, হুসাইন মিয়া, কালাছড়া বিজয়নগরের লোকমান মিয়া, কসবার মিরান মিয়া, মোশারফ মিয়া, রাজু মিয়া, দুর্জয়নগরের সাধু মিয়া, শিবনগরের শহীদ মিয়া ও আখাউড়ার মোশারফের স্ত্রী রত্না বেগম।

চাঁদপুরে চারজন : মানবপাচারকারী তালিকায় চাঁদপুরের রয়েছেন চারজন। তারা হলেন- শ্রীরামপুরের তাজুল জমাদার, ফয়সাল জমাদার, ফরিদগঞ্জের মো. মোর্শেদ ও হাজীগঞ্জের হাসান মিয়াজী।

নোয়াখালী :নোয়াখালীতে মানব পাচারকারীর তালিকায় রয়েছে এয়ার ট্রিপ ইন্টারন্যাশনাল, এম আর ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুর, আল জহির ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুর, স্মার্ট বিডি ট্র্যাভেলস, নোয়াখালী এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, কবিরহাট এলাকার মো. আনোয়ার হোসেনের সানসাইন ট্রাভেলস অ্যান্ড প্রিয়া ইন্টারন্যাশনাল, মো. সালেহ উদ্দিনের সনিক এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, বসুরহাটের মো. রাশেদের মালিকানাধীন পান্না ট্রাভেলস, ছালেহ এয়ার সার্ভিস ও কাজী এয়ার ইন্টারন্যাশনাল।

ফেনীতে তিনজন : মানব পাচারকারী হিসেবে তালিকাভুক্ত ফেনীর তিনজন হচ্ছেন- পরশুরামের মৃত শাহাব উদ্দিনের ছেলে জামাল উদ্দিন, বাউর খুমা এলাকার মো. নুরু ও দাগনভূঞার মৃত আব্দুল ওহাবের ছেলে শফিউল আজম।

বান্দরবানে যারা :বান্দরবানে মানব পাচারকারী হিসেবে রয়েছেন নাইক্ষ্যংছড়ির চাকঢালা এলাকার এজহার হোসেন, তারেক কবির, মো, রফিক, হোসনে মোবারক, নূর কালাম, ব্যবসায়ীপাড়ার সাইফুল্লাহ কবির ও আদর্শগ্রাম এলাকার নুরুল ইসলাম।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি